সফল হতে চাইলে যে বিষয়গুলো আপনার এড়িয়ে চলা উচিত     সফল হতে চাইলে যে বিষয়গুলো আপনার এড়িয়ে চলা উচিত

সফল হতে চাইলে যে বিষয়গুলো আপনার এড়িয়ে চলা উচিত

ব্যাক্তিজীবন, শিক্ষাজীবন, চাকরী বা ব্যবসাজীবন আমরা সবাই চাই সফল হতে, চাই নিজেকে অন্যদের চেয়ে ভালো একটি অবস্থানে দেখতে। ব্যক্তি বিশেষে সফলতার ব্যপারটি অনেকটা ভিন্ন হয়। তবে, সফলতার মাপকাঠি কোনভাবেই শিক্ষাগত যোগ্যতা বা দু্ই-চারটি গাড়ি দিয়ে বিবেচনা করা যাবে না। এক্ষেত্রে মানসিক সাফল্য ও মানসিক সফলতাই মূখ্য। জীবনে সফল হতে হলে আমাদের বেশ কিছু বিষয় এড়িয়ে চলা উচিত। চলুন জেনে আসা যাক সেগুলো কি কি-

৯. কতোটুকু ভালো জীবন যাপন করছেন তা দিয়ে আপনার বাহ্যিক সাফল্য নির্ভর করে

ব্যক্তিগত জীবনকে শান্তিপূর্ণ করাটা সব মানুষের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ। সেক্ষেত্রে আপনার বাহ্যিক সাফল্য বলে দিবে আপনার ব্যক্তিগত জীবন কতোটুকু শান্তিপূর্ণভাবে কাটছে। যে কাজগুলো আপনাকে মানসিকভাবে প্রশান্তি দিবে সে কাজগুলো গুরুত্বসহকারে ও যত্নসহকারে সম্পন্ন করুন।

৮. বাইরের চাকচিক্যকে প্রাধান্য দিবেন না

বাইর থেকে আপনাকে যতই চকচকে দেখাক না কেন, নিজের ভেতর বিরাজমান জ্ঞানী মন-মানসিকতা আপনার অন্তর্নিহিত ব্যাপারটিকে বের করে নিয়ে আসবে। তাই বাইরের চাকচিক্যকে কোনভাবেই প্রাধান্য দেওয়া উচিত নয়।

৭. 'কেন' জিজ্ঞেস করা

সফল ব্যক্তিদের সাথে এই কেন শব্দটির রয়েছে গভীর যোগাযোগ। কারণ, কেন শব্দটি দিয়ে অনেক অজানা বিষয় সম্পর্কে অবগত হওয়া যায়।আর এটি নিঃসন্দেহে এটি আপনার জ্ঞানী মানসিকতার পরিচয়।

৬. কোন কাজকে ছোট করে দেখা উচিত নয়, সব কাজকেই সম্মান করা উচিত

যতো নিম্ন কাজই হোক না কেন সফল ব্যক্তিরা কখনোই কোন কাজকে ছোট মনে করেন না। আর সবচেয়ে বড় কথা যে কাজ করে একটি মানুষ তার জীবিকা নির্বাহ করছে এবং আনন্দ পাচ্ছে সে কাজকে কখনোই নিচু ভাবা উচিত নয়।

৫. কাউকে পরিবর্তন বা স্বকীয়তা নষ্ট করার চেষ্টা করবেন না

প্রতিটি মানুষের ব্যক্তিগত অবস্থান ও স্বাধীনভাবে তার সিদ্ধান্তগুলো নেওয়ার অধিকার রয়েছে। সে বিষয়গুলোকে সম্মান করা উচিত। জোর করে কখনোই কাউকে পরিবর্তন বা স্বকীয়তা নষ্ট করার চেষ্টা করবেন না।

৪. ভালো কিছুকে বিশ্বাস করুন

একেবারে নির্ভুল ও নিখুঁত কেউ হতে পারে না। ভালো এবং পারফেক্ট শব্দদ্বয়ের মাধ্যে রয়েছে বিস্তর ফারাক। এমন কিছু মানুষের সান্নিধ্যে জীবন কাটান, যাদের কাছ থেকে ভালো কিছু শেখার আছে।

৩. যা পাওয়া হয়নি তা নিয়ে কখনোই আফসোস করবেন না

জীবনে কি পেয়েছেন বা কি পাননি সে বিষয় নিয়ে ভেবে অযথা সময় নষ্ট করা উচিত নয়। তার চেয়ে সামনের সময়গুলো ভালোভাবে কাজে লাগিয়ে নিজের অবস্থার পরিবর্তনের চেষ্টা করুন।

২. সকলকে খুশি করা সম্ভব নয় – এটি মানতে হবে

একটা মানুষের পক্ষে কখনোই সবাইকে খুশি রাখা সম্ভব নয়, সম্ভব সেই ধারণা করাটাও ভুল। সেক্ষেত্রে এমন কাজ করুন যেগুলো আপনাকে মানসিকভাবে প্রশান্তি দিবে।

১. যে বিষয়টি আপনার জন্য না তা করার চেষ্টা করবেন না

অপরের খুশির জন্য বা অপরের মন রক্ষার জন্য এমন কিছু করা উচিত নয় যেটি যার যোগ্য আপনি নন। তাই কোন কাজ করার আগে ভেবে দেখুন আপনি সেই কাজটির যোগ্য কিনা।

আপনার মূল্যবান মতামত কমেন্টে জানাতে ভুলবেন না। সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ...



জনপ্রিয়