বাচ্চার যেসব আচরণ আসলে মা বাবার ভুল! বাচ্চার যেসব আচরণ আসলে মা বাবার ভুল!

বাচ্চার যেসব আচরণ আসলে মা বাবার ভুল!

আপনি হয়তো অন্যকে সন্তুষ্ট করার চেষ্টা করে বলতে পারেন যে, আপনার সন্তান বিশ্বের সবচেয়ে ভদ্র একটা ছোট সোনামণি। কিন্তু আপনি যদি তাদের প্রতিপালনে ভুল কিছু করেন তাহলে তারা নির্দিষ্ট পরিস্থিতিতে বেশ সুস্পষ্ট হয়ে উঠবে।

আজকে আমরা পিতা-মাতার ভুলের কারণে বাচ্চারা যে আচরণগুল করে থাকে তা আপনাদের সামনে উপস্থাপন করছি।

 

১. অন্যদের কাজে হস্তক্ষেপ করার অভ্যাস

শুধুমাত্র ‘ডিস্টার্ব করবে না’ বললেই কাজ হবে না।

বাড়িতে প্রতিদিন কথা বলার সময় এবং পরিবারের সবাই একসাথে খাওয়ার সময় বা সহকর্মীর সাথে ফোনে কথা বলার সময় তাদের সন্ধিক্ষণের জন্য অপেক্ষা করতে শিক্ষা দিন। উদাহরণস্বরূপ- আপনি কাউকে কল করার আগে, আপনার সন্তানকে বলুনঃ

‘আমি এখন ফোনে কথা বলতে যাচ্ছি এবং আমাকে এসময় বিরক্ত করো না। ঘড়ির কাঁটা যখন এই জায়গায় আসবে তখন আমি ফোন রাখবো’।

 

২. দোকানের জিনিস ধরা এবং সেগুলো কেনার জন্য জোর করা

আপনার সন্তানদেরকে তাদের ইচ্ছাটা বজায় রাখতে শিক্ষা দেওয়াটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ, কারণ আপনি তাদের সব চাওয়া জিনিসগুলো সবসময় কিনতে পারবেন না এবং আপনার সত্যিই এটার প্রয়োজন নেই। তারা মনে করে যে, আপনি কোন সিস্টেম ছাড়াই দোকানে জিনিসগুলো বাছাই করছেন; তারা বুঝতে পারে না যে আপনি সেগুলো কিনার জন্য বাছাই করছেন। তাই শপিংয়ে যাওয়ার আগে প্রস্তুতি গ্রহণ করুন।

আপনার সন্তানকে সাথে নিয়ে একটি লিস্ট তৈরি করুন (আপনার সন্তান যদি পড়তে না পারে তাহলে ছবি আঁকুন)। পরে লিস্টটা তার হাতে দিন এবং আপনি লিস্ট থেকে কি কি কিনছেন তা তাদেরকে দেখতে বলুন।

 

৩. শিষ্টাচার না জানা বা ভদ্র ভাষায় কথা না বলা

আপনার সন্তানকে প্রথমে নম্র, ভদ্র হতে শিক্ষা দিন। আপনার সন্তানকে নম্র শব্দগুলো শেখানঃ তারা ‘দয়া করে’ বা ‘প্লিজ’ না বলা পর্যন্ত তাদের কাজ করে দিবেন না। তাদেরকে ‘প্লিজ’, ‘হ্যালো’ ‘বাই’ এবং ‘থ্যাংকস’ বা ধন্যবাদ বলতে শিখান।

 

৪. কোথায় থামা লাগে তা না জানা

এমন কিছু কথা রয়েছে যা আপনার অন্যদের সাথে শেয়ার করা উচিৎ নয়, কারণ বাচ্চারা সেগুলো বুঝতে পারে না। তারা লজ্জা বা বিব্রতবোধ করে না এবং ভুল সময়ে ভুল কথার প্রতিক্রিয়া তারা জানাতে পারে না। অন্যদিকে, অভিভাবকেরা সেজন্য বিব্রতবোধ করতে পারে।

সন্তানদেরকে ‘পারিবারিক গোপন বিষয়’ এর ধারনাটি পরিচয় করানোর চেষ্টা করুন, যার অর্থ সব বিষয়ে অন্য লোকেদের বলতে নেই।  

 

৫. তারা আপনার পাশ ছাড়তে ভয় পায়

বাবা-মায়েরা যখন তাদের এবং স্বাভাবিক ক্রিয়াকলাপের মধ্যে বাধা রাখে তখন সন্তানেরা তাদের পিতা-মাতার পাশ ছাড়তে ভয় পায়। তাদের মাথায় সবসময় একটা বিষয় কাজ করেঃ আপনি যদি স্লাইড করি, তাহলে আমি পড়ে যাবো নাহয় আপনার জামা ছিড়ে যাবে।

এই কারণে অভিভাবকদের উচিৎ ভালো মেজাজ নিয়ে বাচ্চাদেরকে খেলতে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া।

 

৬. তারা অন্যদের যন্ত্রণা করে

একটি শিশু যদি সহজেই একজন অপরিচিত ব্যক্তির সাথে কথোপকথন শুরু করতে পারে, তাহলে এটি পারিবারিক বিশ্বাসের একটি লক্ষণ। তবে, এটাও বুঝাতে পারে যে বাচ্চারা প্রাপ্তবয়স্কদের অন্যান্য আগ্রহ সম্পর্কে জানে না।

 

আমাদের আজকের আয়োজন আপনাদের কেমন লেগেছে? আপনি কিভাবে আপনার সন্তানদেরকে প্রতিপালিত করছেন? আপনার মূল্যবান মতামত আমাদের শেয়ার করে জানান।   



জনপ্রিয়