যে ৭টি অবস্থায় আমাদের সুখী পরিবারে পেতে অস্বাভাবিক হওয়া উচিৎ      যে ৭টি অবস্থায় আমাদের সুখী পরিবারে পেতে অস্বাভাবিক হওয়া উচিৎ

যে ৭টি অবস্থায় আমাদের সুখী পরিবারে পেতে অস্বাভাবিক হওয়া উচিৎ

বিজ্ঞানীদের মতে, যে সম্পর্কে যত্ন, সমঝোতা এবং ভালবাসা নেই সেগুলো সুস্থ পরিবার। এছাড়াও, এই বৈশিষ্ট্যগুলো সুখের চাবিকাঠি নয়। কিছু মানুষ তাদের সমস্ত ভালবাসা এবং যত্ন দিয়ে তার প্রিয়জনের মন রক্ষা করতে চায় কিন্তু বিনিময়ে সে খারাপ আচরণ পেয়ে থাকে। এই ক্ষেত্রে, তাদেরকে দয়ালু হওয়া বন্ধ করতে হবে এবং তাদের ‘আকস্মিক গতি’ প্রক্রিয়ার দিকে ফিরে তাকাতে হবে।

আজকে আমরা একটি সুস্থ সম্পর্কের নিশ্চিত লক্ষণগুলো সংগ্রহ করে পর্যাপ্ত পদক্ষেপ এবং অত্যধিক আত্মত্যাগের মধ্যে পার্থক্য নির্ধারণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।    

 

১. যত্নশীল বনাম অধীনতা

source: unknown

source: unknown

সত্যিকারের সহযোগিতা এবং দায়িত্বের ন্যায্য বণ্টন পরিবারের ভিতরের একটি সঠিক আচরণ। প্রত্যেকরই পরিবারের দায়িত্বগুলোর একটি নির্দিষ্ট অংশের প্রতি যত্নশীল হতে হবে এবং তাদের জন্য যথাযথ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে হবে।

মনস্তাত্ত্বিকদের মতে, আত্ম-উৎসর্গ আপনার পরিবারে উপকারের চেয়ে বেশী ক্ষতি করে। আপনি আপনার অতিরিক্ত কাজের জন্য আরো বেশী কৃতজ্ঞতা আশা করেন এবং যখন আপনি এটি পান না তখন আপনি বিরক্ত হয়ে যান।   

 

২. সমর্থন করা বনাম আপনার সঙ্গীর ভুলের জন্য দায়ী হওয়া

source: unknown

source: unknown

উপরের ছবিতে যা দেখছেন, এতে বেচারা পুরুষটি নির্দোষ। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, আপনি আপনার সঙ্গীকে ভালবাসেন এবং তার প্রতি কতটা যত্নশীল তা ব্যাখ্যা করে এই ধরনের আচরণ বন্ধ করে দেওয়া যেতে পারে, কিন্তু তাদের নিজের কাজের জন্য দায়ী থাকা উচিৎ।

আপনি যদি আপনার সঙ্গীর সব কাজের জন্য নিজেকে দায়ী মনে করেন এবং আপনার মানসিক ও শারীরিক স্বাস্থ্য ক্ষতি হয় তাহলে বুঝবেন আপনি একটি কোডপেন্ডেন্ট সম্পর্কে জড়িত।

 

৩. মতবাদ বনাম পরিস্থিতি (আমি সারা বিশ্বকে সাহায্য করার সময় আমার পরিবার ধৈর্য ধরে অপেক্ষা করবে)

source: unknown

source: unknown

বিজ্ঞানীদের মতে, একজন পরোপকারীর মোটিভেশন সবসময় এতো সহজ নয়। অনেকেই স্বীকৃতির জন্য ভালো কাজ করে এবং ডোপামাইনের একটি অংশ, সুখী হরমোনের জন্য ভাল কাজ করে।

আপনাকে আপনার পরিবারের বাজেট সম্পর্কে সচেতন থাকতে হবে, কারণ আপনার সঙ্গী মাঝেমধ্যে উদার হতে পারে। আপনার সঙ্গী যদি আপানদের শেষ টাকাটুকুও তার বন্ধু, সহকর্মী বা দাতব্য প্রতিষ্ঠানকে দিয়ে দিতে প্রস্তুত থাকে তাহলে এটি ভালো নয়।

 

৪. নিরপেক্ষ প্রেম বনাম দারিদ্রের সাথে সংগ্রাম

source: unknown

source: unknown

আপনার স্বপ্ন সত্যি হওয়ার জন্য এটি কখনই পারফেক্ট মুহূর্ত হতে পারে না - তাই আপনার আবেগ অনুসরণ করা সবসময় ভুল নয়। তবে, এই মানে এই নয় যে এটির ঝুঁকিগুলো আপনার মূল্যায়ন করা উচিৎ নয়!

 

৫. আত্মীয়দের সম্মান করা বনাম অন্য কারো মত অনুসরণ করে চলা

source: unknown

source: unknown

মাঝেমধ্যে আপনার আত্মীয়রা আপনার পরিবারের ব্যাপারে খুব অযৌক্তিকভাবে নাক গলাতে পারে। এতে করে আপনি নিজের পরিকল্পনা বা অভ্যাস জোর করে করতে পারেন না, কারণ আপনার আত্মীয়রা ইতোমধ্যে আপনার জন্য সবকিছু ঠিক করে রেখেছে।

এই রকম পরিস্থিতিতে আপনার কি করা উচিৎ? আপনি যদি দৃঢ় সীমা নির্ধারণ করেন তাহলে আপনার আত্মীয়রা আপনার পরিবারের ব্যাপারে নাক গলাতে আসতে পারবে না। এবং এজন্য আপনাকে খুব দৃঢ়ভাবে না বলার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।

কিন্তু আপনাকে অবশ্যই বুঝতে হবে যে আপনার ব্যক্তিগত সীমানা রক্ষা করার পাশাপাশি আপনাকে অন্যদের সীমানাগুলিও সম্মান করতে হবে। যেমন- আপনি যদি আপনার চাচীর বাগানে তাকে সাহায্য না করেন তাহলে আপনি তার বাগানের সবজি চাইতে পারবেন না।

 

৬. শিক্ষার জন্য লড়াই বনাম ইগো

source: unknown

source: unknown

দক্ষতা বিকাশ, চাকরির পরিবর্তন এবং বিদেশী ভাষা প্রশিক্ষণ- এই সব বিষয়গুলো একজন ব্যক্তি এবং তাদের পরিবারের জন্য কম গুরুত্বপূর্ণ নয়, কারণ বড় কোম্পানিগুলোতে নতুন মার্কেট বিকাশ হয় এবং সাধারণত এই ধরনের প্রকল্পের জন্য বিনিয়োগ প্রয়োজন।

যাইহোক, ভবিষ্যত লাভের জন্য অনেক পরিবারই বিনিয়োগ করতে প্রস্তুত থাকে না। এমনকি যে ব্যক্তি এইসব বিষয়ে শিখতে চাচ্ছে সে নিজেকে দোষী মনে করে। একটা কথা প্রত্যেকের মনে রাখতে হবে যে, শিক্ষা ক্ষেত্রে বিনিয়োগ করলে সাফল্য অর্জিত হবেই।

 

৭. সঙ্গীর অধিকারে সম্মান দেখানো বনাম মাত্রাধিক প্রশ্রয়

source: unknown

source: unknown

কিছু পারিবারিক জীবন ঘটনা এড়িয়ে যাওয়া যায় না। যখন একজন সঙ্গী পরিবারের সদস্যদের যত্ন নেওয়ার জন্য আত্মসমর্পণ করে তখন অন্যদেরকে আরো দ্বিগুণ বোঝা নিতে হয়।

আপনার সঙ্গীর স্বাধীনতা, বিশ্রাম বা ইচ্ছার অধিকার আপনার খরচে বাস্তবায়ন করতে দেওয়া উচিৎ নয়। আপনি যদি আপনার সঙ্গীকে তার দায়িত্ব সম্পর্কে মনে করিয়ে দেন তবে আপনি কোন অপরাধ করছেন না।  



জনপ্রিয়