এক বছরে ১০০ পাউন্ড ওজন কমানো এক মায়ের গল্প   এক বছরে ১০০ পাউন্ড ওজন কমানো এক মায়ের গল্প

এক বছরে ১০০ পাউন্ড ওজন কমানো এক মায়ের গল্প

বিভিন্ন জন বিভিন্ন কারণে শরীরের ওজন কমাতে চান। তাদের মধ্যে অনেকেই স্বাস্থ্য ভাল রাখার জন্য করেন, আবার অনেকে তাদের সম্পর্ক আরো ভাল রাখার জন্য ওজন কমিয়ে থাকেন। কিন্তু আজকে আমরা এমন এক নারীর ওজন কমানোর ব্যাপারে বলতে চাচ্ছি, যিনি তার মেয়ের মধ্যে একটি ক্ষমতার উৎস খুঁজে পেয়েছেন। তিনি বলেন, ‘আমি আমার বাড়ন্ত শিশুর জন্য ভাল অবস্থায় থাকতে চেয়েছিলাম। আমার মনে হয়েছে যে, আমাকে নিজের নিয়ন্ত্রণে থাকতে হবে এবং আমার সন্তানের জন্য এটি করতে হবে’।

আজকে আমরা এক মোটা নারীর ওজন কমানোর এই চমৎকার রূপান্তরের গল্প আপনাদের সাথে শেয়ার করছি।

 

নিজের গল্পের জন লজ্জিত হবেন না, কারণ এটি অন্যদেরকে অনুপ্রাণিত করতে পারে।

ceceven

ceceven

২০১২ সালে ক্রিস্টিন কার্লোসের জন তার কয়েকটি ছবি একটি বড় জাগরণের ডাক নিয়ে এসেছিল। সেই মুহূর্তে তার ওজন প্রায় ২২৫ পাউন্ড ছিল। সেই ওজন থেকেই তিনি তারা ভাল লাইফস্টাইলের যাত্রা শুরু করেছিল।

 

পিছনের গল্প

ceceven

ceceven

তার ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে, ক্রিস্টিন প্রকাশ করেন যে কিশোর বয়স থেকেই তার ওজন বৃদ্ধি পেয়েছিল। তিনি যে দেশে জন্ম নিয়েছেন, সেখান থেকে দূরে সরে যাওয়ার চিন্তা এসেছিল এবং তিনি ব্যাখ্যা করে বলেন যে, ‘আমি খাবারে আয়েশ খুঁজে পেয়েছিলাম, অলস হয়ে যাচ্ছিলাম এবং সত্যিই লাজুক হয়ে যাচ্ছিলাম’। তিনি বেশ কয়েকবার ওজন কমানোর চেষ্টা করেছিলেন, কিন্তু সেই প্রচেষ্টাগুলো কাজে লাগে নি বলে জানান।

২০০৭ সালে যখন তিনি একটি সন্তান জন্মদান করেন, তখন তিনি লক্ষ্য করেন যে তার ওজন আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। তিনি বলেন যে, ‘আমি এটা ২০১২ সালে উপলব্ধি করেছি যে, আমি আমার জীবনটা শুধু স্বপ্ন দেখে এবং অন্যদের পরিপূর্ণ জীবন দেখেই কাটিয়ে দিতে পারি না। আমি আমার সন্তানের জন্য প্রাণবন্ত অনুভব করতে চেয়েছিলাম এবং আমি তার জন্য একটা ভাল উদাহরণ স্থাপন করতে চেয়েছিলাম’।

 

প্রথম ধাপ

ceceven

ceceven

প্রথম দিকে, তিনি কিছু স্বাস্থ্য বিষয়ক ম্যাগাজিন পড়েছিলেন এবং দরকারী তথ্য খুঁজে বের করার চেষ্টা করেছিলেন যেগুলো তার লক্ষ্য অর্জনে সহায়তা করতে পারে। তারপর তিনি সেই অনুসারে খাদ্যাভ্যাস শুরু করেন। তার দৈনন্দিন ম্যেনু ছিলঃ-

সকালের নাস্তাঃ ওটমিল এবং ডিম

দুপুরের খাবারঃ বাড়িতে তৈরি খাবারে সাথে সালাদ

রাতের খাবারঃ মাছ এবং সবজি

সর্বোপরি, তিনি তার কর্মজীবনের রুটিন পরিবর্তন করেছিলেনঃ তিনি ট্রেডমিল ব্যবহার করে সপ্তাহে ৬ দিন ৪৫ মিনিটের কার্ডিও দিয়ে জিম শুরু করেছিলেন।

 

‘আমি এখন আসলেই অনেক খুশি’  

ceceven

ceceven

যখন তিনি প্রথম তার ফলাফল দেখতে শুরু করেন, পরে তিনি খুশি হয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যান এবং এমনকি তিনি একটি বিকিনি প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন। তিনি লিখেছেন, ‘আমি ওজন কমিয়েছি, পরে নিজে আরো অগ্রসর হওয়ার জন্য প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যা আমার ডায়েটকে আরো কঠিন করে তোলে এবং কঠিন পরিশ্রম করতে হয়েছে’।

 

প্রতিটি চ্যালেঞ্জের সাথে আমরা মানসিকভাবে বেড়ে উঠি

ceceven

ceceven

বর্তমানে ক্রিস্টিনকে দেখতে যেমন হয়েছে। তার ওজন ১৩৫ থেকে ১২৫ পাউন্ডের মধ্যে কমে গেছে। তিনি তার অতীত, তার কষ্টকর যাত্রা এবং তার চিন্তাভাবনাগুলো সবার সাথে শেয়ার করে অন্যদেরকে অনুপ্রাণিত করছেন। ‘প্রেরণা’ আপনি কেমন অনুভব করেন তা নয় বরং এটি একটি পছন্দ। আমরা প্রতিদিন কি করবো তা আমরা বাছাই করি এবং কেবলমাত্র একজন ব্যক্তিই পারে আমাদের নিজেদের লক্ষ্য অর্জন করতে বা লক্ষ্য অর্জনে বাধা দিতে, আর সেই একমাত্র ব্যক্তি হল আমি নিজে।

 

মানুষদেরকে নিজেদের ভাল পরিবর্তন করার জন্য কী করতে হবে বলে আপনি মনে করেন? আপনার মূল্যবান মতামত কমেন্টে শেয়ার করে জানান।   

 

ব্রাইট সাইড থেকে অনুদিত। 



জনপ্রিয়