বলিভিয়ান এই স্বশিক্ষিত নারী পরিত্যক্ত প্লাস্টিকের বোতল দিয়ে গৃহহীনদের জন্য গৃহ নির্মাণ করেন...      বলিভিয়ান এই স্বশিক্ষিত নারী পরিত্যক্ত প্লাস্টিকের বোতল দিয়ে গৃহহীনদের জন্য গৃহ নির্মাণ করেন...

পরিত্যক্ত প্লাস্টিকের বোতল দিয়ে গৃহহীনদের জন্য গৃহ নির্মাণের এই আইডিয়া অসাধারণ!

মানবতা আজ অনেক কঠিন সমস্যার মুখোমুখি: যুদ্ধ, দারিদ্রতা, ক্ষুধা এবং দূষণ হচ্ছে সমস্যা গুলোর মধ্যে সামান্য কিছু! মনে হতে পারে এই সকল সমস্যা কখনোই সমাধান করা সম্ভব নয়, কিন্তু আমাদের কোথাও না কোথাও থেকে শুরু করতে হবে। আপনার চারপাশে তাকিয়ে দেখুন এবং আপনি দেখবেন এমন কিছু ব্যক্তি যারা এসকল সমস্যার বিরুদ্ধে সংগ্রাম করছেন, যেভাবেই তারা করুক না কেন! ইনগ্রিড ভাকা ডিয়েজ যিনি পেশায় একজন উকিল এবং বাস করছেন বলিভিয়াতে। এই নারী একজন স্বশিক্ষিত স্থাপত্যবিদ যিনি শত শত পরিবারকে তাদের স্বপ্নের বাড়ি পেতে সাহায্য করেছেন, এবং তিনি হচ্ছেন সেই সকল সংগ্রামী ও ত্যাগী মানুষদের মধ্যে একজন। বন্ধুরা, আমরা আজ এমন একজন সংগ্রামী নারীর কথা বলব যিনি পেশায় উকিল হলেও শতশত পরিবারকে নিজের স্থাপত্য কৌশল ব্যবহার করে বাড়ি বানিয়ে দিয়েছেন।

১. তারি পথ চলা শুরু হয়েছিল ঘরের পেছনে থাকা একগাদা খালি প্লাস্টিকের বোতল দিয়ে:

© Ingrid Vaca Diez / Facebook

© Ingrid Vaca Diez / Facebook

বন্ধুরা, ইতিমধ্যে আমরা বলেছি যে, ইনগ্রিড ভাকা ডিয়েজ পেশায় একজন উকিল যিনি একজন বলিভিয়ার অধিবাসী। তিনি কখনোই ভাবেননি যে, তিনি একজন স্থাপত্যবিদ হবেন, কিন্তু তিনি সব সময়ই তার ওকালতি পেশার পাশাপাশি আমাদের পৃথিবীর পরিবেশগত সংকট নিয়ে চিন্তা করতেন। একদিন তার বাড়ির পেছনে পড়ে থাকা পরিত্যক্ত প্লাস্টিকের অসংখ্য বোতল দেখে তার স্বামী বললেন, "এত বেশি প্লাস্টিকের বোতল পড়ে রয়েছে যে জাতি একটা বাড়ি বানানো সম্ভব!" এবার এখান থেকেই ইনগ্রিডের মাথায় এই আইডিয়াটি আসে, "কেন আমরা এই পরিত্যক্ত প্লাস্টিকের বোতল গুলোকে পরিবেশে ফেলে ভারসাম্য নষ্ট না করে, গৃহহীন মানুষদের জন্য গৃহ নির্মাণ করছি না?" 

২. তাঁর এই আইডিয়াটি নিম্নআয়ের পরিবারের জন্য একটি মাইলফলক হয়ে গেল আর সেটা হচ্ছে সস্তা বোতলে নির্মিত বাড়ি গৃহহীনদের মুখে হাসি ফোটাতে পারে! 

© Ingrid Vaca Diez / Facebook

© Ingrid Vaca Diez / Facebook

ইউনিসেফের ভাষ্যমতে,দেশটির অর্ধেকের বেশি লোক দারিদ্রতা বসবাস করে যাদের অনেকেরই মৌলিক অধিকারগুলো মেটানোর ক্ষমতা নেই! বিশেষ করে বাসস্থান সুবিধা ছিল অন্যতম! ইনগ্রিড একটি স্থানীয় বিদ্যালয়ে গিয়ে ছোট্ট শিশুদের জিজ্ঞাসা করলেন যে, তারা ক্রিসমাসে কি পেলে সবচেয়ে বেশি খুশি হবে? এবং এজন্য বাচ্চাদের তিনি তাঁর কাছে একটি করে চিঠি লিখতে বলেন।তিনি আবাসস্থল না থাকার সমস্যাটির ভয়াবহতা হাড়ে হাড়ে টের পেয়েছিলেন যখন একটি শিশু তার ক্রিসমাস উপহার হিসেবে পরিবারের জন্য বেশি কক্ষ দাবি করেছিল! এই সমস্যাকে মাথা রেখে তিনি অনুপ্রাণিত হয়ে প্লাস্টিকের বোতল দিয়ে বাড়ি নির্মাণের আইডিয়াটি কাজে পরিণত করতে লাগলেন।

৩. বোতলের বাড়ি তৈরীর নির্মাণ প্রযুক্তিটি খুবই সহজ তবে একটু সময় সাপেক্ষ:

© Ingrid Vaca Diez / Facebook

© Ingrid Vaca Diez / Facebook

বাড়ি তৈরি করার জন্য সবচেয়ে প্রধান যে জিনিসটি দরকার তা হচ্ছে নির্মাণ সামগ্রী। ইট সস্তা নয় এবং দুর্ভাগ্যজনকভাবে অনেক মানুষই সেগুলো কিনতে পারে না। অন্যদিকে যদি আপনি পরিত্যক্ত প্লাস্টিকের বোতল নির্মাণ সামগ্রী হিসেবে ব্যবহার করেন সেক্ষেত্রে আপনার একটি আরামদায়ক বাড়ির স্বপ্ন সত্যি হবে, বিভিন্ন শহরে ধরতে গেলে সব জায়গায় এ ধরনের প্লাস্টিকের বোতল প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়। আপনাকে যেটা করতে হবে সেটা হচ্ছে বেশি পরিমানে খালি প্লাস্টিক ও কাচের বোতল সংগ্রহ করতে হবে। এরপর বোতলগুলোর মধ্যে ধুলাবালু ঢুকিয়ে ভর্তি করতে হবে।যেমনটা আপনি ইট দিয়ে বাড়ি বানানোর সময় করে থাকেন! 

৪. স্থাপত্য বিদ্যায় কোন ধরনের পূর্ব অভিজ্ঞতা ছাড়াই তিনি কয়েক মিলিয়ন পরিত্যক্ত প্লাস্টিকের বোতলকে রিসাইকেল করে ৩০০ এরও বেশি ঘর নির্মাণ করেছেন: 

© Ingrid Vaca Diez / Facebook

© Ingrid Vaca Diez / Facebook

আপনি হয়তো জানতে চাচ্ছেন যে এ ধরনের বোতল দিয়ে বাড়ি বানানোর জন্য আসলে কতটি বা কতগুলো বোতল দরকার, তাই না? ১৮৩০ স্কয়ার ফুটের একটি বাড়ি নির্মাণের জন্য, ৩৬,০০০ পরিত্যক্ত খালি বোতল দরকার। যেহেতু তিনি গৃহহীনদের ৩০০ এরও বেশি ঘর নির্মাণ করে দিয়েছেন, সেতু তিনি হাজার হাজার মানুষকে খুশি করেছেন পাশাপাশি প্লাস্টিকের লক্ষ লক্ষ বোতল রিসাইকেল করতেও সাহায্য করেছেন। এটা অবশ্যই সত্য যে তার একার পক্ষে এতগুলো বাড়ি বানানো কখনোই সম্ভব না, আমি যেটা করেছেন সেটা হচ্ছে, বিভিন্ন জায়গায় প্রজেক্ট এর ভিত্তিতে মানুষকে কিভাবে প্লাস্টিকের বোতল ব্যবহার করে বাড়ি নির্মাণ করতে হয়, সেটা শিখিয়ে দিয়েছেন এবং নিয়মিত কার্যক্রম গুলো পর্যবেক্ষণ করেছেন।

© Ingrid Vaca Diez / Facebook

© Ingrid Vaca Diez / Facebook

যে কথাটা ইনগ্রিডের স্বামী নিছক ঠাট্টার বসে বলেছিলেন, সেটা আজ তার জীবনের প্রজেক্টে পরিণত হয়েছে। আমরা এই বাস্তব গল্পটি থেকে এটাই বুঝতে পারছি, আসলে অসম্ভব বলে কিছুই নেই। আমরা যে সকল সমস্যা মোকাবেলা করতে পারি না সেগুলোর হয়তো অনেক সহজ এবং সস্তা সমাধান রয়েছে। একটু ভেবে দেখুন একজন উকিল যার কোন ধরনের স্থাপত্য বিদ্যার অভিজ্ঞতাই ছিলো না, ছিল না কোন তহবিল, কিন্তু তিনি জানতেন মানুষের তার সাহায্য দরকার! শীঘ্রই তাঁর সাহস এবং একাগ্রতা দিয়ে অন্যদের উৎসাহিত করে সমস্যা থেকে বের করে এনেছেন পাশাপাশি তাদের জীবন পরিবর্তন করেছেন।

© Ingrid Vaca Diez / Facebook

© Ingrid Vaca Diez / Facebook

বন্ধুরা, ইনগ্রিডের কর্মকান্ড আপনাদের কেমন লাগলো? আপনি, আমি কিংবা আমরা চাইলে এমন সহজ সমাধান দিয়ে অসহায় মানুষদের পাশে দাড়াতে পাড়ি। শুধু তাই নয়, সমাজের যে কোন সমস্যা চোখে পড়লে সেটা এড়িয়ে না গিয়ে আমরা আমাদের চিন্তা ও চেতনা কাজে লাগাতে পারলে জিতে যাবে মানবতা আর হেরে যাবে সমস্যা। ভালো লাগলে আর্টিকেলটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে পারেন। সাথে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ... 



জনপ্রিয়