শিশুদের পশুর মত এভাবে বেঁধে রেখে অত্যাচার করতে শুনেছেন কখনো?    শিশুদের পশুর মত এভাবে বেঁধে রেখে অত্যাচার করতে শুনেছেন কখনো?

শিশুদের পশুর মত এভাবে বেঁধে রেখে অত্যাচার করতে শুনেছেন কখনো?

শিশুরা ফুলের মতো নিষ্পাপ।পৃথিবীতে এমন খুব কম লোকই পাওয়া যাবে যারা শিশুদের অপছন্দ করে।বর্তমানের বাবা মায়েরা শিশুদের লালন পালনের বেলায় যথেষ্ট যত্নবান এবং সচেতন। তারা সবসময়ই খেয়াল রাখেন শিশুরা কোন কারনে মানসিক আঘাত যেন না পায়।মাঝেমাঝে শিশুরা মারাত্মক কোনো অপরাধ করে আমাদের উচিত তাদের ভালো মন্দের পার্থক্য বিচার করতে শেখানো।

তাকে মানসিক কিংবা শারীরিক কোন ধরনের অত্যাচার বা নির্যাতন তার সুন্দর ভবিষ্যৎ গঠনের পথে অনেক বড় বাধা তৈরি করতে পারে। কিন্তু মাত্র ১০০ বছর আগেওশিশুদের সাথে পৃথিবী জুড়ে এমন কিছুপশুর মতো ঘটনা তাদের বাবা-মা ঘটিয়েছেনযেগুলো আপনার হৃদয় কে একবারের জন্য হলেও নাড়া দেবে।

০৮. বানরের সাথে বেঁধে টাকা উপার্জনের জন্য নাচানো 

listverse

listverse

সাইবেরিয়ার যাযাবর বয়স্ক দম্পতি পিটার এবং মেরি স্ট্যানকোভিচ ১৯৩৮ সালের দিকে পুরো ইংল্যান্ড চষে বেড়াচ্ছিলেন। এ সময় তাদের ছোট্ট দুই বছরের নাতনি এবং একটি প্রশিক্ষিত বানর কে তারা সঙ্গী করেছিলেন।বানর তো খাচায় থাকবে এটা স্বাভাবিক। কিন্তু যদি সেই ছোট্ট দুই বছরের নাতনিকে একটা শিকল দিয়ে বানরের সাথেই বেঁধে রাখা হয়?

শুধু তাই নয় এই পুরো ভ্রমণ জুড়ে তারা একটি ঘোড়ার গাড়িতে করে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় গিয়েছিলেন। জীবিকা নির্বাহের আশায় সে সময় সে গাড়ির পেছনে বানর এবং তাদের নিজের আপন নাতনিকে শিকল দিয়ে বেঁধে বিভিন্ন জায়গায় নিয়ে যায়। এবং বিভিন্ন মানুষকে তাদের দুজনকে দিয়ে নাচিয়ে তারা পয়সা উপার্জন করেছিল।পয়সা উপার্জনের অনেক পথই থাকে তাই বলে নিজের নাতনিকে এভাবে বানরের সাথে বেঁধে মানুষের মনোরঞ্জন করে পয়সা উপার্জনের কি দরকার ছিল?

০৭. বেশি পড়াশোনা তাকে জড়বুদ্ধিসম্পন্ন বানিয়েছিল?

listverse

listverse

১৯০৫ সালের দিকে ইংল্যান্ডে একটা জনপ্রিয় অন্ধ বিশ্বাস ছিল যে মেয়েরা যারা অনেক বেশি পড়াশোনা করে তাদের মস্তিষ্ক মারাত্মক রকম দুর্বল হয়ে পড়ে এবং তাদের বিভিন্ন কঠিন মানসিক সমস্যায় ভোগার প্রবণতা অনেক বেশি।এ অন্ধ বিশ্বাসের ভিত্তিতে বার্থা নামের একটা শিশুকে তার বাবা খেতের বেড়ার সাথে বেঁধে রেখেছিলেন যখন সে ক্ষেতে কাজ করছিলেন।কারণ তিনি তার মেয়েকে জড়বুদ্ধিসম্পন্ন হওয়া থেকে বাঁচাতে এই কাজটি করেছিলেন।এই কাজটি করায় সেই মেয়েটির মানসিক অবস্থা আরো খারাপ হয়ে গেছিল।  

০৬. অবাধ্য শিশু

listverse

listverse

১৯৩৬ সালে অহিও এর ফিন্ডলেতে একটি ১০ বছরের বাচ্চাকে খুঁজে পাওয়া যায়। যার গলায় একটি ১৫ ফুট লম্বা শিকল তালা দিয়ে বাঁধা ছিল।ছেলেটা সৎ বাবা এমন করেছিল এবং তার ভাষ্যমতে ছেলেটা কারো কোন কথা শুনতো না এবং সে নাকি বাসা থেকে বাইরে চলে যেত এবং বলা সত্ত্বেও সময় মত ঘরে ফিরে আসতো না।ঘটনাটা অনেকটা মুলা চুরি করলে ফাঁসির মত অবস্থা দাড়াইলো।শুধু তাই নয় তার সৎবাবা তাকে চুলার সাথে ও শিকল দিয়ে আটকে রাখত। তাকে তালা ও শিকল সহ স্কুলে যেতে বাধ্য করা হয়েছিল।ঘটনা জানাজানি হলে সেই লোকটা কে আইনের আওতায় আনা হয় এবং তার তিন মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছিল। 

০৫. শিশু যাকে অপয়া বলে বিবেচনা করা হয়েছিল

listverse

listverse

ঘটনাটি ঘটে ১৯৩০ সালে পশ্চিমবঙ্গে।আরে নির্মম ঘটনার শিকার হয় মাত্র সাত বছর বয়সী আমিনার সাথে।পশ্চিমবঙ্গের একটি বাগানে তাকে নগ্ন অবস্থায় এলোমেলো চুলে শিকল দিয়ে বাঁধা অবস্থায় পাওয়া গিয়েছিল এবং শিকলটির ওজন প্রায় আট কেজির মতো ছিল।এই ঘটনার কারণ তার বাবার কাছে জানতে চাইলে তার বাবা বলল যে তিন বছর আগে তার মা মারা যায়।

এবং এই ঘটনা এই অপয়া মেয়ের জন্যই হয়েছিল।অথচ এই মৃত্যুর সাথে নিষ্পাপ মেয়েটির কোন হাত নেই।সে লোকটা সুন্দর মতো আর একটা বিয়ে করে সংসার কাটাচ্ছিল।অন্যদিকে তারই ঔরসজাত সন্তানকে বাগানে নগ্ন অবস্থায় ভারী শিকল দিয়ে কুকুরের মতো বেঁধে রাখা হয়েছে এই জন্য যাতে সে ও মানসিকভাবে আস্তে আস্তে ধুকে ধুকে মরে যায়। 

০৪. গাছের সাথে পা বেঁধে রাখা

listverse

listverse

১৯৩৫ সালে লন্ডনের নিউ সাউথ ওয়েলসে একজন কনস্টেবল হেঁটে যাচ্ছিলেন।হঠাৎই তিনি একটা ভয়ংকর সত্যের মুখোমুখি হলেন।তিনি দেখলেন একটা ছোট্ট ৬ বছরের ছেলেকে গাছের সাথে শক্ত শিকল দিয়ে বেঁধে রাখা হয়েছে।শিকলটা এতই শক্ত করে বাঁধা ছিল সেই ছেলেটার পায়েপ্রচন্ড ব্যথা হচ্ছিল এবং চামড়া উঠে যাওয়ার উপক্রম হচ্ছিল।

কনস্টেবল আরো খেয়াল করলেন সে বাচ্চাটার গায়ে ধুলা-ময়লা, পিপড়ারা এবং মশা মাছি ঘুরে বেড়াচ্ছে।ছেলেটার মাথার ওপরে সামান্য পানি কায়দা করে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছিল যাতে সে পুরোপুরি জল শুন্য হয়ে না পড়ে।তাকে প্রচন্ড রোদে ৩ ঘন্টা বেঁধে রাখার পর সে কনস্টেবলের নজরে এসেছিল।তবে তাকে এই নির্মম ভাবে বেঁধে রাখার পেছনে কি কারন সেটা সঠিক ভাবে জানা যায়নি। 

০৩. অনিয়ন্ত্রিত বিদ্যালয়ের শিক্ষক 

listverse

listverse

আমেরিকার নিউ জার্সিতে একসময় আইন অনুযায়ী যদি কোন বালক খারাপ আচরণ করে এবং আইন ভঙ্গ করে তাহলে তাদেরকে একটি বিশেষ স্কুলে পাঠানোর নিয়ম ছিল।যেমন একটি বিশেষ স্কুল ছিল ফেয়ারভিউ ট্রেনিং স্কুল। মানুষের কাছে এই বিদ্যালয় এর বেশ কিছু বদনাম ছিল।যারা বিশ্বাস করতেন যে কিশোরদেরকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করা হতো।

এবং নির্যাতন করতেন যারা তাদের দায়িত্বে থাকতেন। ১৯১৩ সালে ছাত্রদের নির্মম নির্যাতনের জন্য এই স্কুলের শিক্ষক হেনরি ও.কাইট অভিযুক্ত হয়েছিলেন। তাঁর বিরুদ্ধে প্রমাণ পাওয়া যায় একটা ১০ বছর বয়সী বাচ্চার মাথায় বড় কুড়ালের পেছনের ভারী অংশ দিয়ে আঘাত করা এবং অন্য আরেকটা ১১ বছরের বাচ্চাকে এক সপ্তাহ ধরে বিছানার সাথে ভারী শিকল দিয়ে বেঁধে রাখা। 

০২. মেয়ের পাগলামি

listverse

listverse

কুইন্সল্যান্ডের এক পিতামাতার ভাষ্য অনুযায়ী তাঁদের ১৪ বছরের মেয়ে গারট্রুড তাঁর ৪ বছর বয়স থেকে মাথায় সমস্যা ছিল। সে ছোটবেলা থেকেই তাঁর মায়ের প্রতি খুব ই ক্ষিপ্ত হয়ে থাকত। সে কারো কথা শুনত না। এক কোথায় খুব ই বদমেজাজি স্বভাবের ছিল। ১৯৩৩ সালের দিকে সে বাড়ি থেকে পালিয়ে গিয়েছিল এবং তাকে খুঁজে আনা যথেষ্ট কষ্টকর ছিল। এজন্য তাঁরা দুজনে সিদ্ধান্ত নিলেন তাঁরা তাঁদের মেয়েকে বাইরে পালিয়ে যাওয়া এবং সমস্যা তৈরি করা থেকে আটকাবেন।

এই প্রতিকারস্বরূপ তাঁরা একটি কুকুরের শিকল তাঁর গলায় বাঁধলেন যার অন্য মাথা বাঁধা ছিল একটি চেয়ারের সাথে। যাতে সে যেখানে যাক না কেন চেয়ার সাথে করে নিয়ে যেতে হয়। বাথ্রুম কিংবা বেডরুম সবজায়গায় এভাবেই যেতে হত গারট্রুডের। ঘুমানোর সময় ও এভাবেই ঘুমাতে হত। তাঁর দরকার ছিল কাউন্সেলিং কিন্তু বাবা মা দিল শাস্তি।

০১. খুঁটির সাথে বাঁধা

listverse

listverse

১৯৫০ সালে ক্যালিফোর্নিয়ার একজন ৩২ বছর বয়সী মা তাঁর ছোট্ট ৭ বছর বয়েসের ছেলে সন্তানকে বাড়ির ভেতর খুঁটির সাথে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখার জন্য অভিযুক্ত হয়েছিলেন। এর কারণ ছিল ছেলেটি প্রায়শই বিভিন্ন জিনিসে আগুন ধরিয়ে দিত। 

আমাদের আয়োজন ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার দিয়ে সাথেই থাকুন।



জনপ্রিয়