এই নিরীহ সুদর্শন প্রাণীগুলো বিস্ময়করভাবে বিপজ্জনক!  এই নিরীহ সুদর্শন প্রাণীগুলো বিস্ময়করভাবে বিপজ্জনক!

এই নিরীহ সুদর্শন প্রাণীগুলো বিস্ময়করভাবে বিপজ্জনক!

আপনি হয়তো বিশ্বাস করবেন না, কিন্তু এই আদুরে প্রাণীগুলো অনেক ভয়ানক হতে পারে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে তো আপনি মৃত্যুর সম্মুখীন হতে পারেন! 

চলুন জেনে আসি সেই নিরীহ সুদর্শন প্রাণীগুলোর কথা যারা বিস্ময়করভাবে বিপজ্জনক হতে পারে!

 

১. পান্ডা ভালুক

©Karel Cerny/Shutterstock

©Karel Cerny/Shutterstock

এই তুলতুলে ভালুকগুলো সবচেয়ে আদুরে স্তন্যপায়ী প্রাণীগুলোর মধ্যে অন্যতম। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে তারা সারাদিন বাঁশ খেয়ে কাটায়। কিন্তু যদি তারা হুমকি বোধ করে তবে তারা অত্যন্ত বিপজ্জনক হতে পারে। তারা তাদের শারীরিক শক্তি, শক্তিশালী চোয়াল এবং দাঁত ব্যবহার করে অনেক ক্ষতি করতে পারে। আপনি এতোদিন হয়তো মনে করতেন এরা হিংস্রতা কি জানে না!

 

২. সজারু

©Ondrej Prosicky/Shutterstock

©Ondrej Prosicky/Shutterstock

আপনি হয়তো শুনে অবাক হবেন অনেক মানুষ সজারুকে পোষে। কিন্তু, তাদের কাঁটাগুলি মানুষের ত্বক বা অন্য কোনও সম্ভাব্য শিকারীর জন্য খুব ক্ষতিকর হতে পারে। যখন এটি নিরাপদ বোধ করে কাঁটা গুটিয়ে রাখে, এমনকি মানুষ তাদের কাঁটা উঠিয়ে খেলতেও পারে। কিন্তু যখন তারা হুমকি অনুভব করে, তখন তাদের কাঁটাগুলি উল্লম্বভাবে প্রসারিত হয় যা তাদের জন্য সুরক্ষা বলয় তৈরি করে।

 

৩. রাজহাঁস

©Orwald/Shutterstock

©Orwald/Shutterstock

রাজহাঁস বেশ সুন্দর ও চিত্তাকর্ষক পাখি হিসেবে পরিচিত। কিন্তু আপনি যদি তাদের বাচ্চার দিকে এগিয়ে আসেন এটি আপনার দিকে তেড়ে যাবে। যখন তারা হুমকি বোধ করে তখন তাদের পাখা উঠিয়ে ফেলে এবং হিস হিস, হ্রেষাধ্বনি, ঘোঁৎ ঘোঁৎ এবং ডানা ঝাপটায় যাতে আপনি দূরে থাকেন। তারা হয়তো মানুষের অনেক বেশি ক্ষতি করতে পারবে না কিন্তু আপনি নিশ্চয় চেষ্টা করতে যাবেন না!

 

৪. মেরু ভালুক

©FloridaStock/Shutterstock

©FloridaStock/Shutterstock

হ্যাঁ, তারা খুব আদুরে হতে পারে কিন্তু মনে রাখবেন তারা কিন্তু ভালুকই। মেরু ভল্লুক উত্তর আমেরিকা বৃহত্তম মাংসাশী প্রাণী। তারা মানুষকে ভয় করে না তাই মানুষ তাদের চারপাশে ঘুরে। এটি বেশ ভয়ানক হতে পারে।

 

৫. পেঁচা

©Anan Kaewkhammul/Shutterstock

©Anan Kaewkhammul/Shutterstock

পেঁচারা রাতে বের হয়, তাই এক আধটু আওয়াজ ছাড়া তারা হয়তো আপনার বেশি ক্ষতি করতে পারে না! তারা তাদের তীক্ষ্ণ ও লম্বা নখর দিয়ে তাদের শিকারকে আক্রমণ করে। যদি তাদের বাসা রক্ষা করতে হয় তবে মানুষের দিকে তেড়ে আস্তেও তারা ভয় করে না। Newsweek রিপোর্ট করেছিল যে, আটলান্টা জর্জিয়াতে ঠান্ডা আবহাওয়ার কারণে, পেঁচা মানুষের এবং কুকুরদের আক্রমণ করছে। তাদের খাদ্য ইঁদুর ও এবং বড় ইঁদুর আবহাওয়ার কারণে মারা যাচ্ছিল তাই তারা যা পাচ্ছিল তাই খেতে এগিয়ে আসছিল!

 

৬. স্লো লরিস (একটি ছোট, ধীর চলমান নিশাচর প্রাইমেট)

©hkhtt hj/Shutterstock

©hkhtt hj/Shutterstock

স্লো লরিসের বড় চোখ তাদেরকে সবচেয়ে আদুরে প্রাণীদের একটি বানিয়েছে। কিন্তু হুঁশিয়ার-এই ফুটফুটে জীবটি আসলে বিষাক্ত! তাদের কনুইয়ের পাশে তাদের একটি ছোট গ্রন্থি রয়েছে যা তাদের হুমকির মুখে ফেললে সেখান থেকে বিষ বের হয়। 

 

৭. হাতি

©2630ben/Shutterstock

©2630ben/Shutterstock

হাতি হল ভদ্র দৈত্য, কিন্তু আপনি যদি তাদের বিরক্ত করেন তবে তারা তাদের বিশাল শরীর এবং শক্তিশালী শুড় ব্যবহার করতে একটুও দেরী করবে না। জনসংখ্যা বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে, হাতিদের হয়রানি করা হয় এবং ছোট জায়গায় ঢোকানো হয় এবং তারা এটি পছন্দ করে না। প্রতিবছর হাতিদের আক্রমণে ৫০০ মানুষ মারা যান!

 

৮. ক্যাঙ্গারু

©Luke Shelley/Shutterstock

©Luke Shelley/Shutterstock

এই আদুরে অস্ট্রেলিয়ান প্রাণীগুলো সমস্যায় পড়তে চায় না। কিন্তু তাদের উত্তেজিত করা হলে তারা অনেক বড় ক্ষতি করতে পারে। তারা তাদের বাহু ব্যবহার করে ঘুষি মারতে পারে এবং তাদের শিকারীদের লাথি মারার সময় পা খুব শক্তিশালী হয়ে যায়!

 

৯. পাফারফিশ

©Beth Swanson/Shutterstock

©Beth Swanson/Shutterstock

পাফারফিশ পৃথিবীর সবচেয়ে বিষাক্ত মেরুদণ্ডী প্রাণীর একটি। তারা নিজেদের রক্ষা করতে শরীর ফুলিয়ে ফেলে এবং  tetrodotoxin ছেড়ে দেয়। এই বিষ অন্য মাছের জন্য প্রাণঘাতী হতে পারে এবং মানুষের জন্য মারাত্মক। একটি পাফারফিশের শরীরে ৩০ জন মানুষকে হত্যা করার মতো বিষ থাকে! 

 

১০. মুস(আমেরিকান হরিণবিশেষ)

©Michael Liggett/Shutterstock

©Michael Liggett/Shutterstock

এতোবড় প্রাণী যে বিপদজনক হতে পারে তা অবিশ্বাস্য নয়। যখন তারা হুমকি বোধ করে, তখন তারা আক্রমনাত্মকভাবে মানুষের দিকে তেড়ে যায়। এর ফলে গুরুতর আঘাত এবং কখনও কখনও মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে! মূলত আলাস্কাতে প্রতিবছর মুস ভালুকের ভেয়ে বেশি মানুষ হত্যা করে!

 

১১. বৃহৎ পিঁপড়েভূক

©J. Allen Frame/Shutterstock

©J. Allen Frame/Shutterstock

পিঁপড়েভূক দেখতে নিরীহ মনে হলেও তাদের খুব শক্তিশালী থাবা আছে যা দিয়ে তারা মানুষের পেট কেটে নাড়িভুঁড়ি বের করে ফেলতে পারে! তারা চোখে খুব কম দেখে এবং শ্রবণশক্তিও খুব খারাপ, দাঁতও নেই তবুও তারা বেশ প্রাণঘাতী হতে পারে!

 

১২. হরিণ

©Andrew Swinbank/Shutterstock

©Andrew Swinbank/Shutterstock

হরিণের মানুষের দিকে তেড়ে আসার ঘটনা আছে, বিশেষ করে পুরুষ হরিণের।যেহেতু হরিণ মানুষের কাছে ঘনিষ্ঠভাবে থাকে, তাই তারা তাদের ভয় পায় না এবং আরো আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠে। 

 

১৩. লিওপার্ড সীল

©Achim Baque/Shutterstock

©Achim Baque/Shutterstock

আপনি যদি কোনদিন "HAPPY FEET" চলচ্চিত্রটি দেখে থাকেন তবে আপনি এই সত্যটা জানেন, আপনি কখনোই একটি লিওপার্ড সীলের সাথে পানিতে আটকে পড়তে চাইবেন না। তারা মূলত পেঙ্গুইনদের শিকার করে তবে মানুষের দিকে এগিয়ে আস্তেও তারা ভয় পায় না।

 

১৪. প্লাটিপাস

©John Carnemolla/Shutterstock

©John Carnemolla/Shutterstock

প্লাটিপাসের পিছনের পায়ে দীর্ঘ, ফাঁপা স্পারস আছে যেখানে গোপন বিষ থাকে! যখন তারা আক্রমণের জন্য প্রস্তুত হয় তাদের স্পারস শোয়ানো থেকে দাঁড়িয়ে যায়। এটা আপনাকে মেরে না ফেললেও  রক্তচাপ, ব্যথা এবং ক্ষতএ রক্ত প্রবাহ বৃদ্ধি করে দেয়!

 

১৫. ক্যাটফিশ

©Kletr/Shutterstock

©Kletr/Shutterstock

আপনি যদি কখনও একটি ক্যাটফিশের সম্মুখীন হন, তবে আপনি অবশ্যই দূরে থাকতে চাইবেন। যদিও এটি আপনাকে দংশন করবে না কিন্তু যদি করে তবে বমি বমি ভাব,শরীর ফুলে যাওয়া এবং চরম ক্ষেত্রে অঙ্গচ্ছেদ পর্যন্ত করতে হতে পারে!

 

এই পৃথিবীর খুব কম ব্যাপারই আমরা জানি। কত কিছু জানার আছে এই পৃথিবীতে। আজকের লেখা থেকে আপনারা নতুন কিছু জানতে পারলে আমাদের আয়োজন সার্থক।

আমাদের আয়োজন ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট, শেয়ারের মাধ্যমে আমাদের সাথেই থাকুন। আমাদের পাশে থাকার জন্য ধন্যবাদ।



জনপ্রিয়