যেসব ধনী তারকারা একসময় তাদের সব টাকা হারিয়ে দেউলিয়া হওয়ার উপক্রম হয়েছিলেন!     যেসব ধনী তারকারা একসময় তাদের সব টাকা হারিয়ে দেউলিয়া হওয়ার উপক্রম হয়েছিলেন!

যেসব ধনী তারকারা একসময় তাদের সব টাকা হারিয়ে দেউলিয়া হওয়ার উপক্রম হয়েছিলেন!

জীবনে খ্যাতির পাশাপাশি, প্রচুর টাকা আয় করলেও একসময় তাদের সব টাকা হারিয়েছিলেন কিছু বিশ্বখ্যাত ধনী তারকারা! তাদের সম্পর্কেই জানবো আজকের আয়োজনে। চলুন জেনে নেওয়া যাক-

মাইকেল জ্যাকসন

মাইকেল জ্যাকসন

মাইকেল জ্যাকসন

একজন মিলিয়নেয়ার হয়ে বিলিয়নেয়ারের মতো খরচ করতেন মাইকেল জ্যাকসন। ২০০৫ সালে নানা মামলায় বিপর্যস্ত হয়ে দেউলিয়া হওয়ার উপক্রম হয়েছিলেন তার।

ফ্লয়েড ম্যায়ওয়েদার

ফ্লয়েড ম্যায়ওয়েদার

ফ্লয়েড ম্যায়ওয়েদার

২৯৫ মিলিয়ন ডলারের মালিক ফ্লয়েড ম্যায়ওয়েদার শুধুমাত্র ২০১৪ সালেই আয় করেছিলেন ১০০ মিলিয়ন ডলার। অপ্রয়োজনীয় ব্যয়ের কারণে দেউলিয়া ঘোষণার জন্য আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন তিনি।

মারভিন গেইয়ি

মারভিন গেইয়ি

মারভিন গেইয়ি

জীবনের একটা সময় প্রায় পাঁচ মিলিয়ন ডলার আয় করেছিলেন সঙ্গীত শিল্পী মারভিন গেইয়ি। পরে, তার সমস্ত অর্থ বিভিন্নভাবে নষ্ট করেছিলেন তিনি।

কিম বেসিংগার

কিম বেসিংগার

কিম বেসিংগার

৫.৪ মিলিয়ন ডলারের সম্পদের মালিক অভিনেত্রী কিম বেসিংগার ১৯৯৩ সালে নিজেকে দেউলিয়া ঘোষণা করেন। পরে অবশ্য নিজের এই দৈন্যদশা থেকে রেহায় পেয়েছিলেন তিনি।

মেট লোফ

মেট লোফ

মেট লোফ

১৯৮০ সালে দেউলিয়া হয়েছিলেন সঙ্গীত শিল্পী মেট লোফ। যদিও, তিনি বর্তমানে ২৫ মিলিয়ন ডলার সম্পদের মালিক।

মাইক টাইসন

মাইক টাইসন

মাইক টাইসন

বিখ্যাত এই বক্সার ২০ বছরের ক্যারিয়ারে প্রায় ৪০০ মিলিয়ন ডলার উপার্জন করেছিলেন। কিন্তু, একসময় সব অর্থ হারিয়ে ২০০৩ সালে নিজেকে দেউলিয়া ঘোষণা করতে আদালতের দ্বারস্থ হন।

নিকোলাস কেজ

নিকোলাস কেজ

নিকোলাস কেজ

প্রতি বছর ৪০ মিলিয়ন ডলার করে আয় করেন এক সময় হলিউডের সবচেয়ে বেশি পারিশ্রমিকপ্রাপ্ত অভিনেতা নিকোলাস কেজ। লাগামহীন খরচের কারণে প্রায়ই কপর্দকহীন অবস্থায় থাকতে হয় তাকে। স্পোর্টস কারসহ নানা ব্যয়বহুল উপকরণে টাকা-পয়সা ব্যয় করে ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়েছিলেন তিনি। পরে অবশ্য অভিনয় করে সব ঋণ শোধ করে নিজের খারাপ অবস্থার পরিবর্তন করেছেন নিকোলাস কেজ।

ল্যারি কিং

ল্যারি কিং

ল্যারি কিং

রেডিও অনুষ্ঠান দিয়ে ক্যারিয়ার শুরু করা ল্যারি কিং ১৯৭৮ সালের দিকে ঋণে জর্জরিত হয়ে নিজেকে দেউলিয়া ঘোষণা করেন। অবশ্য বর্তমানে তিনি ১৫০ মিলিয়ন ডলার মূল্যের সম্পদের মালিক।

কার্ট স্কিলিং

কার্ট স্কিলিং

কার্ট স্কিলিং

১৯ বছরের ক্যারিয়ারে ১১৪ মিলিয়ন ডলার আয় করেন বেসবল খেলোয়াড় কার্ট স্কিলিং। এই সমুদয় অর্থ একটি ভিডিও গেম কোম্পানিতে ব্যয় করে ব্যবসায় ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে নিজেকে দেউলিয়া ঘোষণা করেন তিনি।

উইলি নেলসন

উইলি নেলসন

উইলি নেলসন

১৯৮০ দশকের শুরুর দিকে একবার সম্পূর্ণ দেউলিয়া হয়ে গিয়েছিলেন উইলি নেলসন। কিন্তু, এই অবস্থা থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে বর্তমানে তিনি ২৫ মিলিয়ন ডলার সম্পদের মালিক।

ডেনিস রোডম্যান

ডেনিস রোডম্যান

ডেনিস রোডম্যান

‘এনবিএ’তে নিযুক্ত থাকাকালীন ২৭ মিলিয়ন ডলার বেতন পেতেন ডেনিস রোডম্যান। তবে এ কাজ ছাড়ার পর, বেশ অর্থ কষ্টে পড়েছিলেন তিনি।

ফ্রান্সিস ফোর্ড কপ্পোলা

ফ্রান্সিস ফোর্ড কপ্পোলা

ফ্রান্সিস ফোর্ড কপ্পোলা

ঋণে জর্জরিত হয়ে বেশ কয়েকবার দেউলিয়া ঘোষণার জন্য আদালতের দ্বারস্থ হন এক সময় ৫২ মিলিয়ন ডলারের মালিক ফ্রান্সিস ফোর্ড কপ্পোলা।

সিন্ডি লউপার

সিন্ডি লউপার

সিন্ডি লউপার

বেশ কয়েকবার দেউলিয়া ঘোষণার জন্য আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন বর্তমানে প্রায় ৩০ মিলিয়ন ডলার সম্পদের মালিক সঙ্গীত শিল্পী সিন্ডি লউপার।

এমসি হ্যামার

এমসি হ্যামার

এমসি হ্যামার

অর্থ খরচ হয়ে যেতে সময় লাগেনি ১৯৯০ সালে ৩৩ মিলিয়ন ডলারের মালিক র‌্যাপার এমসি হ্যামারের। নিজেকে দেউলিয়া ঘোষণার জন্য ১৯৯৬ সালেই আদালতের দ্বারস্থ হন তিনি।

আপনার মূল্যবান মতামত কমেন্টে জানাতে ভুলবেন না। সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ...



জনপ্রিয়