বোমান ইরানি, নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকী ও পঙ্কজ ত্রিপাঠি বলিউডের শক্তিমান অভিনেতা....  বোমান ইরানি, নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকী ও পঙ্কজ ত্রিপাঠি বলিউডের শক্তিমান অভিনেতা....

বলিউডে যারা খানদের তুলনায় সব দিক থেকে সেরা অভিনেতা!

বিশেষ করে ভারতের বলিউডের কথা যখন আমরা চিন্তা করি আমাদের মনে সবার আগে খানদের কথা আসে। বলিউডে অনেক আগ থেকেই খানেদের রাজত্ব শক্তিশালী হয়েছে। জানেন কি বলিউডে খানদের চেয়ে অভিনয়ের দিক দিয়ে শক্তিশালী অসংখ্য গুণী অভিনেতা ও অভিনেত্রী রয়েছেন। আমরা খানদের অভিনয়শৈলীকে প্রশ্নবিদ্ধ করছি না বরং এটা বলতে চাচ্ছি যে সুপারস্টার এবং একজন অভিনেতার মধ্যে বিস্তর তফাৎ রয়েছে।বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই খানরা নায়কের ভুমিকায় অভিনয় করেন। কিন্তু সব ধরণের চরিত্রে অভিনয় ফুটিয়ে তোলাই হচ্ছে একজন বড় মাপের অভিনেতার বৈশিষ্ট। এখানে অসংখ্য থিয়েটার আর্টিস্ট রয়েছেন যারা তাদের অভিনয় নৈপুণ্য মাধ্যমে আপনাকে নিমিষেই কাঁদিয়ে ফেলতে পারে এবং তাদের ভালোবাসাতে পারে কিংবা ঘৃণা করাতে পারে। চলুন বন্ধুরা জানা যাক সেই সকল অভিনেতাদের কথা যারা খানদের চেয়ে অনেক বড়মাপের অভিনেতা.. 

১০. পঙ্কজ ত্রিপাঠি  

পঙ্কজ ত্রিপাঠি 

পঙ্কজ ত্রিপাঠি

বিহারে জন্মগ্রহণকারী পঙ্কজ ত্রিপাঠী তার অতিপ্রাকৃতিক এবং নিখুত অভিনয় এর জন্য বিখ্যাত। শিশু বয়সে পঙ্কজ গ্রামের নাটক শোতে মেয়েদের চরিত্রে অভিনয় করতেন। এবং তখনই তিনি উপলব্ধি করেন যে তিনি আসলে অভিনেতা হতে চান। তিনি পড়াশোনার পাট চুকিয়ে পাটনায় চলে যান যেখানে তিনি থিয়েটার করতেন। এরপর তিনি দিল্লীতে চলে যান যেখানে ন্যাশনাল স্কুল অফ ড্রামা তিনি ভর্তি হন এবং তার অভিনয় দক্ষতা কে আরো বেশি পরিপূর্ণ করেন। তিনি জনপ্রিয়তার শীর্ষে আরোহণ করেন যখন তিনি গ্যাংস অফ ওয়াসিপুর নামক ছবিতে অভিনয় করেন।

৯. মনোজ বাজপেয়ি

মনোজ বাজপেয়ি

মনোজ বাজপেয়ি

বিখ্যাত ভারতীয় অভিনেতা মনোজ যিনি দুবার জাতীয় পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। বিহারের একটি ছোট্ট গ্রামে তার জন্ম হয় এবং ছোটবেলা থেকেই তিনি একজন সফল অভিনেতা হতে চেয়েছিলেন। ১৭ বছর বয়সে তিনি দিল্লির ন্যাশনাল স্কুল অফ ড্রামা এ ভর্তির জন্য আবেদন করেন এবং পরপর চারবার তার আবেদন বাতিল করা হয়। কিন্তু তিনি তার স্বপ্ন থেকে সরে যাননি। ভেরি জনের সাথে কিছু দিন কাজ করার পর তিনি অভিনয় মৌলিক বিষয়গুলো সম্পর্কে ধারণা লাভ করেন এবং পুনরায় ন্যাশনাল স্কুল অফ ড্রামা আবেদন করেন যেখানে তাকে শিক্ষকের পদে চাকরি করার প্রস্তাব দেয়া হয়েছিল।

৮. নাসিরুদ্দিন শাহ

নাসিরুদ্দিন শাহ

নাসিরুদ্দিন শাহ

কলা বিষয়ে স্নাতক সম্পন্ন করার পরে তিনি ন্যাশনাল স্কুলে ভর্তি হন যেখানে তিনি ধীরে ধীরে তার অভিনয় দক্ষতাকে গড়ে তুলেছেন। তার অভিনয় সম্পর্কে নতুন করে কিছু বলার নেই। অসম্ভব গুণী এই অভিনেতা তিনটি জাতীয় পুরস্কার পেয়েছেন যা থেকে খুব সহজে আঁচ করা যায় তিনি কোন মাপের অভিনেতা।

৭. ইরফান খান

ইরফান খান

ইরফান খান

ন্যাশনাল স্কুল অফ ড্রামায় বৃত্তিতে পড়ার সুযোগ পেয়ে তিনি সেখানে ভর্তি হন। তার অভিনয় জীবন শুরু হয় ভারত এক খোঁজ, চন্দ্রাকন্ঠা, চাণক্য নামের কিছু টিভি সিরিয়াল দিয়ে। তিনি চলচ্চিত্র শিল্পে প্রবেশের জন্য কঠোর পরিশ্রম করেছেন। রগ এবং হাসিল নামক দুটি চলচ্চিত্রে তার পারফরম্যান্স তাকে রাতারাতি জনপ্রিয়তা এনে দেয়। কিন্তু জনপ্রিয়তার শীর্ষে করে তিনি পৌঁছে যান যখন তিনি পান সিং টমার নামে সিনেমায় অভিনয় করেন।

৬. নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকী 

নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকী

নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকী

রসায়নে স্নাতক সম্পন্ন করার পরে তিনি দিল্লিতে চলে আসেন যেখানে তিনি তার অভিনয়ের যাত্রা শুরু করেন। তিনি ১৯৯৬ সালে ন্যাশনাল স্কুল অফ ড্রামা থেকে স্নাতক সম্পন্ন করেন। শুরু থেকে ছোট ছোট চরিত্রে অভিনয় করেছেন নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকি। অনেক কষ্টে তার জীবন অতিবাহিত হত। দীর্ঘ ১৫ বছরের সাধনার পর নামাজ পরিপূর্ণ অভিনেতা হিসেবে স্বীকৃতি পান।নওয়াজ ই একমাত্র ব্যক্তি যিনি প্রমাণ করেছেন বলিউডের মতো স্থানে সিক্স প্যাক অ্যাবস ছাড়াও অভিনয়ের যোগ্যতা দিয়ে অনেক ভাল স্থানে পৌঁছানো সম্ভব। বর্তমানে নওয়াজের জনপ্রিয়তা খানদের চেয়ে কোনো অংশে কম নয়।

৫. মাকারাণ্ড দেশপান্ডে

মাকারাণ্ড দেশপান্ডে

মাকারাণ্ড দেশপান্ডে

তিনি একজন অভিনেতা পরিচালক এবং লেখক শাহরুখ খান অভিনীত স্বদেশ নামক ছবিতে তিনি সহ-অভিনেতার ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন। আমরা সবাই তাকে চিনি। ইন্ডিয়া থিয়েটারে তার অবদান অনস্বীকার্য। তিনি ৪০ টির পূর্ণদৈর্ঘ্য নাটক এবং ৫০ টি স্বল্পদৈর্ঘ্যের নাটক পরিচালনা করেছেন।

৬. অনুপম খের

অনুপম খের

অনুপম খের

এই মানুষটি এখন পর্যন্ত বিভিন্ন ভাষায় ৫০০ এরও বেশি ছবিতে অভিনয় করেছেন। এত গুণী একজন ব্যক্তি যাকে দিয়ে আপনি কমেডি, ট্রাজেডি, নেতিবাচক চরিত্র, এবং বহুমুখী চরিত্রে নিমিষেই নিপুণভাবে ফুটিয়ে তুলতে পারবেন। অনেকটা জলের মত যে পাত্রে রাখবেন সে পাত্রেই আকার ধারণ করবে। অভিনয়ের মধ্যে একদমই ঢুকে যান অনুপম। তিনি ছায়াছবিতে অভিনয় পাশাপাশি ন্যাশনাল স্কুল অফ ড্রামা চেয়ারম্যান পদে দায়িত্ব পালন করছেন।

৩. পঙ্কজ কাপুর

 পঙ্কজ কাপুর

পঙ্কজ কাপুর

অনেক মানুষই থাকে একটা চলমান অভিনয়ের প্রতিষ্ঠান বলে দাবি করেন। এখন পর্যন্ত তিনি তিনবার জাতীয় পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। আরেকটা বিষয় হচ্ছে তিনি অভিনেতা শহিদ কাপুরের পিতা।

২. বোমান ইরানি

বোমান ইরানি

বোমান ইরানি

বলিউডে পা রাখার আগে তিনি হোটেলের ওয়েটার এবং আলোকচিত্র শিল্পী হিসেবেও কাজ করেছেন। তিনি অনেক দেরিতে অভিনয়ে এসেছেন যে সময় অন্যান্য মানুষের অভিনয় থেকে অবসর গ্রহণের কথা। কিছু যখন থেকে তিনি বলিউডে প্রবেশ করেছেন তার প্রত্যেকটি ছবি দর্শক মহলে বেশ প্রশংসিত হয়েছে। তার সুনিপূণ অভিনয়ে ফুটে উঠেছে থ্রি ইডিয়টস, মুন্নাভাই এমবিবিএস, লাগে রাহো মুন্না ভাই, খোসলা কা ঘোষলা ইত্যাদি ছবিতে। নিঃসন্দেহে তিনি অনেক বড় মাপের অভিনয়শিল্পী। যে কোন চরিত্রে তিনি পুরোপুরি ডুবে যান যাত্রার অভিনয় এর সাহায্যে আমরা বুঝতে পারি।

১. নানা পাটেকার

নানা পাটেকার

নানা পাটেকার

নানা পাটেকার এর বাবা মূলত নাটক বা চলচ্চিত্র খুব পছন্দ করতেন এবং এজন্যই নানা পাটেকারের ভেতরে অভিনয়ের আগ্রহ ধীরে ধীরে বিকশিত হয়। তিনি একমাত্র অভিনেতা যিনি ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন বেস্ট সাপোটিং অ্যাক্টর, বেস্ট অ্যাক্টর, ও বেস্ট ভিলেন এর জন্য। এ সকল কারণে তার মধ্যে বহুমুখী অভিনয় এর বৈশিষ্ট্য খুব সহজেই ধরা পড়ে। এখন পর্যন্ত তিনি বলিউডে অসংখ্য ব্যবসাসফল ছবি উপহার দিয়েছেন।

বন্ধুরা আমাদের আয়োজন কেমন লাগলো মতামত জানিয়ে আমাদের উপকৃত করবেন। আমাদের সাথে থাকআর জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ...



জনপ্রিয়