একজন মান্নার গল্প! একজন মান্নার গল্প!

একজন মান্নার গল্প!

বাংলাদেশের বাণিজ্যিক চলচ্চিত্রের সোনালি প্রজন্মের শেষ মহানায়ক বললে যার নাম সবাই একসাথে বলবেন তিনি হলেন মান্না। ১৭ই ফেব্রুয়ারি ২০০৮ সালে আমরা অকালে হারিয়েছিলাম মান্না নামের এক মহানয়ককে!

১৯৬৪ সালের ৬ ডিসেম্বর টাঙ্গাইলের কালিহাতিতে জন্মগ্রহণ করেন এস এম আসলাম তালুকার মান্না। উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় পাস করার পর ১৯৮৪ সালে এফডিসির ‘নতুন মুখের সন্ধানে’ কার্যক্রমের মাধ্যমে চলচ্চিত্রে আগমন ঘটে তার। মান্নার প্রথম অভিনীত ছবির নাম ‘তওবা’ হলেও প্রথম মুক্তি পায় ‘পাগলি’ ছবিটি।

মজার কথা হলো সেই নতুন মুখের সন্ধানে আয়োজনে মান্নার সাথে আরো এসেছিলেন খালেদা আক্তার কল্পনা, নায়ক সুব্রত, নায়ক সোহেল চৌধুরী, নিপা মোনালিসা। নতুন মুখের সন্ধানে সুযোগ পাওয়া অনেক অভিনেতা অভিনেত্রী  একসময় হারিয়ে গিয়েছিলেন কিন্তু মান্না হারিয়ে যাননি বরং মৃত্যুর আগে বাংলা চলচ্চিত্রের অন্যতম সেরা জনপ্রিয় নায়ক হিসেবে চলচ্চিত্রের ইতিহাসে ঠাই করে নেন। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত এ যাবত প্রায় ৪০০ ছবিতে অভিনয় করেছিলেন মান্না।

বাংলা মুভি ডেটাবেজ

বাংলা মুভি ডেটাবেজ

১৯৯১ সালে মোস্তফা আনোয়ার পরিচালিত ‘কাসেম মালার প্রেম’ ছবিতে প্রথম প্রধান নায়ক হিসেবে সুযোগ পেয়েছিলেন মান্না। এর আগে কখনই কোনো ছবিতেই প্রধান নায়কের ভূমিকায় কাজ করার সুযোগ পাননি তিনি। ‘কাসেম মালার প্রেম’ ছবিটি সুপার ডুপার হিট হওয়ার কারণে মান্না একের পর এক একক ছবিতে কাজ করার সুযোগ লাভ করেন।

এরপর কাজী হায়াৎ এর ‘দাঙ্গা’ ও ‘ত্রাস’ ছবির কারণে তার একক নায়ক হিসেবে প্রতিষ্ঠা পাওয়া সহজ হয়ে যায়। মান্না হয়ে উঠেন সাহসী চলচিত্রের নায়ক। বিভিন্ন রাজনৈতিক বক্তব্য নিয়ে সাহসী সিনেমায় অভিনয় করতে থাকেন মান্না। এরপর মোস্তফা আনোয়ার এর অন্ধ প্রেম, মমতাজুর রহমান আকবর এর ‘প্রেম দিওয়ানা’, ‘ডিস্কো ড্যান্সার’, কাজী হায়াত এর ‘দেশদ্রোহী’, আকবরের ‘বাবার আদেশ’ ছবিগুলো মান্নার অবস্থান শক্তভাবে প্রতিষ্ঠিত করে।

আম্মাজান সিনেমার কথা আলাদা করে না বললেই না, এই সিনেমাটিতে মান্নাকে ছাড়া আপনি আর কাউকেই কল্পনা করতে পারবেন না। মান্নার অনবদ্য অভিনয় তাকে এনে দিয়েছিল সেরা নায়কের পুরষ্কার। 

Bangla Cyber

Bangla Cyber

মমতাজুর রহমান আকবর, কাজী হায়াত, নুর হোসেন বলাই, নাদিম মাহমুদ, এম এ মালেক, এফ আই মানিক, মোস্তাফিজুর রহমান বাবু, এ জে রানা, বেলাল আহমেদসহ ১০০ এর অধিক পরিচালকের ছবিতে কাজ করেছন মান্না। ১৯৯৬ সালে সালমান শাহের হঠাৎ মৃত্যুতে প্রযোজক-পরিচালকেরা বিপদে পড়ে যান। যেসময় পরিচালকদের চোখে একমাত্র আস্থার নায়ক ছিলেন মান্না।

সিনেমায় অভিনয়ের পাশাপাশি চলচ্চিত্র-বিষয়ক নানা কর্মকাণ্ডে মান্নার ছিল অগ্রণী ভূমিকা। বাংলাদেশি চলচ্চিত্রে অশ্লীলতা জেঁকে বসলে হাল ধরেন মান্না। বাংলা চলচ্চিত্রের অন্ধকার কাটতে থাকে তার দৃঢ় ভূমিকার কারণে। আশির দশকের অভিনেত্রী সুনেত্রা, নিপা মোনালিসা, চম্পা, দিতি, রোজিনা, নূতন, অরুণা বিশ্বাস, কবিতা থেকে শুরু করে মৌসুমি, শাবনূর, পূর্ণিমাদের সঙ্গেও তার ছবি ছিল ব্যবসাসফল।

internet

internet

বাংলাদেশের বাণিজ্যিক চলচ্চিত্রের ক্ষেত্রে আজীবন স্মরণীয় হয়ে থাকবে মান্নার নাম। অভিনয়, সংলাপ বলার ধরণ দিয়ে নিজস্ব একটা স্টাইল তৈরি করেছিলেন তিনি। তার অনেক ছবি চিরদিনের জন্য দর্শকের মনে জায়গা করে নিয়েছে। একজন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরষ্কারপ্রাপ্ত অভিনেতা এবং একজন সফল প্রযোজকও ছিলেন মান্না। বাংলা সিনেমায় তার শূন্যতা কখনও পূরণ হবার না।

মান্না অভিনীত উল্লেখযোগ্য কিছু চলচ্চিত্রের তালিকা

তওবা
পাগলী
জাদরেল বউ
জারকা
অমর
অমরসঙ্গী
শিমুল পারুল
চোরের বউ
নিষ্পাপ
যন্ত্রণা
কাসেম মালার প্রেম
দাঙ্গা
চাঁদাবাজ
ত্রাস
তেজী
মিনিস্টার
প্রেম দিওয়ানা
ডিস্কো ড্যান্সার
খল নায়ক
শান্ত কেন মাস্তান
গুণ্ডা নাম্বার ওয়ান
কুখ্যাত খুনী
রংবাজ বাদশা
বশিরা
ঢাকাইয়া মাস্তান
মেজর সাহেব
আরমান
মাস্তানের ওপর মাস্তান
বিগবস
টপ সম্রাট
সুলতান
ভাইয়া
বিদ্রোহী সালাহউদ্দিন
বাবা
মান্না ভাই
কিলার
টপ টেরর
জনতার বাদশা
রাজপথের রাজা
এতিম রাজা
টোকাই রংবাজ
ভিলেন
নায়ক
সন্ত্রাসী মুন্না
মোস্তফা ভাই
রাজা বাংলাদেশী
বীর সৈনিক
ভণ্ড বাবা
জুম্মান কসাই
আব্বাস দারোয়ান
জিদ্দি ড্রাইভার
রাজা
লাল বাদশা
রুস্তম
দানব
ঈমানদার মাস্তান
বাবা মাস্তান
রাজা নাম্বার ওয়ান
তেজী সন্তান
রাজু মাস্তান
মেশিনম্যান
মুসা ভাই
নেতা
বাংলার হিরো
সিপাহী
দেশপ্রমিক
চিরঋনী [শাবনূর, অমিত হাসান]
লুটতরাজ
কষ্ট
আম্মাজান
আব্বাজান
বীরসৈনিক
স্বামী স্ত্রীর যুদ্ধ
দুই বধু এক স্বামী
মনের সাথে যুদ্ধ
বাঘের বাচ্চা
পিতা মাতার আমানত
আমি জেল থেকে বলছি
অবুঝ শিশু
অশান্ত আগুন
অবুঝ সন্তান
অন্ধ আইন
অন্ধ প্রেম
অতিক্রম
আসলাম ভাই
আজকের সন্ত্রাসী
আম্মা
আবার একটি যুদ্ধ
আমি একাই একশো
আন্দোলন
আলিবাবা
আলো আমার আলো
আমাদের সন্তান
আমার জান
আমার প্রতিক্ষা
আমার প্রতিজ্ঞা
আঘাত পাল্টা আঘাত
উল্টাপাল্টা ৬৯



জনপ্রিয়