যারা অসম্ভবকে সম্ভব করেছেন!  যারা অসম্ভবকে সম্ভব করেছেন!

যারা অসম্ভবকে সম্ভব করেছেন!

আপনি কি সুপারহিরোর অস্তিত্ব বিশ্বাস করেন? আপনি যদি এই মানুষগুলো সম্পর্কে জানেন তাহলে আপনি স্পষ্টভাবে তাদেরকে বিশ্বাস করতে বাধ্য হবেন। আমরা এই কথাটি অনেকবার শুনেছি যে, মানুষের সম্ভাবনার কোন শেষ নেই এবং আপনি যদি সত্যিই নিজেকে বিশ্বাস করেন তাহলে আপনি এই অসীমতা আবিষ্কার করতে পারবেন (গবেষণার উপর ভিত্তি করে একটি ধারনা অনুযায়ী)। জরুরী পরিস্থিতিতে, প্রত্যেক ব্যক্তি অসম্ভবকে মোকাবেলা করতে পারে।

আজকে আমরা বিস্ময় সৃষ্টি করা কয়েকজন ব্যক্তির তালিকা সংগ্রহ করেছি, যারা চরম পরিস্থিতিতে যেতে পছন্দ করেন এবং সবাইকে চমকে দিতে পছন্দ করেন।

  

১. ছাতা মানুষ

© Peter Kallo© Kempinski Hotel Corvinus Budapest / facebook  © Secrets of Hungary / facebook

© Peter Kallo

© Kempinski Hotel Corvinus Budapest / facebook

© Secrets of Hungary / facebook

‘এইভাবে আমি বুদাপেস্টের উপরে সূর্যোদয়ের সময় প্রফুল্ল থাকি। তাছাড়া, আমি এটা আইনানুযায়ী কছি। প্রিয় উইল, #কেকেচ্যালেঞ্জে আমরা আপনাকে পরাজিত করেছি!’   - ক্যালো পিটার

এই চমৎকার কাজটি একজন অজ্ঞাত ব্যক্তি করেছেন, যার সাথে সবসময় একটি ছাতা থাকে। কেউই তার আসল নাম জানে না, কিন্তু আমরা জানি যে তিনি বিশিষ্ট ফটোগ্রাফার ক্যালো পিটারের নির্মিত ব্যালেন্স প্রজেক্টের একটা অংশ। তাঁর দর্শন হল আমাদের প্রত্যেকের জীবনে একটি ভারসাম্য পৌঁছানোর চেষ্টা এবং সমন্বয় যা আমাদের সুখী করে তোলে। স্টান্টম্যান তার নিজের শারীরিক সীমাবদ্ধতাগুলি ব্যালেন্সে রাখে এবং পৃথিবী এবং নিজের সাথে একটি পারফেক্ট ব্যালেন্স বজায় রাখে।

 

২. পাশা পিটকুনস

© Pasha Petkuns / facebook  © Pasha Petkuns / facebook  © Pasha Petkuns / facebook

© Pasha Petkuns / facebook

© Pasha Petkuns / facebook

© Pasha Petkuns / facebook

‘অনুপ্রেরণা সবসময় চারপাশেই থাকে। শুধু আপনার চোখ রাখতে হয়!’  - পাশা পিটকুনস

পাশা পিটকুনস একজন তরুণ ব্লগার এবং ক্রীড়াবিদ। তিনি ভ্রমণ করেন, ট্রিকস করেন এবং সেগুলো ইন্সটাগ্রাম বা ফেসবুকে শেয়ার করেন। পাশার দুটি অ্যাওয়ার্ডস আছেঃ রেডবুল আর্ট অফ মোশন ২০১১ থেকে প্রথম স্থান এবং রেডবুল আর্ট অফ মোশন ২০১১ থেকে দ্বিতীয় স্থান।

আপনি আশ্চর্য হচ্ছেন, কেন তিনি এত জনপ্রিয়? আপনি তাকে পাগলও মনে করতে পারেন, তবে আপনি যদি তাঁর পোস্ট করা সব ভিডিওগুলো দেখেন তাহলে আপনিও তার প্রশংসা না করে থাকতে পারবেন না!

 

৩. অ্যালেন রবার্ট

© Alain Robert / facebook  © Alain Robert / facebook  © Alain Robert / facebook

© Alain Robert / facebook

© Alain Robert / facebook

© Alain Robert / facebook

‘ক্লাইম্বিং আমার পেশন, আমার জীবনের দর্শন। যদিও এতে আমার মাথা ঘোরে, দুর্ঘটনা আমাকে ৬৬% পর্যন্ত অক্ষম করে দিয়েছে, তারপরও আমি সেরা একক ক্লাইম্বার (পর্বতারোহী) হয়ে উঠেছি’।   - অ্যালেন রবার্ট

অ্যালেন রবার্ট একজন ফরাসি পর্বতারোহী, বয়স ৫৬ বছর। তাকে প্রায়শই ফরাসি স্পাইডার ম্যান হিসেবে উল্লেখ করা হয়। অ্যালেন আধুনিক আকাশচুম্বী ভবন এবং শিল্প নির্মাণের অন্যান্য সেরা শিল্পকর্ম শুধুমাত্র তাঁর হাত দিয়ে বেয়ে উপরে উঠে জয় করেন। মানে, তাঁর সাথে কোন সেফটি দড়ি, আরোহণের কোন সরঞ্জাম বা কোন উত্তোলনের মেশিন থাকে না। তাঁর ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে, আপনি তাকে গোল্ডেন গেট ব্রিজ, সিয়েরা টাওয়ার, দ্য নিউ ইয়র্ক শপিং সেন্টার এবং এমনকি সিডনি স্কাইপয়েন্টে ‘সিটিপয়েন্টে’ আরোহণ করা দেখতে পাবেন।

 

৪. ফ্রেড ফুজেন

© Fred Fugen / facebook  © Jetman / facebook

© Fred Fugen / facebook

© Jetman / facebook

ফ্রেড ফুজেন বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু আকাশচুম্বী ভবন থেকে একটি প্যারাশুট দিয়ে লাফ দিয়ে বিশ্ব রেকর্ড করেছেন। তিনি ফ্রান্সে জন্মগ্রহণ করেন এবং শৈশব থেকেই স্কাই ডাইভিং শুরু করেন। তারা বাবা-মা দুজনই প্যারাশুট বাহিনীযুক্ত সৈনিক ছিলেন এবং ফ্রেড তাদের সম্মান বজায় রাখার জন্য তাঁর সেরাটা করা চেষ্টা করেছিলেন। ১৯৯৬ সালে তিনি প্রথম ঝাঁপিয়ে পড়েন এবং সেই সময় থেকে এখন পর্যন্ত তা করে যাচ্ছেন। কোন বিষয় তাকে অনন্য করে তুলবে তার জন্য তিনি নিজের কৌশল উদ্ভাবন করেন।

প্রায়শই, ফ্রেড তাঁর বন্ধু ভিন্স রিফেট সাথে জুটি হিসেবে কাজ করেন। তারা একসাথে তাদের সবচেয়ে বিপজ্জনক এবং সাহসী ট্রিক জাম্প ২০১৪ সালে দুবাইয়ের বুর্জ খলিফা থেকে নিচে ঝাঁপিয়ে পড়েন।

 

৫. ওলেগ ক্রিকেট

© olegcricket Verified© olegcricket Verified

© olegcricket Verified

© olegcricket Verified

‘আমার জীবনটা একটা সিনেমার মতো। রাতে আমি স্বপ্ন দেখি না, কিন্তু যখন আসবে তখন সেগুলো খুব স্পেশ্যাল হয়’।   - ওলেগ ক্রিকেট

ওলেগ ক্রিকেট একজন জনপ্রিয় রোফার, যিনি উঁচু ভবন এবং খাঁড়াবাধের প্রান্তে ঝুঁকিপূর্ণ ট্রিক চালানোর জন্য পরিচিত। ভিডিওতে দেখা যায় যে, তিনি এক ভবন থেকে আরেকটি ভবনে লাফ দিচ্ছেন, ডিগবাজি খাচ্ছেন, রেলিংয়ে ভারসাম্য বজায় রাখছেন এবং সংকীর্ণ ছাদের উপর সাইকেল চালচ্ছেন।    

তিনি বলেন যে, সবার মতো তার মধ্যেও ভীতি কাজ করে কিন্তু তিনি এটিকে কাটিয়ে ওঠার সাহস যুগিয়েছেন এবং এটি সাধন করার অভ্যাস করেছেন।

 

৬. নিক ওয়ালেন্ডা

© Nik Wallenda / facebook  © Nik Wallenda / facebook

© Nik Wallenda / facebook

© Nik Wallenda / facebook

নিক ওয়ালেন্ডা একজন আমেরিকান অ্যাক্রোব্যাট, রোপওয়াকার এবং স্টান্টম্যান। দ্য গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস অনুযায়ী তিনি ৬ বার বিশ্বরেকর্ড করেছেন।

ওয়ালেন্ডা টানটান দড়ির উপর দিয়ে হাঁটাকে একটা ট্রিক হিসেবে বিবেচনা করেন না, বরং তিনি মনে করেন এটার জন্য বিশেষ ট্রেনিংয়ের প্রয়োজন। তিনি ইনস্যুরেন্স বা একটি সেফটি নেট (নিরাপত্তা জাল) ছাড়াই এই কাজটি সম্পন্ন করেন। তারের উপর দিয়ে হাঁটার জন্য দরকার একটি শান্ত সংবেদনশীলতা, সাবধানী গণনা এবং অবিরত একাগ্রতা। নিক সপ্তাহে ৬ দিন এবং দিনে ৬ ঘন্টা করে অত্যন্ত পরিশ্রমী প্রশিক্ষণ নিয়ে থাকেন।

 

৭. ডেভিড লামা

© davidlama_official Verified© davidlama_official Verified© davidlama_official Verified

© davidlama_official Verified

© davidlama_official Verified

© davidlama_official Verified

ডেভিড লামা একজন অস্ট্রিয়ান আরোহী এবং পর্বতারোহী। ৬ বছর বয়স থেকে তিনি ইন্সব্রুকের অস্ট্রিয়ান আল্পনিস্ট ক্লাবের সাথে যুক্ত। তিনি পর্বতারোহী সম্প্রদায়কে বিস্মিত করেছেন, শিলা পর্বত আরোহণে বিশ্বকাপ জয় করা সর্বকনিষ্ঠ ক্রীড়াবিদ হন তিনি। একই বছরে তিনি শিলা পর্বত আরোহণে ইউরোপীয় ক্লাইম্বিং চ্যাম্পিয়নশিপ জিতেছিলেন।  

 

আপনি কি মনে করেন যে, যারা খেলাধুলা অনেক পছন্দ করেন এমন ব্যক্তিরা পাগল হয়ে থাকেন বা আধুনিক দিনের সুপারহিরো?   



জনপ্রিয়