অকাল মৃত্যুর ফলে চলচ্চিত্র শেষ করতে পারেননি যেসকল তারকারা   অকাল মৃত্যুর ফলে চলচ্চিত্র শেষ করতে পারেননি যেসকল তারকারা

অকাল মৃত্যুর ফলে চলচ্চিত্র শেষ করতে পারেননি যেসকল তারকারা

অনেক স্বনামধন্য অভিনেতা অভিনেত্রী আছেন যারা অকালমৃত্যুর ফলে তাদের চলচ্চিত্র শেষ করতে পারেননি। এক সময়ের অনেক বিখ্যাত তারকা সবাইকে কাঁদিয়ে চিরনিদ্রায় শায়িত হয়েছেন। কেউ কেউ যেমন দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত হয়েছেন কেউ কেউ এই নিষ্ঠুর পৃথিবীকে সহ্য করতে পারেননি। আবার অনেকে রহস্যজনকভাবে এই পৃথিবী ছেড়ে চলে গেছেন। ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে এই তারকাদের মৃত্যুর ব্যাপক প্রভাব আছে। আজ আপনাদের জানাবো কিছু বিখ্যাত অভিনেতা অভিনেত্রীর কথা যারা অকালমৃত্যুর ফলে চলচ্চিত্র অসমাপ্ত রেখে যান।  

১। অমরেশ পুরি

INTERNET

INTERNET

 

এই জনপ্রিয় অভিনেতা ৭২ বছর বয়সে সেরেব্রেয়াল হেমারেজের ফলে মৃত্যুবরণ করেন। তিনি তার ভিলেন চরিত্র মোগাম্বোর জন্য জনপ্রিয়। মৃত্যুর ফলে তিনি মোগাম্বো খুশ হুয়া থা, কৃষ্ণা, কাচ্চি সাদাক মুভিগুলো অসমাপ্ত রেখে যান।

২। দিব্যা ভারতী

INTERNET

INTERNET

 

বলিউডের এক সময়ের খুব জনপ্রিয় এই অভিনেত্রী রহস্যজনকভাবে নিজের পাঁচতলা ভবনের বেলকনি থেকে পড়ে মারা যান। এই সময় তিনি ক্যারিয়ারের সব থেকে ভালো সময় কাটাচ্ছিলেন। তিনি লাডলা সিনেমার প্রায় ৮০% কাজ সমাপ্ত করেন এবং শ্রীদেবীর মত তখনকার সময়ের জনপ্রিয় অভিনেত্রীদের সরিয়ে একাধিক সিনেমায় অভিনয়ের সুযোগ করে নেন। তার মৃত্যুতে পুরো বলিউড ইন্ডাস্ট্রি স্তব্ধ হয়ে গিয়েছিল।

৩। আমজাদ খান

INTERNET

INTERNET

 

১৯৯২ সালে ৫২ বছর বয়সে শোলে সিনামার এই বিখ্যাত ভিলেন হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান। তিনি তার অভিনয় ও পর্দায় অসাধারণ ডায়লগের জন্য বিখ্যাত ছিলেন। মৃত্যুর আগে তিনি আতাঙ্ক ও ডু ফান্টুশ মুভি দুটিতে অভিনয় করছিলেন।

৪। মধুবালা

INTERNET

INTERNET

 

ষাটের দশকের খুব জনপ্রিয় এই অভিনেত্রী মাত্র ৩৬ বছর বয়সে এই পৃথিবী ছেড়ে চলে যান। তিনি মুঘাল এ আজম সিনেমায় পেয়ার কিয়া তো ডারনা ক্যা গানে নাচের জন্য বেশি বিখ্যাত। এই অভিনেত্রী ষাটের দশকে তরুণদের হৃদয়ে এখনও জায়গা করে আছেন। মৃত্যুর আগে তিনি ফারয ওর ইশক সিনেমাটি করছিলেন।

৫। পল ওয়াকার

INTERNET

INTERNET

 

ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস সিরিজের জনপ্রিয় তারকা পল ওয়াকার ২০১৩ সালে এক মর্মান্তিক গাড়ী দুর্ঘটনায় প্রাণ হারান। এই সময় তিনি ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস সেভেনে কাজ করছিলেন। পরবর্তীতে তার ভাইকে দিয়ে বাকি কাজ করানো হয়।

৬। রবিন উইলিয়ামস

INTERNET

INTERNET

 

এই বিখ্যাত কৌতুক অভিনেতা জুমাঞ্জি, নাইট অ্যাট দ্যা মিউজিয়ামের মত জনপ্রিয় সিনেমাগুলোতে অভিনয় করেন। তিনি ২০১৪ সালে ৬৩ বছর বয়সে নিজ বাসায় ফাঁসি লাগিয়ে আত্মহত্যা করেন। মৃত্যুর আগে তিনি নাইট অ্যাট দ্যা মিউজিয়ামঃ সিক্রেট অ্যাট দ্যা টম্বসহ বেশ কয়েকটি সিনেমায় অভিনয় করছিলেন। তিনি পারকিনশন ডিজিজ নামে এক মানসিক ব্যাধিতে আক্রান্ত ছিলেন।

৭। সোহেল চৌধুরী

INTERNET

INTERNET

 

আশির দশকের এই রূপালী পর্দার সুদর্শন নায়ক ১৯৯৮ সালে বনানীর ট্র্যাম্প ক্লাবে সন্ত্রাসীদের হাতে খুন হন। তিনি অভিনেত্রী দিতির স্বামী ছিলেন কিন্তু ১৯৯০ সালে তাদের বিচ্ছেদ ঘটে। মৃত্যুর সময় তিনি কয়েকটি সিনেমায় পার্শ্ব চরিত্রে অভিনয় করছিলেন।

৮। জাফর ইকবাল

INTERNET

INTERNET

 

বাংলাদেশের এই জনপ্রিয় অভিনেতা ১৫০ টির বেশি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন যার বেশিরভাগ ব্যবসা সফল হয়। এই অভিনেতা ১৯৯১ সালে পারিবারিক অশান্তির জন্য অতিরিক্ত মদ্যপান শুরু করেন ও ক্যান্সার আক্রান্ত হয়ে মারা যান। ফলে তিনি অনেকগুলো সিনেমা অসম্পূর্ণ রেখে যান।

৯। সালমান শাহ

INTERNET

INTERNET

 

বাংলা সিনেমার সবচেয়ে জনপ্রিয় এই তারকা রহস্যজনকভাবে ১৯৯৬ সালে নিজ বাসায় মারা যায়। তার মৃত্যু রহস্যের এই পর্যন্ত কোন সুরাহা হয়নি। মৃত্যুর আগে তিনি মন মানে না সিনেমার ৫০% কাজ সম্পন্ন করেন যা পরবর্তীতে রিয়াজ দ্বারা অভিনীত হয়।

আশা করি আমাদের আয়োজন আপনাদের ভালো লেগেছে। পোস্টটি শেয়ার করে আমাদের অনুপ্রাণিত করবেন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।  



জনপ্রিয়