জীবনকে নতুনভাবে মেলে ধরবে বিশ্বনন্দিত সেরা এই ১০টি চলচ্চিত্রগুলো। জীবনকে নতুনভাবে মেলে ধরবে বিশ্বনন্দিত সেরা এই ১০টি চলচ্চিত্রগুলো।

জীবনকে নতুনভাবে মেলে ধরবে বিশ্বনন্দিত সেরা এই ১০টি চলচ্চিত্রগুলো।

কিছু সিনেমা আছে যেগুলো দেখার পর নিজের মধ্যে এক ধরনের নতুন আমিকে খুঁজে পাওয়া যায়। অনেকদিন এই সব মুভি মাথায় ভর করে থাকে। এক গভীর আবেশ ও ভালো লাগা বিরাজ করে এসব মুভি দেখার পর।

বিশ্বের নানা প্রান্তের অসাধারণ ১০ টি মাস্টারপিস নিয়ে আমাদের আজকের আয়োজন। চলচ্চিত্রগুলো আপনাকে মোহাচ্ছন্ন করে দিবে আর ফিনিক্স পাখির মত আকাশে ডানা মেলতে অনুপ্রেরণা জোগাবে।

১। লেবার ডে, আইএমডিবিঃ ৬.৯

 

অভিনয়েঃ কেট উইন্সলেট, টবি মাগুইর, জশ ব্রলিন, গাটলিন গ্রিফিথ।

এক মা তার ছেলেকে নিয়ে একাকী বাস করে। ঘটনাক্রমে তাদের বাসায় এক আগন্তুক আশ্রয় নেয়। কিন্তু কিছুদিনের মধ্যেই ওই মা জানতে পারে ওই আগন্তুক আসলে একজন ভয়ংকর অপরাধী। এখন কি করবে সেই মা? এই নিয়ে এগিয়ে গেছে সিনেমার কাহিনী।

সুখী হতে চাওয়া সংগ্রামী মানুষদের জন্য একটি অনুপ্রেরণাদায়ী সিনেমা।  

 

২। জাগতেন (দ্যা হান্ট), আইএমডিবিঃ ৮.৩

 

অভিনয়েঃ ম্যাডস মিকেলসেন, থমাস বো লারসেন, আনিকা ওয়েডারকপ, ল্যাসী ফোগেলস্ট্রোম।

একজন একাকী শিক্ষক ও তার সন্তানকে ফিরে পাওয়ার লড়াই নিয়ে এই চলচ্চিত্র। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে প্রেম এবং মিথ্যার আশ্রয়ের জন্য চরম পরিণতি।

সিনেমাটি দেখাবে একটা মিথ্যা কথা কিভাবে সব নস্যাৎ করে দিতে পারে এবং টা থেকে উত্থানের অসাধারণ প্রচেষ্টা।    

 

৩। সি (পোয়েট্রি), আইএমডিবিঃ ৭.৮

 

অভিনয়েঃ ইয়ং জীয়ং হি, লী ডেভিড।

মিজা তার নাতিকে নিয়ে একাকী বাস করে। ঘটনাক্রমে সে কবিতা পড়ার ক্লাসে যোগ দেয়। এর পর সে আবিষ্কার করতে থাকে তার পাশে এমন অনেক সৌন্দর্য আছে যা এই দীর্ঘ জীবনে সে  খেয়াল করেনি।

গভীর ভাবের এই মুভি আপনার চারপাশকে আপনার কাছে ভিন্নভাবে তুলে ধরবে। 

 

৪। রেইন ওভার মি, আইএমডিবিঃ ৭.৫

 

অভিনয়েঃ লিভ টাইলার, অ্যাডাম সান্ডলার।

দুইজন শৈশবের বন্ধুর গল্প নিয়ে এই সিনেমা। এক বন্ধুর চরম কষ্টের সময় ভাগ্যক্রমে আরেক শৈশবের বন্ধুর সাথে দেখা হয়ে যায়। সে পরম মমতায় আগলে রাখে স্ত্রী সন্তানহারা বন্ধুটিকে।

কষ্ট যত বড়ই হোক না কেন তাকে জয় করা যায়। এই মুভি আপনার কাছে এই অসাধারণ উক্তিটি খুব নিপুণভাবে তুলে ধরবে।  

 

৫। টিল ডেট সোম অ্যার ভ্যাকের্ট (পিওর), আইএমডিবিঃ ৭.০

 

অভিনয়েঃ অ্যালিসিয়া ভীকান্দের, স্যামুয়েল ফ্রোলার।

২০ বছর বয়সী ক্যাটরিনা হুট করে একদিন মোজার্ট সঙ্গীতের অনুষ্ঠানে যায়। এর পর সে নিজেকে নতুনভাবে খুঁজে পায় এবং নিজের বিশ্রী অতীত পিছে ফেলে লক্ষ্য অর্জনে দুর্বার গতিতে সামনে এগিয়ে চলে।

সিনেমাটি আপনার বর্তমান বাস্তবতাকে চরমভাবে নাড়িয়ে দিবে এবং জীবনকে একটু আলাদাভাবে সাজাতে অনুপ্রেরণা জাগাবে।

 

৬। হেইভ্যান (ইন অ্যা বেটার ওয়ার্ল্ড), আইএমডিবিঃ ৭.৭

 

শান্ত প্রকৃতির অ্যান্টনের বয়স ৪০ বছর। বহুদিন পর সে আফ্রিকার তার শরণার্থী শিবিরের চাকরীতে ইস্তফা দিয়ে নিজ দেশ ডেনমার্কে ফিরেছে। অতীত জীবনে সে শিখেছে কখনো কারো সাথে উগ্র হিংসাত্মক ব্যবহার করা উচিত নয়। কিন্তু যখন এক মেকানিক অকারণে তাকে মারধর করে এবং তার সন্তান ও বন্ধুরা প্রতিশোধ নিতে চায় সে জটিল ধাঁধাঁর মুখে পরে যায়।

প্রতিশোধ কোন সমাধান বা শেষ হতে পারে না কিন্তু সহ্যশক্তির চরম পরীক্ষা দেয়াও কি উচিত। এই দান্দিক ব্যাপারটি উঠে এসেছে চলচ্চিত্রে।  

 

৭। মাই ওয়ান অ্যান্ড অনল্যি, আইএমডিবিঃ ৬.

 

অভিনয়েঃ রেনে জীলওয়েগার, নিক স্তাহ্ল, এরিক মাক্করমাক, ক্রিস নথ, কেভিন বেকন।

আকর্ষণীয় অ্যানি একজন ধনী স্বামী খুঁজছেন যে তার এবং তার দুই পুত্র সন্তানের দায়িত্বভার নিতে পারবে। এবং তার দীর্ঘ দুঃখের অবসান ঘটিয়ে মিলেমিশে সুখে শান্তিতে একটি আদর্শ পরিবারের মত থাকতে পারবে।

চলচ্চিত্রটি আপনাকে এই বিশাল পৃথিবীতে নিজেকে খুঁজে নিতে এবং পছন্দের ব্যাপারে দায়িত্বশীল হতে অনুপ্রেরণা জোগাবে। 

 

৮। মান্দারিইনিদ (তাঞ্জেরিণ), আইএমডিবিঃ ৮.৩

 

অভিনয়েঃ লেম্বিট উলফস্যাক, গিয়োরজি নাকাশিদজে, এল্মো নুই গানেন।

চলচ্চিত্রটি ১৯৯০ সালে জর্জিয়ার আপখাজেটি এলাকায় হওয়া যুদ্ধের প্রেক্ষাপটে তৈরি হয়েছে। এক চাষি যুদ্ধের সময় ফসল চাষের জন্য তাঞ্জেরিনে থেকে যায়। অনিচ্ছাসত্ত্বেও এক রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে আহত সৈনিককে সে তার নিজের বাসায় আশ্রয় দেয়।

শক্ত মানুসিকতা ও মানবিক দৃষ্টান্তের অসাধারণ একটি চলচ্চিত্র এটি।  

 

৯। হোনিগ ইম কফ (হেড ফুল অব হানি), আইএমডিবিঃ ৬.৭

 

অভিনয়েঃ এমা স্যাচউইগার, ডাইটার হ্যালেরভরদেন।

এগার বছর বয়সী টিডা তার আলঝেইমারে আক্রান্ত দাদাকে নিয়ে ভেনিস যেতে চায়। ৫০ বছর আগে তার দাদা এই ভেনিসেই তার দাদিকে প্রেম নিবেদন করেছিল। তাই তার ধারণা তার দাদা ভেনিসে গিয়ে নিজের স্মৃতিশক্তি ফিরে পাবে।

আমারা কেবলমাত্র তিনটি জিনিস দিয়েই জীবনে যেকোনো কিছু জয় করতে পারি। এই তিনটি জিনিস হল ভালোবাসা, সাহস ও আশা।  

 

১০। ক্যাফে ডি ফ্লোর, আইএমডিবিঃ ৭.৪

 

অভিনয়েঃ ভ্যানেসা প্যারাডাইজ, কেভিন প্যারেন্ট, হেলেনা ফ্লোরেন্ট।

দুইজন ব্যক্তির দুটি ভিন্নধরনের প্রেমকাহিনী ও জীবন নিয়ে নির্মিত হয়েছে এই চলচ্চিত্রটি। দুইজন ব্যক্তির মধ্যে একজন একা মা যিনি তার বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী সন্তান নিয়ে থাকেন এবং অপরজন হল একজন সফল ডিজে যিনি পুরনো ভালোবাসা ভুলতে নতুন ভালোবাসা খুঁজে পেয়েছে।

চলচ্চিত্রটি ভালোবাসার একটি ভিন্ন অর্থ আপনাদের সামনে তুলে ধরবে।



জনপ্রিয়