প্রবাসীদের অবদান বনাম সামাজিক প্রতিদান।   প্রবাসীদের অবদান বনাম সামাজিক প্রতিদান।

প্রবাসীদের অবদান বনাম সামাজিক প্রতিদান।

জীবনযুদ্ধে নেমে জীবিকার তাগিদে অনেক মানুষই বাধ্য হয় দেশান্তরী হতে। আর এই দেশান্তরী হওয়া মানুষগুলোর সুন্দর একটা নাম “প্রবাসী”। কিন্তু সুন্দর জীবনের খোঁজে যাওয়া এই প্রবাসীরা কি আসলেই সুন্দর একটা জীবনের দেখা পায়? আমাদের আজকের আয়োজন এই প্রবাসীদের নিয়ে।

 

বেকারত্ব থেকে বাচাঁর জন্য, কেউ কেউ পড়াশোনার জন্য এক বুক আশা নিয়ে মা , মাটি, দেশ ছেড়ে প্রবাসী হয়েছে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে এক কোটিরও বেশী বাংলাদেশী।

প্রবাসী

প্রবাসী

প্রবাসী

প্রবাসী

প্রবাসী

প্রবাসী

যখনই বাংলাদেশের অর্থনীতির সমৃদ্ধির কথা আসে তখন সবাই একবাক্যে স্বীকার করে নেয় প্রবাসী বাঙ্গালীদের অবদানের কথা। তাদের পাঠানো রেমিটেন্স বাংলাদেশের আয়ের অন্যতম প্রধান উৎস। 

প্রবাসী

প্রবাসী

প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্সের পরিমাণ প্রতি বছর গড়ে ১২ থেকে ১৪ বিলিয়ন ডলার। বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ রিপোর্ট অনুযায়ী, বাংলাদেশের বর্তমান বৈদেশিক রিজার্ভের পরিমাণ প্রায় ৩১,৩৭১ মিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশী। রিজার্ভের দিক দিয়ে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বর্তমানে বাংলাদেশের অবস্থান ২য়। আমাদের অর্থনীতিতে প্রবাসী আয়ের অবদান মোট জিডিপির প্রায় ১১ শতাংশের মত।  

প্রবাসী

প্রবাসী

প্রবাসী

প্রবাসী

প্রবাসীরা যে পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা দেশে পাঠাচ্ছেন তা দেশের মোট রপ্তানি আয়ের প্রায় অর্ধেক। 

প্রবাসী

প্রবাসী

গত ৬ বছরে এশিয়ার অন্যান্য দেশে রেমিটেন্সের পরিমাণ গড়ে যেখানে ছিল ৭.১ শতাংশ, সেখানে বাংলাদেশের ছিল প্রায় ১১ শতাংশ। 

প্রবাসী

প্রবাসী

বাংলাদেশে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন যেভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে তাতে ২০২১ সালের আগেই বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে বলে অনেকেই আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।

প্রবাসী

প্রবাসী

প্রবাসী

প্রবাসী

নিজেদের ভোগবিলাস বিসর্জন দিয়ে নিঃশর্তভাবে দেশের উন্নয়নে অবদান রেখে চলেছেন প্রবাসীরা। কিন্তু বিনিময়ে কি পাচ্ছেন তারা? বস্তুত সমাজের প্রতিটি স্তরে চরমভাবে অবহেলা করা হয় আমাদের এইসব প্রবাসী ভাই/বোনদের। সমাজের উঁচু শ্রেণীর মানুষেরা তাদের কথা শুনলে নাক সিটকায় “কামলা” বলে।

প্রবাসী

প্রবাসী

সরকার ও তেমন কোন দৃষ্টি দেয়না তাদের উপর। প্রবাসে তাদের নিরাপত্তা ও কাজের পরিবেশ নিয়ে উদ্বিগ্ন থাকেনা বাংলাদেশী দূতাবাস। তাদের বিপদেও অনেক সময় তারা পাশে পায়না বাংলাদেশী দূতাবাসকে।

প্রবাসী

প্রবাসী

প্রবাসী

প্রবাসী

প্রবাসী

প্রবাসী

দেশের সুন্দর ও সমৃদ্ধ অর্থনীতির কথা ভেবে সরকারের উচিত এমন নীতিমালা প্রনয়ন করা, যে নীতিমালার ফলে প্রবাসীরা সর্ব্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় সুযোগ-সুবিধা ভোগ করতে পারে এবং দেশের শক্ত অর্থনৈতিক ভিত্তি তৈরিতে সর্বাধিক ভুমিকা পালন করতে পারবে। 

প্রবাসী

প্রবাসী

 

সবাই মনে রাখবেন, ৩০ ডিসেম্বর প্রবাসী বাংলাদেশি দিবস। প্রবাসীদের এই কথাগুলো সবার সাথে শেয়ার করে জানিয়ে দিন। ধন্যবাদ আমাদের পাশে থাকার জন্য।



জনপ্রিয়