টাইটানিক সিনেমা টাইটানিক সিনেমা

টাইটানিক সিনেমা নিয়ে মজার কিছু তথ্য।

১৯৯৭ সালে জেমস ক্যামেরন সৃষ্টি করেছেন সিনেমার ইতিহাসে অন্যতম সেরা সিনেমা 'টাইটানিক'। সিনেমা মুক্তির পর কি ঘটেছিলো তা সবার জানা। সব রেকর্ড ভেঙ্গে চুরমার করে দিয়েছিলো সে একাই। টাইটানিক মুক্তির ২০ বছর পুর্তি হয়ে গেলো এই বছর। 

এখনো কিন্তু সমান আকর্ষণ নিয়ে আমাদের মনে দাগ কেটে আছে টাইটানিক। তার আবেদন একবিন্দুও কমে নাই। আজ আর সিনেমার প্রশংসা নয়। এই সিনেমা নিয়ে কিছু মজার কথা জানাবো আপনাদের।

১। সত্যিকারের টাইটানিকের জ্যাক আর রোজ কিন্তু বেঁচে আছেন। সিনেমার জ্যাককে মেরে ফেলা নিয়ে অনেক বিতর্ক আছে। অনেকেই বলেন ওই কাঠের উপর রোজের সাথে জ্যাকও ভেসে থাকতে পারতো। কিন্তু ক্যামেরন বলেন জ্যাককে কাহিনীর জন্য মরে যেতে হয়েছে।

জ্যাক এন্ড রোজ

জ্যাক এন্ড রোজ

২। সিনেমার জন্য প্রথম কোন দৃশ্যটি শুট হয়েছে বলতে পারবেন? মনে হয় না ধারণা করতে পারবেন। 

দৃশ্যটি হলো রোজের ছবি আঁকার দৃশ্যটি! হ্যা, কারণ তখনও সিনেমার বিশাল সেটের নির্মান কাজ শেষ হয়নি এবং ক্যামেরন অপেক্ষা করতে রাজি নন। তাই তিনি ঐ দৃশ্য দিয়েই শুরু করেন।

ছবি আঁকার মুহুর্তে রোজ

ছবি আঁকার মুহুর্তে রোজ

৩। ছবিটি ঠিক কে এঁকেছিল আন্দাজ করতে পারেন? জেমস ক্যামেরুন। হ্যাঁ! আর কেবল তাই নয়, কেটের পেন্সিল স্কেচটিও এই চিত্রকরেরই করা।

স্কেচ আঁকা হচ্ছে

স্কেচ আঁকা হচ্ছে

৪। দৃশ্যটিতে কাপড় খুলে রাখার পর  ছবি আঁকার আগে জ্যাক তাকে সোফায় শুয়ে পরতে বলে। মজার ব্যাপার হলো কাঁপা কাঁপা কন্ঠে জ্যাকের বলা সেই লাইনটি স্ক্রিপ্টে ছিলো না। কেট উইন্সলেটকে দেখে নার্ভাস ক্যাপ্রিও ওই কথা বলে উঠে যা ক্যামেরন কেটে দেন নি।

নার্ভাস জ্যাক

নার্ভাস জ্যাক

লিওনার্দোর সামনে নগ্ন হতে হবে এটা জানার পর প্রথম সাক্ষাতেই লিওর সামনে নগ্ন হয়ে যান কেট। যাতে লিওর মধ্যে শুটিং চলাকালীন কোনো জড়তা না থাকে।

৫। সিনেমার  শেষের দিকে টাইটানিক যখন ডুবে গয়েছিল, তখন জ্যাক/ক্যাট এবং অন্যান্য অভিনয় শিল্পীদের শরীরে এবং চুলে যে বরফ ছিল, ওইগুলো আসলে বরফ ছিল না। সব ছিল মোম এবং এক ধনের পাউডার যা পানির স্পর্ষে এলেই ক্রিষ্টাল হয়ে যায়।

ডুবে যাচ্ছে সবাই

ডুবে যাচ্ছে সবাই

 

ওয়াশিংটন পোস্ট থেকে নেয়া।

 



জনপ্রিয়