শত শত বছর বেঁচে থাকা পৃথিবী পরিভ্রমণকারী ১২টি দীর্ঘজীবী প্রাণী!                  শত শত বছর বেঁচে থাকা পৃথিবী পরিভ্রমণকারী ১২টি দীর্ঘজীবী প্রাণী!

শত শত বছর বেঁচে থাকা পৃথিবী পরিভ্রমণকারী ১২টি দীর্ঘজীবী প্রাণী!

মানুষের ক্ষেত্রে, আপনি যদি ৯০ বছর বা তার বেশি বয়সী হন তবে আপনাকে অসাধারণ দীর্ঘায়ু বলে মনে করা হয়। কিন্তু, ৯০ বছর বয়সী প্রাণীদের প্রাণী জগতে এখনও শিশুর বয়সী বলে মনে করা হয়! এই প্রাণীগুলোর মধ্যে বেশ কয়েকটি প্রজাতি এতোদিন ধরে পৃথিবীতে বসবাস করেছে যে, ডাইনোসরকে তাদের প্রত্যক্ষ আত্মীয় বলে মনে করা হয়!

টুয়াটারা - ১১০ বছরের বেশি

Source:Internet

Source:Internet

টুয়াটারা নিউজিল্যান্ডে বসবাসকারী একটি ছোট সরীসৃপ। অদ্ভুত মনে হলেও, তারা ২০০ মিলিয়ন বছর আগে পৃথিবীতে বসবাসরত ডাইনোসরের একটি স্বতন্ত্র বংশধর। যদিও আজকাল এই প্রজাতি বিপন্ন হয়ে পড়েছে, এদের মধ্যে অনেকেই দীর্ঘ জীবনযাপন করছে - প্রায় ১১০ বছরেরও অধিক সময় ধরে!

অরেঞ্জ রাফি - ১৪৯ বছর

Source:Internet

Source:Internet

অরেঞ্জ রাফি একটি ধীরে ধীরে ক্রমবর্ধমান, দীর্ঘ জীবন্ত প্রজাতি। তারা আনুমানিক ১৪৯ বছর বাঁচে। কিন্তু, বর্তমানে  অতিরিক্ত মাছ শিকারের (ওভার ফিশিং) কারণে এটি বিপন্ন প্রায়।

জিওডাক - ১৬৮ বছর

Source:Internet

Source:Internet

শামুক প্রজাতির এই সামুদ্রিক প্রাণীর আবাস উত্তর আটলান্টিক মহাসাগর। তবে যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডাতেও পাওয়া যায়। লম্বায় ১ মিটার অর্থ্যাৎ প্রায় ৩ ফুট। এরা প্রায় ১৬০ বছর পর্যন্ত বেঁচে থাকে। ৭০ দশকের মাঝামাঝি থেকে এশিয়ার দেশগুলোতে খাবার হিসেবে চাহিদা থাকায় জিওডাক বর্তমানে বিলুপ্তির পথে।

রেড সি অর্চিন - ২০০ বছরের কাছাকাছি

Source:Internet

Source:Internet

রেড সি অর্চিন সাধারণত লাল হয় কিন্তু খয়েরি বা গোলাপি রঙেরও পাওয়া যায়। এই প্রজাতি শুধুমাত্র উত্তর আমেরিকার পশ্চিম উপকূল বরাবর প্রশান্ত মহাসাগরে পাওয়া যায়। ৩০০ মিটার পর্যন্ত জলের নিচে থাকতে সক্ষম এই প্রাণী অগভীর, পাথুরে স্থানে বসবাস করে। রেড সি অর্চিনের প্রায় ৮ সেন্টিমিটার লম্বা কাটায় ‘নিউরোটক্সিন’ বিষ রয়েছে। এই সামুদ্রিক প্রাণী ২০০ বছরের কাছাকাছি পর্যন্ত বেঁচে থাকে।

বোহেড হোয়েলস - ২১১ বছর

Source:Internet

Source:Internet

বোহেড হোয়েলস লম্বায় প্রায় ৬৬ ফুট ও  ৭৫ থেকে ১০০ টন ওজনের হয়ে থাকে। এই তিমি সাগরের উপরিভাগেই বাচ্চা জন্ম দেয়, যেখানে অন্য তিমি জন্ম দেয় সমুদ্রের গভীরে। বোহেড হোয়েলস ২১১ বছর পর্যন্ত বেঁচে থাকে। এরা যেহেতু গভীর সমুদ্র পছন্দ করে না তাই খুব সহজেই শিকারিদের হাতে মারা যায়।

কোই মাছ - ২২৬ বছর

Source:Internet

Source:Internet

কোই নাম শুনে কৈ মাছের কথা মনে পড়ে গেছে? না সেরকম কিছু না, এই মাছের কোই নাম দিয়েছে জাপানিরা। এই কোই মাছ সাধারণত বাড়ির বাইরে ছোট খাট জলাশয়ে পোষা হয় বাড়ির সৈন্দর্য বৃদ্ধির জন্য। কেননা এদের দেহে থাকে বিভিন্ন রঙ, যেগুলো মূলত সাদা, কালো, লাল, হলুদ, নীল আর ক্রিম রঙের হয়ে থাকে।

সাধারণত, কোই মাছ ৫০ বছর পর্যন্ত বেঁচে থাকে। তবে, হানাকো নামক এই প্রজাতির একটি লাল রঙের মাছ আছে যারা দীর্ঘজীবী মাছ হিসেবে রেকর্ডভুক্ত রয়েছে। ২২৬ বছর বেঁচে থাকা এই মাছ কিভাবে এতোদিন টিকে থাকতে পারে সেটিই এখন অবধি অবাক করার মতো একটি বিষয়।

Lamellibrachia tube worms - ২৫০ বছরের উপরে

Source:Internet

Source:Internet

মেক্সিকোর উত্তরের উপ-সাগর অঞ্চলে বসবাসকারী টিউব আকৃতি Lamellibrachia luymesi কৃমি প্রজাতির এই প্রাণী লম্বায় ১০ ফিট পর্যন্ত হতে পারে। এরা সমুদ্রের অন্ধকার শীতল পানিতে বসবাস করে যেখানে হাইড্রোকার্বন (খনিজ তেল) সমুদ্রের তলদেশ থেকে সবসময়ই বের হতে থাকে। এই প্রাণীর জীবনকাল ২৫০ বছরের উপরে।

মিঠে পানির ঝিনুক - ২৮০ বছর

Source:Internet

Source:Internet

মিঠে পানির এই ঝিনুকের বৈজ্ঞানিক নাম Margaritifera margaritifera, একটি বিলুপ্ত প্রায় ঝিনুক প্রজাতি। এই প্রজাতির ঝিনুক খুব ভাল মানের মুক্তা তৈরি করার জন্য বিখ্যাত। ইতিহাস ঘাটলে দেখা যায় যে এই প্রজাতির শামুক মানুষ প্রতিনিয়ত নিধন করেছে মুক্তা পাওয়ার আশায়। কিন্তু, সেই হারে এদের বংশ বৃদ্ধি ঘটেনি। তাদের জীবনকাল ২৮০ বছর।

গ্রিনল্যান্ড হাঙ্গর - ৪০০ বছর

Source:Internet

Source:Internet

১৬ ফুট পর্যন্ত দৈর্ঘ্যের এই হাঙরের বাস বরফে আচ্ছাদিত আর্কটিক সাগরে। এদের খাদ্য শুশুকদের বাসি বা পঁচা মাংস। অন্যান্য হাঙ্গরের তুলনায় গভীর সমুদ্রের মাছ এরা। বিজ্ঞানীদের একটি দল স্ত্রী প্রজাতির ২৪টি হাঙ্গরের চোখের লেন্সের উপর রেডকার্বন টেস্টিং পরিচালনা করে ৪০০ বছর পর্যন্ত এদের জীবনকাল নির্ধারণ করেছেন। তারা জানান, গ্রিনল্যান্ড হাঙ্গর সবচেয়ে দীর্ঘতম মেরুদন্ডী প্রাণী।

সামুদ্রিক কচ্ছপ - ১৫০ থেকে ১৮০০ বছর পর্যন্ত

Source:Internet

Source:Internet

সামুদ্রিক কচ্ছপ ১৫০ থেকে ১৮০০ বছর পর্যন্ত বাঁচে। সর্বোচ্চ ১৮৮ বছর পর্যন্ত বেঁচে থাকার রেকর্ডও রয়েছে এরা লম্বায় প্রায় ১০ ফুট এবং ওজন প্রায় একশো কেজি পর্যন্ত হতে পারে।

Ocean quahog - ৫০৭ বছর

Source:Internet

Source:Internet

Ocean quahog নামক এই সামুদ্রিক প্রাণীর আবাস হিসেবে পরিচিত উত্তর আটলান্টিক মহাসাগর। এই শামুক প্রজাতির প্রাণীকে আবার বানিজ্যিকভাবেও চাষ করা হয় কেননা অনেকের কাছে এটি একটি সুস্বাদু খাবার। Ocean Quahog এর জীবনকাল নিয়ে কিছুটা ভিন্ন মত আছে, Paul G. Butler et al এর মতে এরা বাঁচে ৫০৭ বছর আর Schone et al এর মতে এরা বাঁচে ৩৭৫ বছর।

জেলী ফিস- অমর!

Source:Internet

Source:Internet

৬৫০ মিলিয়ন বছর ধরে জেলী ফিসের বিচরণ এই গ্রহে। এরা লবণাক্ত পানিতে বাস করে। ৭ ফুট ৬ ইঞ্চি থেকে ১২০ ফুট পর্যন্ত লম্বা হতে পারে। এরা সমুদ্রের ১২০০০ ফুট গভীরে বাস করে। জেলী ফিসের কোন ব্রেইন,মেরুদণ্ড, হার্ট নেই। এরা শরীরের সাহায্য বিশেষ প্রক্রিয়ায় শ্বাস নিয়ে থাকে। পৃথিবীর অনেক সমুদ্রেই জেলী ফিসের দেখা মেলে।

এই 'অমর' জেলিফিশ সঙ্কটের মধ্যেও পুনর্জন্ম করতে পারে। পৃথিবীর অন্যান্য সমস্ত প্রজাতির মতো মৃত্যুর পরিবর্তে, এরা প্রাপ্তবয়স্ক কোষগুলোকে ছোটদের মধ্যে রূপান্তরিত করে। কিন্তু এর মানে এই নয় যে, তারা মারা যায় না। তারা সহজেই শিকারীদের শিকার হতে পারে বা রোগের কারণে মারা যেতে পারে।

আপনার মূল্যবান মতামত কমেন্টে জানাতে ভুলবেন না। সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ...



জনপ্রিয়