দুনিয়া সম্পর্কে এমন অদ্ভুত সব তথ্য আপনাকে হতবুদ্ধ করে দেবে!   দুনিয়া সম্পর্কে এমন অদ্ভুত সব তথ্য আপনাকে হতবুদ্ধ করে দেবে!

দুনিয়া সম্পর্কে কিছু দারুণ দারুণ অদ্ভুত তথ্য আপনাকে হতবুদ্ধ করে দেবে!

বিস্ময়কর এই পৃথিবী, যার আনাচে-কানাচে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে বিস্ময়। পূর্বে এইসব বিস্ময় খুব কম ধরা পড়লেও, প্রযুক্তি ও জ্ঞানের প্রসারের ফলে বর্তমানে পৃথিবীর নতুন নতুন বিস্ময় প্রতিনিয়ত আমাদের সামনে ধরা দিচ্ছে। আজকের আয়োজনে থাকলো এমনই কিছু চমকপ্রদ ঘটনা। অনেক প্রশ্ন আছে যেগুলো শুনতে অদ্ভুত মনে হলেও এদের জবাবগুলো সত্যিই অসাধারণ! 

আজ আমরা আপনাদের কিছু দারুণ দারুণ তথ্য জানাবো যেগুলো জানার পরে আপনিও বলে উঠবেন এমন মজার তথ্য আমি কখনও শুনিনি!

 

২০০১ সালে ইন্ডিয়ার কেরালায় এই বিস্ময়কর বৃষ্টি হয়েছিলো। যার ফলে সবার জামা-কাপড় গোলাপি রঙ ধারণ করে। প্রথমে এটি উল্কা বৃষ্টি বলে ধারণা করা হয়। পরে গবেষণা নিশ্চিত করেছে, লাল রঙের কারণ হলো স্থানীয় প্রজাতির ট্রেন্টোপ্ল্লিয়া থেকে প্রচুর পরিমাণে বায়ুবাহিত স্পোর বাতাসে মিশে গিয়েছিলো। পরবর্তিতে ২০১২ সালে ভারত ও শ্রীলঙ্কাতে এই লাল বৃষ্টি পুনঃসংগঠিত হয়েছিলো।

কেরালায় লাল বৃষ্টি

কেরালায় লাল বৃষ্টি

 

১৮৩৮ সালের ১৪ ডিসেম্বর, বাকিংহাম প্রাসাদের একজন নৈশপ্রহরী একটা নির্জন কক্ষ থেকে আবিষ্কার করেন ময়লা কাপড় পরা এক বালককে। সে দুটি প্যান্ট পরিহিত ছিল এবং প্যান্টের পকেট ভর্তি ছিল রানী ভিক্টোরিয়ার অন্তর্বাস। 

© scalarchives   © wikimedia

© scalarchives © wikimedia

পরে জানা যায় সে প্রাসাদের নানা স্থানে লুকিয়ে লুকিয়ে ছিল, কখনও চিমনির মধ্যে, কখনও আসবাবের নিচে, এবং রাতের বেলা সে প্রাসাদে হেঁটে বেড়াতো। যখন তার খুদা লাগতো সে রান্নাঘর থেকে খাবার নিয়ে খেতো, এমনকি মাঝে মাঝে লন্ড্রিতে নিজের কাপড়ও ধুইয়েছে! সে একবছর এভাবে প্রাসাদে বাস করতে সক্ষম হয়েছিল!

 

চীনের হায়ি দানকুশিয়া জুওলজিক্যাল পার্কের গহিন বনাঞ্চল ঢাকা পর্বতমালাকে ডাকা হয় রেইনবো মাউনটেনস নামে। কারণ এর ভূমিরূপে চোখে পড়ে রংধনুর মতো নানা রঙের বৈচিত্র্য। পর্বতজুড়ে খনিজ আর পাথরের স্তরগুলোতে সাজানো ম্যাজেন্টা বা টকটকে লাল, খয়েরি লাল, হালকা হলুদ ইত্যাদি রঙে।

চীনের রংধনু পর্বত

চীনের রংধনু পর্বত

 

একেকজনের নাভি একেকভাবে অনন্য! একজন ব্যক্তির নাভির মাঝে ২৪০০ ভিন্ন ভিন্ন ব্যাকটেরিয়ার প্রজাতি বাস করে এবং যার অর্ধেকের বেশি বিজ্ঞানের কাছে নতুন বিষয়। এই ব্যাকটেরিয়ার সংমিশ্রণ আমাদের নাভিকে করে তুলেছে অনন্য। বিজ্ঞানীরা একবার আবিষ্কার করেন যে ব্যাকটেরিয়া কেবল জাপানের মাটিতে পাওয়া যায়, জাপান কখনও ভ্রমণ করেনি এবং জাপানের সাথে কোন সম্পর্ক নাই সেই মানুষের নাভিতে সেই ব্যাকটেরিয়ার অস্তিত্ব তারা খুঁজে পান!

© depositphotos.com   © Shutterstock.com

© depositphotos.com © Shutterstock.com

 

অ্যান্টার্কটিকার রহস্যময় এই গর্ত অক্টোবর ২০১৭ সালে নজরে আসে, যা বিজ্ঞানীদের বিস্মিত করে। যার গভীরতা প্রায় ৩০,০০০ বর্গ মাইল। ন্যাশনাল স্নো ও আইস ডেটা সেন্টারের মতে, এই ঘটনাটি "পোলিনয়" নামেও পরিচিত।

অ্যান্টার্কটিকার বরফের গর্ত

অ্যান্টার্কটিকার বরফের গর্ত

 

কাকদের বিচার ব্যবস্থা মানুষের চাইতেও ভাল! কাক সবসময় একসাথে থাকে এবং সংগ্রহীত খাবার সমানভাবে ভাগ করে খায়। যদি কোন কাক লক্ষ্য করে যে দলের অন্য কাক নিজের ভাগের চেয়ে বেশি নেয় তবে সেই কাক সাথে সাথে অপর কাকের উপর বিশ্বাস হারায় এবং একসাথে কাজ করার ইচ্ছা হারায়।

© depositphotos   © getemoji

© depositphotos © getemoji

 

বিশ্বাস করতে হয়তো কষ্ট হতে পারে আপনার। পানির নীচে জলপ্রপাত? এটি মরিশাসের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করেছে, যা পদার্থবিদ্যার সূত্র পরিপন্থী! তবে বিজ্ঞানীরা এটিকে চোখের বিভ্রম বলে আখ্যায়িত করেন।

ডুবো জলপ্রপাত

ডুবো জলপ্রপাত

 

জাপানে ষ্টেশনগুলোতে অফিসের সময়ে অনেক যাত্রীর ভিড় থাকে এবং সেখানে ‘অশিয়া’ নামে কিছু কর্মী আছে, যারা ট্রেনে যাত্রীদের ঠেলা বা ধাক্কা দিয়ে উঠায়। ‘অশিয়া’রা মূলত ছাত্র, তারা পার্ট টাইম কাজ হিসাবে এটি করে থাকে।  

ট্রেন এ যাত্রীদের ধাক্কা দিয়ে উঠানো।

ট্রেন এ যাত্রীদের ধাক্কা দিয়ে উঠানো।

 

জাপানের ক্যাফে গুলো দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য টাকা দিয়ে অনেক কিছুর আয়োজন করে, যেমন ক্যাফের নারী কর্মচারীরা সুন্দরী গৃহপরিচায়িকাদের মত সুন্দর সুন্দর পোশাক পড়ে যা বর্তমানে খুবই জনপ্রিয়। বাড়তি চার্জ দিয়ে ছেলেরা এই ক্যাফের কর্মচারীদের সাথে মাথা গুজাতে পারে, তাদের জড়িয়ে ধরতে পারে, চোখে চোখ রাখতে পারে এবং তাদের দাঁড়ি কামাতে পারে কিন্তু বেশি সময় ধরে নয়।

একটি ক্যাফে যেখানে আবেগপ্রবণতাকে প্রকাশ করতে পারে

একটি ক্যাফে যেখানে আবেগপ্রবণতাকে প্রকাশ করতে পারে

 

টাওয়ার অফ লন্ডনে একটা ফুল টাইম পদবীধারী কাক কর্মরত আছে, কাল দাঁড়কাক ব্রিটেনের জন্য আলাদা অর্থ বহন করে, তাইতো তারা তাদের সকল সুযোগ সুবিধা প্রদান করে। লন্ডন টাওয়ারে কর্মরত কাকের বেতন বছরে ৩১ হাজার ডলার!

© Ravenmaster / @Twitter

© Ravenmaster / @Twitter

 

একটা কক্ষে প্রবেশের পর সেখানে কেন এসেছিলাম সেটা ভুলে যাওয়ার যৌক্তিক কারণ রয়েছে! মনোবিজ্ঞানীদের মতে, একটা দরজা পেরুনোর কর্মকান্ডকে বলা হয় ডোরওয়ে ইফেক্ট - একটা প্রক্রিয়া যা একদল স্মৃতিকে অন্যদলে ভাগ করে ফেলে! আমরা যখন এক কক্ষ থেকে অন্য কক্ষে প্রবেশ করি, আমাদের মস্তিষ্কের স্মৃতিকক্ষে তখনও আগের কক্ষের স্মৃতি আটকে থাকে এবং নতুন রুমে আসার কারণের জায়গাটা খালি থাকে। 

© Inception / @ Warner Bros.

© Inception / @ Warner Bros.

 

সৃষ্টির পর থেকে আজ অবধি পৃথিবী আমাদের প্রতিনিয়ত বিস্মিত করা থামায় নি। আপনি কি এমন কোন ঘটনার সম্মুখীন হয়েছেন? আপনার সংগ্রহে ছবি থাকলে আমাদের সাথে শেয়ার করতে পারেন ও কোন ঘটনা থাকলে কমেন্টে লিখে জানাতে পারেন।

 

কোন ছবিটি আপনার কাছে সবচেয়ে ভালো লেগেছে আমাদের কমেন্টে জানাতে ভুলবেন না। আপনার আশে পাশের যে কোন ভালো কিংবা মজার ছবি যদি আমাদের মাধ্যমে পেইজে অথবা আর্টিকেলে শেয়ার করতে চান তাহলে আমাদের ফাঁপরবাজ পেইজের ইনবক্সে ছবিটি কোথায় উঠানো এবং কে উঠিয়েছেন এই তথ্য সহ মূল ছবিটি পাঠাতে পারেন, পরবর্তিতে আমরা আপনার তোলা ছবি সবার সাথে শেয়ার করব। সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ



জনপ্রিয়