চীনের মহিলাদের সৌন্দর্যের গোপন রহস্য!   চীনের মহিলাদের সৌন্দর্যের গোপন রহস্য!

চীনা মহিলাদের সৌন্দর্যের গোপন রহস্য!

প্রাচীন চীনা সংস্কৃতি বলা হয়েছে, শরীর ও আত্মা হলো অবিচ্ছেদ্য এবং চেহারার সৌন্দর্য হলো সৌন্দর্যের একটি বৈশিষ্ট্য মাত্র। চীনারা ছোটোকাল থেকেই এমনকিছু কাজে অভ্যস্ত যেকারণে চীনের ৪৫ বছরের মহিলাদেরকেও ২২ বছরের তরুণীর মতো দেখায়। কারঙুলো হলোঃ

বেশি পানি পান করা

© pexels   © pexels

© pexels © pexels

চীনা মহিলারা পর্যাপ্ত পানি পান করেন এবং পানি তাদের সাথে বহন করেন। যদি আপনি তাদেরকে এমন কোনো কিছুর নাম জিজ্ঞাসা করেন যা তাদের বেঁচে থাকার জন্য সাহায্য করতে পারে তবে তারা "পানি পানের" কথা বলবে।

সূর্যের তাপে কম সময় কাটানো

© pexels

© pexels

চীনা মহিলারা তাদের ত্বকের প্রতি সচেতন থাকে। অতীতে, ফর্সা চামড়াকে উচ্চ সামাজিক অবস্থার একটি বৈশিষ্ট্য বলে মনে করা হতো। ২১ শতকের দিকে, চীনা মহিলারা নিশ্চিত হয় যে সানস্ক্রীন হলে সর্বোত্তম পদ্ধতিগুলির মধ্যে একটি যা ব্যবহারে দ্রুত বার্ধক্য এড়ানো যায়।

 চা পান করা

© pixabay

© pixabay

চীনা মহিলারা প্রচুর তরল পানীয় পান করেন এবং চা হলো তাদের প্রিয় পানীয়গুলির মধ্যে অন্যতম। বিশেষজ্ঞরা ওলং(oolong), পু-এরে(pu-erh), গোজি এর লাল চা( red tea with Goji) , আস্ট্রাগালাস ফুলের চা(astragalus flower tea), বা জেসমিন চা( jasmine tea) খাওয়ার পরামর্শ দেন। সৌন্দর্য এবং স্বাস্থ্যে এগুলোর ভাল প্রভাব আছে। তাছাড়া চা এ চিনি বা দুধ মেশানোর পরামর্শ দেওয়া হয় না।

পরিকল্পনা

© pexels   © pexels   © pexels

© pexels © pexels © pexels

 প্রতিদিনের কর্মপরিকল্পনা চীনে সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ। চীনা মহিলারা তাদের খাবার এবং ঘুমের সময় নিয়ে খুবই যত্নশীল। লাঞ্চের পর, তারা অল্প ঘুমিয়ে নিতে (এমনকি তাদের কর্মক্ষেত্রে) চেষ্টা করে। আর শিক্ষার্থীরা প্রায়ই ঘুমানোর জন্য লাইব্রেরীতে চলে যায়।

উচ্চ-ক্যালোরি যুক্ত মিষ্টি এড়িয়ে যাওয়া ভাল।

© pexels   © pexels

© pexels © pexels

সবাই জানে যে, চীনাদের রান্নাবান্না যা আমরা অভ্যস্ত তা থেকে ভিন্ন। চীনাদের ঐতিহ্যগত মিষ্টান্নও এই নিয়ম একটি ব্যতিক্রম নয়ঃ এতে মোটেও চিনি থাকেনা। অন্যান্য দেশে যেখানে মিষ্টি দেয়ে খাবার শেষ করা হয়, সেখানে চীনারা তাদের মিষ্টান্ন খাবারের মাঝে বা অলাদাভাবে খেয়ে থাকে। যেমন তারা প্রথমে স্যুপ খায়, এর পরে মিষ্টান্ন তারপর সালাদ খায়।

সামুদ্রিক শৈবাল তাদের খাবারের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ

© pexels

© pexels

চীনা নারীরা প্রচুর পরিমাণে সামুদ্রিক শৈবাল খেয়ে থাকে। যা পাকস্থলী প্রক্রিয়ার গতি বৃদ্ধি করে এবং অতিরিক্ত লবণ শোষণ করে। সামুদ্রিক শৈবালের ফাইবার আপনাকে দীর্ঘসময় সতেজ অনুভব করতে সহায়তা করে এবং ওজন কমানোর জন্য এটি একটি উপযুক্ত বিকল্প। এছাড়াও এর ভিটামিন এবং ক্লোরোফিল ত্বক ভালো রাখে এবং কোলাজেন স্তর উচ্চ রাখে।  সামুদ্রিক শৈবাল প্রোটিন এ সমৃদ্ধ যা দ্রুত বুড়িয়ে যাওয়া তে বাধা দেয়।

শান্ত থাকুন

© pixabay

© pixabay

তাদের মুখের অভিব্যক্তির অভাবও তাদেরকে কম বয়সী দেখানোর অন্যতম কারণ। মুখের পেশী যতটা কম কাজ করবে, মুখে কোঁচকানোর দাগ ও ততো কম পড়বে। শান্ত থাকা এবং মুখের চিন্তাশীল অভিব্যক্তি রাখা বিভিন্ন ঔষধের চাইতে উত্তম।

নির্দিষ্ট মেকআপ ব্যবহার

© pixabay   © pixabay

© pixabay © pixabay

চীনা মহিলাদের মুখ এবং শরীরের যত্নের পণ্যগুলি সবসময় প্রাকৃতিক উপাদান ধারণ করে যা তাদের যৌবনকে দীর্ঘায়িত করতে সাহায্য করে। এই উপাদানগুলো হলো সামুদ্রিক শৈবাল, জিনসেং, ঔষধি নির্যাস, মুক্তার গুঁড়া এবং বিভিন্ন প্রাকৃতিক তেল।

পা একিউপ্রেশার(এক ধরণের মালিশ)

© depositphotos

© depositphotos

চীনা নারীরা শরীরের যত্নে অনেক মনোযোগী এবং পা একিউপ্রেসার তাদের জীবনের একটি অপরিহার্য অংশ। এই ম্যাসেজ চীনা মহিলাদের রূপের অন্যতম কারণ।

একটি জেড বেলন ব্যবহার করে দৈনন্দিন ম্যাসেজ

© pixabay   © pixabay

© pixabay © pixabay

জেড রোলার এর ব্যবহার মুখের রক্ত সঞ্চালন বাড়ায়। অতীতে, দুটি গ্যাজেট ছিল:একটি জেড রোলার একিউপংচারের ম্যাসেজ এবং ফ্ল্যাট জেড পাথর যা মুখের পেশীগুলোর টান কমাতে ব্যবহৃত হতো।

বোনাস

© queenyelin/instagram   © liuxiaoqingfc/instagram

© queenyelin/instagram © liuxiaoqingfc/instagram

এখানে ছবির প্রথম জন চীনের জনপ্রিয় অভিনেত্রী লিউ সাওগিং। তাঁর জন্ম ১৯৫৫ সালে এবং অন্যজন লিউ ইয়েলিন যার বয়স ৫০ বছর। কেউ কি বিশ্বাস করবে তাদের বয়স ২৫ এর বেশি???

আমাদের আয়োজন কেমন লাগলো তা কমেন্টে জানান। সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।

 



জনপ্রিয়