বিজ্ঞানীদের মতে, লম্বা ব্যক্তিদের তুলনায় খাটো ব্যক্তিরাই বেশি রাগী!    বিজ্ঞানীদের মতে, লম্বা ব্যক্তিদের তুলনায় খাটো ব্যক্তিরাই বেশি রাগী!

বিজ্ঞানীদের মতে, লম্বা ব্যক্তিদের তুলনায় খাটো ব্যক্তিরাই বেশি রাগী!

ফকলারের মতে, নেপোলিয়ন খর্বকায় হওয়ার কারণে ক্ষমতার জন্য তৃষ্ণার্ত থাকতেন সবসময়। আকারে খর্ব হওয়ার কারণে নিজের মধ্যে সবসময় হীনমন্যতা কাজ করতো, যা ঢাকবার জন্য তিনি সবসময় ক্ষমতাবান হিসেবে নিজেকে ছাড়িয়ে যেতে চাইতেন রাজ্য জয়ের জন্য।

সাম্প্রতিক সময়ে বিজ্ঞানীরাও একইভাবে দাবি করছে খাটো মানুষরা খুব রাগী হয় এবং এ কারণে তারা আক্রমণাত্বক থাকে। ফাঁপরবাজের পাঠকদের জন্য আজ তাই এ বিষয়ে বিভিন্ন তথ্য তুলে ধরছি-

যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়া রাজ্যের আটলান্টায় অবস্থিত সেন্টার পর ডিজিজ কন্ট্রোলের বিজ্ঞানীরা গবেষণা করে বের করেছেন যে খাটো লোকরা লম্বাদের চেয়ে বেশি রাগী ও রেগে গেলে বেশি ভাঙ্গচুর করে।

১৮ থেকে ৫০ বছর বয়সের ৬০০ মানুষের ওপর গবেষণা করে তারা প্রমাণ পেয়েছে যে খাটোরা লম্বাদের চেয়ে প্রায় তিনগুণ বেশি রাগী। বিশেষ করে পুরুষ মানুষ, যারা খাটো, তারা সবসময় এক ধরণের হীনমন্যতায় থাকেন। যে কারণে তারা বেশি ভায়োলেন্সের দিকে জড়িয়ে যান।

© Jacques-Louis David / Wikimedia Commons

© Jacques-Louis David / Wikimedia Commons

মূলত সামাজিকভাবে খাটো পুরুষদের নিয়ে হাসি-ঠাট্টা তুলনামূলকভাবে বেশি হয়ে থাকে যার ফলশ্রুতিতে খাটো পুরুষরা একটু কম 'পুরুষ' হিসেবে বিবেচিত হয়ে থাকে অনেকের কাছে। আর এসব কারণেই তাদের রাগের পরিমাণ খুব বেশি। খাটোত্বের কারণে তাদের যে মানসিক সমস্যার সৃষ্টি হয় তাকে 'নেপোলিয়ন কমপ্লেক্স' নামেই ডাকা হয়। এটি অষ্ট্রিয়ান সাইকোলজিস্ট আলফ্রেড এডলার ১৯২৬ সালে আবিষ্কার করেন।

২০১৮ সালে নেদারল্যান্ডের আর্মস্টারডামের ভ্রিজে ইউনিভার্সিটির সাইকোলজিস্ট মার্ক ফন ভট ও তার সহযোগী রিসার্চাররা পুরুষদের মধ্যে নেপোলিয়ন সিন্ড্রম থাকার ব্যাপারটি নিশ্চিত করেন। তারা এই উপসংহারে আসেন যে, খর্বাকার পুরুষরা তাদের শারীরিক আকারের কারণে সবসময় আগ্রাসী কথাবার্তা বলেন এবং নিজেকে নিয়ে সবসময় একধরণের দুশ্চিন্তায় থাকেন। নিজেকে সবসময় ছোট মনে করেন।

© Rocky IV / Metro-Goldwyn-Mayer

© Rocky IV / Metro-Goldwyn-Mayer

তবে ২০০৭ সালে ইউনিভার্সিটি অব সেন্ট্রাল লেনশায়ারের রিসার্চাররা দাবি করেছিলেন নেপোলিয়ন সিন্ড্রম আসলে মিথ, এর কোন বাস্তব ভিত্তি নেই। তাদের গবেষণায় দেখা যায় লম্বা মানুষদের খাটোরা আক্রমণাত্বক হয়ে কথা বললে বরং লম্বা মানুষরাই প্রথমে খাটোদের আঘাত করতে এগিয়ে যান।

© Twins / Universal Pictures

© Twins / Universal Pictures

অন্যদিকে, যুক্তরাজ্যের উয়িসেক্স গ্রোথ স্টাডির মতে শিশুর সাইকোলজিকাল ডেভেলপমেন্ট ঠিকভাবে হলে খাটো বা লম্বাত্ব আসলে রাগের ক্ষেত্রে বড় কোন ভূমিকা রাখে না। লম্বাত্ব ও খাটোত্ব নিয়ে নিয়ে আপনার কি ভাবনা? কমেন্টে আমাদের জানাতে ভুলবেন না কিন্তু!



জনপ্রিয়