গান্ধী পরিবারই ভারতের বর্তমান প্রধান বিরোধী দল ন্যাশনাল কংগ্রেসকে এককভাবে নিয়ন্ত্রণ করছে.... গান্ধী পরিবারই ভারতের বর্তমান প্রধান বিরোধী দল ন্যাশনাল কংগ্রেসকে এককভাবে নিয়ন্ত্রণ করছে....

ভারতের গান্ধী পরিবার সম্পর্কে এই অজানা ও গোপন তথ্যগুলোর জেনে অবাক হবেন!

আমরা আজকে ভারতের বিখ্যাত গান্ধী পরিবার সম্পর্কে কিছু অজানা এবং গোপন তথ্য আপনাদের জানাবো। আজকের ভারতে গান্ধী পরিবার অন্যতম শক্তিশালী এবং প্রভাবশালী পরিবার হিসেবে বিবেচিত। গান্ধী পরিবারই ভারতের বর্তমান প্রধান বিরোধী দল ন্যাশনাল কংগ্রেসকে এককভাবে নিয়ন্ত্রণ করছে।

১. মহাত্মা গান্ধী এবং গান্ধী পরিবারের সাথে বাস্তবে কোনো সম্পর্কই নেই।

Scroll.in

Scroll.in

সত্য হচ্ছে গান্ধী পরিবার এবং নেহেরু পরিবারের মধ্যে কোন ধরনের পারিবারিক কিংবা অন্য কোনো যোগাযোগ নেই। কোন ধরনের জিনগত কিংবা রাজনৈতিক নীতি সংক্রান্ত মিল নেই এই দুই পরিবারের মধ্যে। নেহেরু বংশে মূলত গান্ধী উপ নামটি ১৯৪২ সালে যখন ইন্দিরা প্রিয়দর্শিনী নেহেরু ফিরোজ জাহাঙ্গীর গান্ধীকে বিয়ে করেন তারপর থেকে ব্যবহার করা হচ্ছে। ‌অন্যদিকে মহাত্মা গান্ধীর পরিবার তাদের ব্যক্তিগত অধিকার কিংবা শিক্ষাদীক্ষা অথবা রাজনৈতিক সুবিধার ক্ষেত্রে কখনোই গান্ধী নামটিকে জোরালো ভাবে ব্যবহার করেনি। যেখানে মহাত্মা গান্ধীর পুত্র হীরালাল দরিদ্র অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেছিলেন। গান্ধী কখনোই তার পরিবারের একজন সদস্যকে এমনকি বংশধরদের ও কোন ধরনের রাজনৈতিক সুবিধা গ্রহণ করার সুযোগ দেননি।

Internet

Internet

ফিরোজ গান্ধী সম্পর্কিত কিছু মূল ধারার বিপরীতমুখী চাঞ্চল্যকর তথ্য

Scroll.in

Scroll.in

 

১. ফিরোজ গান্ধীর উপনাম গান্ধী শব্দটি মহাত্মা গান্ধীর প্রদত্ত নয়।

২. ফিরোজ গান্ধী মূলত একজন পার্সি ধর্মের অনুসারী। তিনি না কোন খান না মুসলিম!

৩. ফিরোজ গান্ধীর নামটি গান্ধী নামে বহুলভাবে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। মহাত্মা গান্ধীর মতই এই নামটিও ভারতে এবং ইতিহাসে নিজের শক্ত অবস্থান দাঁড় করিয়েছে।

৪. ১৯৩০ সালে মহাত্মা গান্ধীর সক্রিয় স্বাধীনতার যুদ্ধে ফিরোজ গান্ধী যোগ দিয়েছিলেন তখন থেকে তার ইংরেজি নাম Ghandy তিনি পরিবর্তন করে Gandhi রাখেন।

৫. যদিও এই পরিবর্তনে তার হিন্দি উচ্চারণে কোন পরিবর্তন আনেনি বরং গান্ধী নামে তাকে ডাকা হতো। এভাবেই তাদের পরিবারের উপনাম গান্ধী হিসেবে প্রতিষ্ঠা পায়।

thehumornation.com

thehumornation.com

নিয়তির এক নির্মম পরিহাস যেখানে আসল গান্ধীকে উপেক্ষা করা হলো এবং আড়াল করা হলো অন্যদিকে মিথ্যা গান্ধী মহাত্মা গান্ধীর উপ নাম ব্যবহার করে মহাত্মা গান্ধীর ঐতিহ্যকে ধ্বংস করেছে। হয়তো ফিরোজ গান্ধীর আত্মা তার স্বজনদের দ্বারা নাম এর অপব্যবহারে কান্না করছে। তিনি কখনোই নেহেরুর সাথে সহাবস্থানে ছিলেন না বরং তিনি সবসময় নেহেরুর এলআইসি কেলেঙ্কারির বিরোধিতা করেছেন এবং নেহেরুকে ভৎসনা করেছেন। ফিরোজ কখনোই তার স্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীকে বেঁচে থাকা অবস্থায় লোকসভার টিকিট দেননি।

 

২. গান্ধী পরিবারের শিক্ষা এবং যোগ্যতা

thehumornation.com

thehumornation.com

ইন্দিরা গান্ধী ভারতের শান্তিনিকেতনে অবস্থিত বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পড়াশোনা করেছেন। তিনি অক্সফোর্ডে পড়াশোনা করেছিলেন। কিন্তু তার দুর্বল একাডেমিক পারফরম্যান্স এর কারণে সেখান থেকে তিনি ডিগ্রি অর্জন করতে পারেননি। যার কারণ ছিল তিনি ল্যাটিন এর মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে ফেল করেছিলেন।

ThoughtCo

ThoughtCo

রাজীব গান্ধী লন্ডনের ট্রিনিটি‌ কলেজে ইঞ্জিনিয়ারিং এ ভর্তি হলেও পড়াশোনা শেষ করতে পারেনি। পরবর্তীতে তিনি ইম্পেরিয়াল কলেজ এ মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং সাবজেক্টে ভর্তি হন সেখান থেকেও তিনি পড়াশোনা শেষ করতে পারেনি।

ThePrint

ThePrint

রাহুল গান্ধী প্রথমে দিল্লির এসটি স্টিফেন্স কলেজে ভর্তি হন সেখান থেকে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থানান্তরিত হন। এর কয়েক মাস পরই সেখান থেকে ছিটকে পড়েন। পরবর্তীতে তিনি তার পড়াশোনা শেষ করতে রলিনস কলেজে ভর্তি হন সেখান থেকে তিনি ব্যাচেলর অফ আর্টস ডিগ্রী অর্জন করেন। কিন্তু তার নাম রাহুল ভিঞ্চি নামে নথিভূক্ত করা হয়েছিল। পরবর্তীতে রাহুল ট্রিনিটি কলেজ থেকে এমফিল সম্পন্ন করেন যেখানে তার মা সোনিয়া গান্ধী একটা স্নাতক সম্পন্ন করতে পারেনি।

The Sentinel

The Sentinel

 

৩. মুম্বাই হামলার সময় রাহুল গান্ধী খুশিতে লাফাচ্ছিল

Twitter

Twitter

দিল্লির মূল শহর থেকেও দূরে একটি খামার বাড়িতে রাহুল তার বন্ধুদের সাথে আনন্দ-ফূর্তি করছিলেন। ২০০৮ সালে মুম্বাইয়ে ভয়াবহ জঙ্গি হামলার ঠিক পরপর রাহুল গান্ধী দিল্লির খামারবাড়িতে ভোর ৫ টা পর্যন্ত আমোদ-ফুর্তি করেন। তারা সেদিন ক্যাপ্টেন সাতিশ শর্মার ছেলের বিবাহ পূর্ববর্তী অনুষ্ঠান উদযাপন করছিলেন। পরবর্তী সেই বিয়েতে সোনিয়া গান্ধী এবং গান্ধী পরিবারের সকল সদস্য যোগ দিয়েছিলেন যেখানে বিখ্যাত অন্যান্য সকল পরিবার ভয়াবহ হামলার কারণে উৎসবে যোগদান করেননি।

 

৪. ১৯৮৪ সালে শিখ দাঙ্গায় রাজীব গান্ধী এবং তাদের রাজনৈতিক দল কংগ্রেসের ভূমিকা

ThePrint

ThePrint

শিখ দেহরক্ষীর দ্বারা ইন্দিরা গান্ধীর হত্যার প্রতিশোধ ভারতীয় শিকদের বিরুদ্ধে চালানো শেখ বিরোধী দাঙ্গায় কয়েক হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। সে সময় প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে থাকা রাহুল গান্ধী বিষয়টিকে সতর্কভাবে সমাধান না করে বরং উস্কে দেওয়ার চেষ্টা করেছিল। যা তার কোথা থেকে স্পষ্ট বোঝা যায়। তার কথাটি বাংলা অর্থ ছিল " যখন কোন বড় গাছ ভেঙে পড়ে তখন চারপাশের মাটি কাঁপবেই।" যেখানে ইন্দিরা গান্ধীর মৃত্যুতে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া দরকার ছিল সেখানে বেআইনিভাবে এ ধরনের দাঙ্গা হাঙ্গামা উস্কে দেয়া হয়।

 

৫. কেলেঙ্কারি

thehumornation.com

thehumornation.com

ভারতের বর্তমান প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেস গান্ধী পরিবার এর অধীনে ৪৯ বছরের ও বেশি সময় ধরে শাসন কার্য সম্পন্ন করেছে। সবচেয়ে বেশি দুঃখজনক বিষয় হচ্ছে তাদের এই দীর্ঘ শাসনামলে অসংখ্য বড় বড় কেলেঙ্কারি এবং দুর্নীতির ঘটনা ঘটেছে। হাফিংটন পোস্ট নামের একটি সংবাদপত্রে সোনিয়া গান্ধীকে রানী এলিজাবেথ এবং ওমানের সুলতান এর চাইতেও ধনী হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছিল। সুইস ম্যাগাজিনের তথ্য অনুযায়ী রাজীব গান্ধীর প্রকৃত সম্পত্তির পরিমাণ ২.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশি।

সুইস ম্যাগাজিনে প্রকাশিত রাজীব গান্ধীর সম্পদ সংক্রান্ত তথ্য

সুইস ম্যাগাজিনে প্রকাশিত রাজীব গান্ধীর সম্পদ সংক্রান্ত তথ্য

বন্ধুরা আমাদের আয়োজন কেমন লাগলো? আশা করি ভালো লেগেছে। মুল্যবান মতামত জানানোর আবেদন রইলো। সাথে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ....



জনপ্রিয়