অবিশ্বাস্য বিষয়গুলো শুধুমাত্র এক্স-রেতেই দেখা যায়!    অবিশ্বাস্য বিষয়গুলো শুধুমাত্র এক্স-রেতেই দেখা যায়!

অবিশ্বাস্য বিষয়গুলো শুধুমাত্র এক্স-রেতেই দেখা যায়!

কোন এক্স-রের ছবি আপনাকে সবচেয়ে প্রভাবিত করেছে? কমেন্টে আমাদের সাথে শেয়ার করে জানান।

এক্স-রে প্রযুক্তি আবিষ্কারের কল্যাণে, আমরা হাতের নাগালে পেতে পারি এমন সব জিনিস সম্পর্কে স্ক্যান করতে পারছি। একটি অপ্রত্যাশিত দৃষ্টিকোণ থেকে আমরা দৈনন্দিন জিনিস দেখতে পাচ্ছি। আমরা প্রাকৃতিক ঘটনা, মানব দেহের ভিতরের প্রক্রিয়া এবং অসংখ্য প্রাণীদের জীবনের রহস্য উন্মোচন করতে সক্ষম হচ্ছি।   

আজকে আমরা একটি এক্স-রের অধীনে সাধারণ জিনিসের সম্পূর্ণ আশ্চর্যজনক কিছু ছবি আপনাদের সামনে উপস্থাপন করছি।  

 

১. একটি ঘোড়ার জুতায় ৪৮টি পেরেক

© imgur

© imgur

এই ধরনের জুতা ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করা ঘোড়াদের জন্য ব্যবহৃত হতো। একটি মাল্টিলেয়ারের জুতার পেরেক ঘোড়ার খুরে দৃড়ভাবে আবদ্ধ হতো এবং ব্যথায় ঘোড়ার পা আরো সর্বোচ্চ গতিতে দৌড়াতে পারবে বলে মনে করা হতো। পরে, এই খেলাটি নিষ্ঠুর বলে বিবেচিত হয় এবং অনেক দেশে এই প্রতিযোগিতা নিষিদ্ধ করা হয়। কারণ এটি ঘোড়াগুলোকে শারীরিক ও মানসিক অস্বস্তি দিচ্ছিলো।

 

২. কথা বলার সময়

© imgur / @ dafreaquajenkins

© imgur / @ dafreaquajenkins

শুধুমাত্র একটি শব্দ উচ্চারণ করার জন্য প্রত্যেক ব্যক্তি গড়ে ৭২টি পেশী ব্যবহার করে। এই জটিল প্রক্রিয়াটি ছবিতে এক্স-রের মাধ্যমে চিত্রিত হয়েছে। আপনি কি তার ঠোঁট পড়তে পাচ্ছেন এবং এই ব্যক্তিটি কি বলছে তা অনুমান করতে পারছেন?

 

৩. একটি হাই হিল পরা অবস্থায় পা

© reddit / @ spicedpumpkins

© reddit / @ spicedpumpkins

ব্রিটিশ বিজ্ঞানী খুঁজে পেয়েছেন যে হাই হিলের উপর নিয়মিত হাঁটলে পায়ে মোচড়, মাংস পেশী এবং জয়েন্টগুলোতে ক্ষতি, স্নায়ুতে চিমটি কাটা এবং মানসিক ক্ষমতা হ্রাস হতে পারে।

 

৪. বেহালা বাজানো

© imgur / @ fuser84

© imgur / @ fuser84

ভায়োলিন বাজানো মস্তিষ্কের ফাংশনকে বৃদ্ধি করে। এই ঘটনাটি বিশ্বজুড়ে অনেক বিজ্ঞানীদের দ্বারা প্রমাণিত হয়েছে। তাদের মধ্যে অনেকেই এটি চর্চা করতে পছন্দ করেন। উদাহরণস্বরূপ, আইনস্টাইন ছিলেন একজন মহান বায়োলজিস্ট যিনি ৬ বছর বয়স থেকেই বেহালা বাজাতে শুরু করেছিলেন।

 

৫. একটি চুমু

© Vox / @YouTube

© Vox / @YouTube

দীর্ঘসময়ের চুমু ৫৮ ঘণ্টারও বেশী সময় ধরে চলেছে। ২০১৩ সালে, থাইল্যান্ডের এক্কাচাই এবং লাকসানা তিরানারাত ৫৮ ঘন্টা ৩৫ মিনিট ৫৮ সেকেন্ডের জন্য চুম্বন করে দীর্ঘতম চুম্বনের রেকর্ড করেন। এই দীর্ঘ চুম্বন গিনিস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস মধ্যে স্থান পেয়েছে এবং এটি এখনও অটুট রয়েছে।

 

৬. একটি কার্ডিনাল মাছ

© imgur / @73isthebestPRIMEnumber

© imgur / @73isthebestPRIMEnumber

মাছটি যখন প্যাঙ্কটন গ্রাস করে, তখন এটি একটি বিশেষ রাসায়নিক পদার্থ উৎপন্ন করে যা মাছকে আলোকিত করে। এই ধরনের আভা এটির শত্রুদের আকৃষ্ট করতে পারে, তাই মাছটি কি খেয়েছে তা তাৎক্ষণিক বুঝতে পারে। এটি থুথু দিয়ে প্ল্যাঙ্কটনকে বাইর করছে, এক্স-রে ভিতরে এটি দেখে মনে হচ্ছে আগুনের শ্বাস নিচ্ছে। 

 

৭. একটি কুকুর পানি পান করছে

© reddit / @ mike_pants

© reddit / @ mike_pants

কুকুরেরা অন্যান্য প্রাণীদের মত পানি পান করে। তাদের জিহ্বা পানির মধ্যে ঢুকানোর পর, তারা বাইরের দিকে জিহ্বা কুঁচিত করে একটি ছোট চামচের মতো করে তৈরি করে। ফলে, পানির কিছু অংশ কুকুরের মুখের মধ্যে যায়।   

 

৮. একটি গর্ভবতী বিড়াল

© reddit / @ Airick86

© reddit / @ Airick86

এটা চমৎকার। এই গর্ভবতী বিড়ালের গর্ভে ৫টি বিড়ালছানা রয়েছে, যেগুলো তাদের মায়ের মতো সুস্থ ও সুন্দর। একটি বিড়াল সর্বাধিক সংখ্যক ঠিক কয়টি বিড়াল জন্মদান করতে পারে তা সবার কাছেই অজানা, কিন্তু এমন একটি ঘটনা ঘটেছে যেখানে একটি বিড়াল একসাথে ১২টি বিড়ালছানার জন্ম দিয়েছিল।  

 

৯. একটি গর্ভবতী কচ্ছপের ছবি

© imgur

© imgur

আপনি হয়তো জানেন না যে একটি কচ্ছপের শক্ত খোসাটিতে ফসফরাস থাকে। যদি একটি কচ্ছপ সূর্যের নীচে অনেক সময় ধরে থাকে তবে এটি চকচক করবে।

 

১০. তরল পান করার প্রক্রিয়া

© imgur / @ fuser84

© imgur / @ fuser84

ধাক্কা দেওয়ার মাধ্যমে ভোজন বা পান করার কাজ সম্পন্ন হয়। পরিপাক-কৃত ও অপরিপাক-কৃত কার্বহাইড্রেট পেরিস্টালসিস প্রক্রিয়ায় খাদ্যনালি দিয়ে পাকস্থলিতে পৌছায়। পেরিস্টালসিস অর্থাৎ পাকস্থলীর পেশি সংকোচন ও প্রসারণের মাধ্যমে খাদ্যবস্তুকে পিষে মন্ডে পরিণত করে।

 

১১. এক্স-রের অধীনে একটি স্টিংরে

© reddit / @ GallowBoob

© reddit / @ GallowBoob

মান্টা স্টিংরে বিশ্বের বৃহত্তম স্টিংরে হিসেবে বিবেচিত হয় এবং প্রায়শই এটিকে সমুদ্রের শয়তান বলা হয়ে থাকে। এদের ওজন প্রায় ৩ টন এবং দৈর্ঘ্য প্রায় ২৪ ফুট হয়ে থাকে।

 

১২. চীনে একজন নারীকে এক্স-রে মেশিনের সামনের দিক থেকে খুঁজে পেয়েছে

© imgur

© imgur

২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে, দোংগুয়ান ট্রেন স্টেশনে একজন নারী তার জিনিসপত্র নিয়ে এত চিন্তিত ছিলেন যে তিনি ঠিক তার স্টাফ সহ এক্স-রে মেশিনে উঠেছিলেন। এই ছবি সেটার প্রমাণ। তিনি ঠিক কি কারণে তার জিনিসপত্র নিয়ে এতো চিন্তিত ছিলেন তা বুঝা যায়নি। তার ব্যাগের মধ্যে এমন কোন নিষিদ্ধ জিনিসও পাওয়া যায় নি।

 

বোনাসঃ কিছু জিনিস প্রথম নজরে বুঝা যায় না

© reddit / BunyipPouch

© reddit / BunyipPouch

 

কোন এক্স-রের ছবি আপনাকে সবচেয়ে প্রভাবিত করেছে? কমেন্টে আমাদের সাথে শেয়ার করে জানান।



জনপ্রিয়