যে বন্য গাছগুলো আপনার জীবন বাঁচাতে পারে এবং জীবন কেড়ে নিতে পারে  যে বন্য গাছগুলো আপনার জীবন বাঁচাতে পারে এবং জীবন কেড়ে নিতে পারে

যে বন্য গাছগুলো আপনার জীবন বাঁচাতে পারে এবং জীবন কেড়ে নিতে পারে

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রতি বছর গাছের বিষাক্ততার কারণে প্রায় ১০০,০০০ জন লোক হাসপাতালের জরুরী বিভাগে ভর্তি হয়। সেই গাছগুলো দেখতে সুন্দর কিন্তু খুবই মারাত্মক হয়ে থাকে। এটির বিপরীতে, আবার এমন কতকগুলো উদ্ভিদ রয়েছে যেগুলো স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী।

আজকে আমরা বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা সবচেয়ে বিষাক্ত উদ্ভিদ সম্পর্কে সতর্ক করতে এবং কয়েকটি চমৎকার উদ্ভিদের উপকারিতা সম্পর্কে হাইলাইট করতে যাচ্ছি।

 

নিরাপদঃ রাফলেশিয়া ফুল

© loicalex / instagram   © natgeo / instagram

© loicalex / instagram © natgeo / instagram

বিশ্বের বৃহত্তম ফুল রাফলেশিয়া- এটা যেমন চমৎকার তেমনি দরকারি। এটি সাধারণত দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার বনে খুঁজে পাওয়া যেতে পারে, যেখানে এটি পাওয়া যায় সেখানকার মানুষেরা এটি সংগ্রহ করে জন্ম দেওয়ার পর গর্ভবতী নারীর সুস্থতার জন্য (অভ্যন্তরীণ রক্তপাত বন্ধ করতে এবং গর্ভকে সংকুচিত করতে) খাদ্য তালিকাগত পরিপূরক হিসেবে এবং শক্তি সঞ্চয়ের জন্য ব্যবহার করে থাকে।  

দুঃখজনকভাবে, ফুলটি মাত্র কয়েক দিন স্থায়ী হয় এবং দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ১৩ প্রজাতির রাফলেশিয়া বিলুপ্ত হয়ে গেছে।

 

নিরাপদঃ উলফিয়া গ্লবোজা

© 2011fairdinkumseeds / ebay

© 2011fairdinkumseeds / ebay

যদি আপনি কখনও পানির মধ্যে থাকা অবস্থায় খুবই ক্ষুধার্ত অনুভব করেন, তাহলে ডোবা, পুকুরের উপরিভাগে এবং মাঝেমধ্যে মাছের ট্যাংকগুলোতে শোভা বর্ধক হিসেবে ব্যবহৃত এই ছোট্ট উদ্ভিদগুলো আপনার জন্য খুবই ভালো। বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষুদ্র এই উদ্ভিদে অবিশ্বাস্য পরিমাণে পুষ্টিগুণ রয়েছে।  

অনেকেই বলে থাকেন, এটার স্বাদ নাকি বাঁধাকপির মতো মিষ্টি। এটা খেলে আপনার স্বাস্থ্যের কোন ক্ষতি হবে না, কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, বি২, বি৬, সি এবং নিকোটিনিক এসিড রয়েছে এবং এতে মাত্র ৫% ফ্যাট রয়েছে।  

 

নিরাপদঃ অ্যালোভেরা

© wikipedia

© wikipedia

আপনি যদি গুহার ভিতরে বাস করে না থাকেন, তাহলে আপনি নিশ্চয়ই অ্যালোভেরার গুণাগুণ এবং অসাধারণ ব্যবহার সম্পর্কে জেনে থাকবেন। এটি ত্বকের জ্বালা এবং বিভিন্ন রোগের চিকিৎসার কাজে লাগে। এতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে, এটি পুড়ে যাওয়াও নিরাময় করতে পারে।

মেডিসিনে এটাকে একটি ‘আশ্চর্য ফুল’ বলা হয়ে থাকে এবং আপনি এটিকে খাবারে রাখতে পারেন, মুখ এবং চুলের প্রসাধনীর মাস্ক হিসেবে এবং একটি ভেষজ প্রতিকার হিসেবে এটা ব্যবহার করতে পারেন।

 

নিরাপদঃ বুল থিসেল

© wikipedia

© wikipedia

আপনি হয়তো চিন্তা করতে পারেন যে, এই বিশাল কাঁটা-যুক্ত উদ্ভিদটি কিভাবে আমাকে সাহায্য করতে পারে? আসলে এটার শিকড়, কাণ্ড, ফুল এবং কচি পাতা আপনাকে ক্ষুধার্ত থেকে রক্ষা করতে পারে। এটা নিরাপদ এবং খেতে বেশ সুস্বাদু।  

এটি চিকিৎসার ক্ষেত্রেও ঔষধ হিসেবে সাহায্য করতে পারে, যেমন-রক্তপাত বন্ধ করতে।  

 

নিরাপদঃ ক্যামোমিল

© wikipedia

© wikipedia

দুঃখজনকভাবে, এটি আনারসের মত স্বাদ না, কিন্তু এটি হাইকারদের জন্য খাদ্য হিসেবে বেশ কাজে দেয়।  এটি পুরো দিনের জন্য শক্তি বৃদ্ধি প্রদান করতে পারে এবং এটি পুষ্টি পূর্ণ। ক্যামোমিল চা পানের ফলে আপনার শরীর প্রশান্তিতে জুড়ে যাবে, পরিশ্রমের প্রভাব অনেকটাই কেটে যাবে এবং এটি ত্বকের জন্য অত্যন্ত উপকারী।

 

বিপজ্জনকঃ ব্লিডিং টুথ ফাঙ্গাস

© BordDeLac / imgur

© BordDeLac / imgur

মাশরুমের এই ‘রক্তপাতের’ দৃষ্টিভঙ্গি আপনাকে তার বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে সতর্ক করে দেবে। এটা দেখলে আসলেই মনে হয় কোনও একজন মানুষের ক্ষতবিক্ষত দাঁত এবং তা থেকে ফোঁটায় ফোঁটায় রক্ত বের হয়ে আসছে। ইউরোপ এবং উত্তর আমেরিকার প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে এটি পাওয়া যায়, এটি খাওয়ার অযোগ্য (যদিও আসলে বিষাক্ত নয়)। আপনি যদি এটা কামড় দিয়ে দেখার সাহস পান, তাহলে মরিচের মতো তিক্ত স্বাদ পেতে পারেন।

এটা আপনাকে হত্যা করবে না ঠিকই, তবে বমি বমি ভাব এবং গলায় জ্বালা হতে পারে যা আপনাকে পরবর্তীতে পানিশূন্য করবে।

 

বিপজ্জনকঃ লাল কাপ মাশরুম

© BordDeLac / imgur

© BordDeLac / imgur

এটি সাধারণত কাব্যিক নাম ‘লাল রঙের এলিফ কাপ’ নামে পরিচিত। এটি দেখতে যতটা সুন্দর, তেমনি এটা খাওয়ার যোগ্য নয়। আপনি এটির সামনে এগিয়ে যেতে পারেন এবং প্রবাহ থেকে কিছু পানি সংগ্রহের চেষ্টা করতে পারেন - তবে এটির ব্যবহার পরিমিত।

এটি সাধারণত উত্তর আমেরিকার বেশ কয়েকটি এলাকায় মোটামুটি দেখা যায় এবং এটির আধিক্য মানুষের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। এতে আসলেই কোন পুষ্টিগুণ নেই এবং বেশ শুষ্ক।

 

বিপজ্জনকঃ হোয়াইট স্নেক রুট

© wikipedia

© wikipedia

নিষ্পাপের মতো দেখতে সুন্দর এই উদ্ভিদটি ন্যান্সি হংকস, আব্রাহাম লিঙ্কন এর মা এবং আরো অনেকের মৃত্যুর কারণ ছিল। এটা এতো বিষাক্ত যে, গরুর দুধের মধ্য দিয়ে মানুষের শরীরের ভিতরে প্রবেশ করতে পারে। এই বিষাক্ততার লক্ষণগুলো নৃশংস হয়, কখনোবা মৃত্যুর কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

 

বিপজ্জনকঃ এঞ্জেলস ট্রাম্পেট     

© wikipedia

© wikipedia

এটির নাম ‘দেবদূত’ শুনালেও বা দেখতে দারুণ সুন্দর ফুল হলেও, আপনি এটা কখনো কোন পরিস্থিতিতেও পান করতে যাবেন না। খেতে গেলেই যে ভয়াবহতা টের পাবেন তা হলোঃ প্যারালাইসিস, হ্যালুসিনেশন, সহিংস মোহ এবং মৃত্যু হতে পারে। এ উদ্ভিদের বিভিন্ন অংশে মাদকীয় রাসায়নিক রয়েছে, যা মানুষের শরীরে তীব্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে।

আজকাল, অনেকেই তাদের বাগানে এই ফুল চাষ করছে, কিন্তু বাচ্চাদের বা প্রাণীদের এটি খেতে দিবেন না।

 

বিপজ্জনকঃ ডেডলি নাইটশেড

© white_buffalo_trading_company / ebay

© white_buffalo_trading_company / ebay

গাছটির নামেই বোঝা যায় গাছ সম্পর্কে। এই গাছের চারপাশে বাচ্চাদের খেলার বিষয়ে সতর্কতা অবলম্বন করা উচিৎ। কারণ এই ফল খেয়ে দুই বাচ্চার মৃত্যুর খবর জানা গেছে।

 

এগুলোর মধ্যে কোনটি আপনার কাছে বিস্ময়কর লেগেছে এবং আপনি কোন উদ্ভিদটির নিরাময় বা মারাত্মক বৈশিষ্ট্য নিয়ে সন্দেহ করেছিলেন? কমেন্টে আপনার মূল্যবান মতামত শেয়ার করে জানান।  



জনপ্রিয়