ইতিহাসের সবচেয়ে বিখ্যাত বিপ্লবী নেতা    ইতিহাসের সবচেয়ে বিখ্যাত বিপ্লবী নেতা

ইতিহাসের সবচেয়ে বিখ্যাত বিপ্লবী নেতা

আমাদের ইতিহাস বিল্পবের ঘটনায় পরিপূর্ণ। সেই বিপ্লবের ইতিহাসে এমন কয়েকজন বিখ্যাত বিল্পবী নেতা রয়েছেন, যাদের বিপ্লবের মধ্য দিয়ে পৃথিবীর ইতিহাস নতুনভাবে রচিত হয়েছে। 

তাদের নিজস্ব প্রকৃতির মাধ্যমে এই বিল্পবের অবস্থান পরিবর্তিত হয়, মাঝেমধ্যে ভালো আবার মাঝেমধ্যে খারাপের জন্য। আজকে আমরা ইতিহাসের সবচেয়ে বিখ্যাত কয়েকজন বিপ্লবী নেতাদের তালিকা সংগ্রহ করেছি। সেইসাথে ৯ অক্টোবর বিপ্লবের মহানায়ক চে গুয়েভারার ৫১ তম মৃত্যুদিবসে তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করছি।

 

লিয়ন ট্রটস্কি

Source: wikipedia, Image: wikipedia

Source: wikipedia, Image: wikipedia

একজন রাশিয়ান মার্কসবাদী বিপ্লবী এবং তাত্ত্বিক, ট্রটস্কি লাল ফৌজের প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রথম নেতা হওয়ার জন্য বিখ্যাত।  

 

পানচো ভিলা

Source: wikipedia, Image: wikipedia

Source: wikipedia, Image: wikipedia

নামকরা মেক্সিকান বিপ্লবী জেনারেলের পূর্ণ নাম ছিল হোসে দরোতিও আরাঙ্গো আরাম্বুলা।

 

মিনা কিশওয়ার কামাল

Source: wikipedia, Image: wikipedia

Source: wikipedia, Image: wikipedia

সাধারণভাবে তিনি মীনা নামে পরিচিত, তিনি একজন আফগান নারী অধিকার কর্মী ছিলেন, যিনি নারী অধিকারের জন্য বিপ্লবী সমিতি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। ১৯৮৭ সালে মিনাকে হত্যা করা হয়।  

 

এমিলিও আগুইনালদো

Source: wikipedia, Image: wikipedia

Source: wikipedia, Image: wikipedia

আনুষ্ঠানিকভাবে তিনি ফিলিপাইনের প্রথম রাষ্ট্রপতি হিসাবে স্বীকৃত। তিনি ফিলিপাইন বিপ্লবের সময় স্পেনের বিরুদ্ধে এবং পরে ফিলিপাইন-আমেরিকান যুদ্ধের সময় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে তার সেনাবাহিনীকে পরিচালনা করেছিলেন। ১৯৬৪ সালে তিনি ৯৫ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন।

 

জোসে মারিয়া পিনো সুয়ারেজ

Source: wikipedia, Image: wikipedia

Source: wikipedia, Image: wikipedia

একজন মেক্সিকান রাজনীতিক এবং বিপ্লবী, তিনি ১৯১৩ সালে খুন হন। তিনি সারা দেশে গণতন্ত্র ও সামাজিক ন্যায়বিচারের জন্য লড়াইয়ে নিজের জীবন উৎসর্গ করেছিলেন।

 

সান ইয়াৎ সেন

Source: wikipedia, Image: wikipedia

Source: wikipedia, Image: wikipedia

তিনি চীনের প্রজাতন্ত্রের ‘জাতির পিতা’ হিসেবে বিবেচিত, তিনি বিতর্কিত এবং সম্মানিত উভয়ই।

 

 লর্ড বায়রন

Source: wikipedia, Image: wikipedia

Source: wikipedia, Image: wikipedia

জর্জ গর্ডন বায়রন ছিলেন একজন ইংরেজ কবি, যিনি ঋণ ও সম্পর্ক কেলেঙ্কারির কারণে দেশ ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হয়েছিলেন। তিনি কখনো ইংল্যান্ডে ফিরে যাননি এবং অবশেষে অটোমান সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে গ্রীক যুদ্ধের স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন। বর্তমানে তাকে গ্রীসে জাতীয় নায়ক হিসাবে গণ্য করা হয়।    

 

জর্জ ওয়াশিংটন

Source: wikipedia, Image: wikipedia

Source: wikipedia, Image: wikipedia

বিপ্লবী যুদ্ধের সময় একজন আমেরিকান জেনারেল, জর্জ ওয়াশিংটন নতুন জাতির প্রেসিডেন্ট হয়েছিলেন।

 

নেলসন ম্যান্ডেলা

Source: wikipedia, Image: wikipedia

Source: wikipedia, Image: wikipedia

দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ণবাদ বিরোধী বিপ্লবী নেতা নেলসন ম্যান্ডেলা অবশেষে দেশের রাষ্ট্রপতি হয়ে উঠেছিলেন এবং প্রাতিষ্ঠানিকভাবে বর্ণিত জাতীয়তাবাদ ব্যবস্থার অবসান ঘটানোর প্রচেষ্টার উপর তিনি নজর রাখেন।  

 

কার্ল মার্কস

Source: wikipedia, Image: wikipedia

Source: wikipedia, Image: wikipedia

তিনি একজন প্রভাবশালী জার্মান সমাজ বিজ্ঞানী ও মার্কসবাদের প্রবক্তা। তিনি সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবীদের কাছে জনপ্রিয় ছিলেন। বিংশ শতাব্দীতে সমগ্র মানব সভ্যতা মার্কসের তত্ত্ব দ্বারা প্রবলভাবে আলোড়িত হয়েছিল। এই তালিকার অনেক বিপ্লবী ও চিন্তাবিদ মার্কসবাদের দর্শন ও মতাদর্শের উপর ভিত্তি করে গড়ে উঠেছিল। 

 

মুয়াম্মার গাদ্দাফি

Source: wikipedia, Image: wikipedia

Source: wikipedia, Image: wikipedia

মুয়াম্মার গাদ্দাফি কর্ণেল গাদ্দাফি নামে বেশি পরিচিত ছিলেন, তিনি লিবিয়ার একজন বিপ্লবী নেতা ছিলেন, যিনি একটি অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে রাজতান্ত্রিক শাসনকে বিদায় জানিয়ে ক্ষমতা দখল করেছিলেন। যদিও তার জীবনের শেষ দিনগুলো খুবই ভয়াবহ ছিল। তিনি একজন বিতর্কিত নেতা ছিলেন, তিনি রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিক উভয় ক্ষেত্রেই ব্যাপক পরিবর্তন নিয়ে এসেছিলেন। 

 

 অং সান সু চি

Source: wikipedia, Image: wikipedia

Source: wikipedia, Image: wikipedia

তিনি বার্মিজ বিরোধী নেত্রী ছিলেন এবং তিনি অহিংস গণতন্ত্রবাদী আন্দোলনকারী হিসেবে পরিচিত ছিলেন। তার জীবনের বেশিরভাগ সময়ই গৃহবন্দী জীবন পার করেছিলেন। তিনি সারা বিশ্বজুড়ে অনেক সম্মান অর্জন করেছিলেন, যার মধ্যে রয়েছে চতুর্থ ব্যক্তি হিসেবে যিনি যেকোনো সময় কানাডার সম্মানিত নাগরিক হিসেবে বিবেচিত হতে পারতেন। কিন্তু মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের উপর সেনাবাহিনীর নির্যাতনের বিষয়ে নীরব থাকায় আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তিনি সমালোচনার মুখে পড়েন এবং একে একে সবাই সু চিকে দেয়া সম্মানের খেতাব প্রত্যাহার করে নিচ্ছে। কানাডাও সু চির নাগরিকত্ব প্রত্যাহার করেছে।     

 

মহাত্মা গান্ধী

Source: wikipedia, Image: wikipedia

Source: wikipedia, Image: wikipedia

তিনি ব্রিটিশ শাসনকালে ভারতীয় স্বাধীনতা আন্দোলনের সর্বশ্রেষ্ঠ নেতা ছিলেন। গান্ধী সত্যাগ্রহ আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা এবং অহিংস আন্দোলনের প্রতীক হিসেবে আবির্ভূত হয়েছিলেন। অর্থাৎ, এ আন্দোলন প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল অহিংস মতবাদ বা দর্শনের উপর এবং এটি ছিল ভারতীয় স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম চালিকা শক্তি, সারা বিশ্বে মানুষের স্বাধীনতা এবং অধিকার পাওয়ার আন্দোলনের অন্যতম অনুপ্রেরণা।  

 

ফিদেল কাস্ত্রো

Source: wikipedia, Image: wikipedia

Source: wikipedia, Image: wikipedia

বিশ্বের সবচেয়ে ঘৃণ্য এবং সবচেয়ে পছন্দের ব্যক্তির মধ্যে ফিদেল ছিলেন একজন। তিনি নিঃসন্দেহে কিউবান রাজনীতিতে প্রভাবশালী নেতা এবং বিপ্লবী নেতা ছিলেন। তিনি কিউবাকে একটি সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তোলার জন্য নেতৃত্ব দিয়েছিলেন।   

 

 ভ্লাদিমির লেনিন

Source: wikipedia, Image: wikipedia

Source: wikipedia, Image: wikipedia

তিনি ছিলেন একজন মার্কসবাদী রুশ বিপ্লবী এবং কমিউনিস্ট রাজনীতিবিদ। তিনি মৃত্যুর আগ পর্যন্ত সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রিমিয়ার হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। তাকে বিংশ শতাব্দীর প্রধান ঐতিহাসিক ব্যক্তিত্বের মধ্যে অন্যতম হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

লেনিন বিশ্বব্যাপী বিতর্কিত এবং প্রভাবশালী একজন ব্যক্তি হিসেবেও বিবেচিত হয়। তাঁর সমর্থকেরা তাকে গণমানুষের অধিকার আদায় করে যোদ্ধা হিসেবে বিবেচনা করে। অপরদিকে তাঁর প্রতিবাদকারীদের তাকে স্বৈরাচার শাসন ব্যবস্থার প্রবর্তক এবং গৃহযুদ্ধের অভিপ্রায়কারী এবং মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য দায়ী হিসেবে বিবেচনা করে।

তথাপি সোভিয়েত ইউনিয়নের জনক হিসাবে তিনি বিশ্বব্যাপী সুপরিচিত। এছাড়াও মার্কসবাদ-লেনিনবাদ তত্ত্বের প্রবক্তা হিসেবে তিনি বিশ্বের রাজনৈতিক ইতিহাস পরিচিত। লেনিন আন্তর্জাতিক সাম্যবাদী আন্দোলনের এক প্রধান ব্যক্তিত্ব।

 

চে গুয়েভারা

Source: wikipedia, Image: wikipedia

Source: wikipedia, Image: wikipedia

তিনি বিশ্বব্যাপী লা চে বা শুধুমাত্র চে নামেই বেশি পরিচিত। এর্নেস্তো চে গুয়েভারা ছিলেন একজন আর্জেন্টিনীয় মার্কসবাদী বিপ্লবী নেতা ছিলেন, যিনি কিউবা বিপ্লবে প্রধান ভূমিকা রেখেছিলেন। তাঁকে বিংশ শতাব্দীর সবচেয়ে খ্যাতিমান সমাজতান্ত্রিক বিল্পবীদের অন্যতম হিসেবে বিবেচনা করা হয়। মৃত্যুর পর তাঁর শৈল্পিক মুখচিত্রটি একটি সর্বজনীন প্রতিসাংস্কৃতিক প্রতীক এবং এক জনপ্রিয় সংস্কৃতির বিশ্বপ্রতীকে পরিণত হয়।  

 



জনপ্রিয়