নয়টি ব্যাপার আমাদের আর বিশ্বাস করা উচিত নয়  নয়টি ব্যাপার আমাদের আর বিশ্বাস করা উচিত নয়

নয়টি ব্যাপার আমাদের আর বিশ্বাস করা উচিত নয়

কিছু বিষয় আছে যেগুলো আমরা বিশ্বাস করি, কারণ আমাদের আশ-পাশের অনেকেই বিশ্বাস করে তাই! আমরা বিশ্বাসে আগে সত্য-মিথ্যা যাচাই করি না। যেমন আমরা বিশ্বাস করি হাড়ের জন্য দুধ খাওয়া ভালো কিংবা মাউন্ট এভারেস্ট বিশ্বের সবচেয়ে বেশি উচ্চাতাসম্পন্ন পর্বত। আপনিও যদি এমনটা বিশ্বাস করে থাকেন তবে আসুন, এই লেখাটি আপনার জন্যে!

৯. ট্যাবলেট-ক্যাপসুল এগুলো শুধু মানুষের জন্য কার্যকর

© Depositphotos   © Depositphotos

© Depositphotos © Depositphotos

অনেকেই ভাবে যে আসলে ট্যাবলেট-ক্যাপসুল বা পিল শুধু মানুষের জন্য কাজ করে, পশু-পাখির জন্য নয়। এটি ভুল ধারণা। আপনি আপনার পোষা প্রাণী ব্যাথা পেলে তাদের ব্যাথা নিবারণের জন্য ক্যাপসুল বা পিল খাইয়ে দিন, দেখবেন দ্রুতই এটি কার্যকর হয়ে সুস্থতা ফিরিয়ে আনবে পোষা প্রাণীর।

৮. দুধ শরীরে হাড়ের জন্য উপকারী

© Depositphotos   © Depositphotos

© Depositphotos © Depositphotos

বিভিন্ন ডেইরী প্রোডাক্ট কোম্পানী দাবি করে তাদের পণ্য ক্যালসিয়াম দেয় যা হাঁড়ের জন্য খুব উপকারী। কিন্তু বিশ্বাস করুন, আমাদের শরীরের হাঁড়ে ফ্র্যাকচার হলে দুধ সামান্যতম উপকারও করে না! কারণ দুধ থেকে যে ক্যালসিয়াম পাওয়া যায় তা হাঁড়ের জন্য উপকারী নয়। হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা প্রমাণও করেছে যেসব দেশের মানুষ ডেইরী প্রোডাক্ট বেশি তাদের শরীরে ফ্র্যাকচার তুলনায় ডেইরী প্রোডাক্ট না খাওয়া দেশের মানুষের ফ্র্যাকচার অনেক কম হয়।

৭. চকোলেট ব্রণের কারণ

© Depositphotos   © Depositphotos

© Depositphotos © Depositphotos

অনেক মানুষ চকোলেট খায় না কারণ তারা শরীরের স্কীণে ব্রণ হবে এই ভয় পান। কিন্তু এটি আসলে সত্য নয়! গবেষকরা প্রমাণ করেছে চকোলেট শরীরের ত্বকের জন্য ক্ষতিকর নয়।

৬. যদি শরীর চর্চার জন্য দৌঁড়ান তবে প্রতিদিন দৌঁড়াতে হবে

© Depositphotos   © Depositphotos

© Depositphotos © Depositphotos

বিজ্ঞানীরা গবেষণা করে বের করেছে প্রতিদিন শরীর চর্চার উদ্দেশ্যে দৌঁড়ালে সেটি স্বাস্থের জন্য উপকারী নয়, বরং ক্ষতিকর। বেশি দৌঁড়ানোর ফলে হার্টে সমস্যা, উচ্চরক্তচাপ, আলজেইমা, বয়সবৃদ্ধির সাথে সাথে অপরিপক্ক বাড়বে। যদি দৌঁড়ান, তবে ঘন্টায় ৫ মাইল গতিতে দৌঁড়াতে হবে। বিজ্ঞানীরা সাজেস্ট করেছেন প্রতি সাপ্তাহে ৩ বা ৪ দিন সব মিলিয়ে ১৯ মাইল দৌঁড়াতে।

৫. ব্ল্যাক হোল আসলেই গর্ত!

© Depositphotos

© Depositphotos

অনেক মানুষ ভাবে ব্ল্যাক হোল আসলেই গর্ত। আসলে এগুলো মহাকাশের বস্তুসমূহ যেখানে মহাকর্ষ খুব দ্রুতগতিতে টানে, যা আলোর গতির চেয়েও দ্রুততর। শুধু টেলিস্কোপই এগুলো দেখতে সহায়তা করে এবং ব্ল্যাক হোলের আশেপাশে যে কোন বস্তু সাধারণের চেয়ে ভিন্ন আচরণ করে। এরা অন্যান্য তারকার চেয়ে ভিন্ন আচরণ করে।

৪. মঙ্গলগ্রহ লাল

© NASA/ JPL

© NASA/ JPL

অনেকেই ভাবে মঙ্গলগ্রহ লাল গ্রাহ। ১৯৭০-এ নাসার ভাইকিং ১ সর্বপ্রথম মঙ্গলে নামে এবং ছবি পাঠায়। প্রাথমিক পর্যায়ে ছবিগুলো নীল আকাশেরই সন্ধান দেয়, গোলাপী আকাশ নয়! পরবর্তীতে বিভিন্ন অ্যাঙ্গেলের ছবি পেয়ে নাসা স্বীকার করেছে মঙ্গলের বিভিন্ন অংশ নীল ও ধূসর।

৩. মাউন্ট এভারেস্ট পৃথিবীর উচ্চতম পর্বত

Mount Everest

Mount Everest

নিঃসন্দেহে অনেক মানুষ ভাবে মাউন্ট এভারেস্ট পৃতিবীর সবেচেয়ে উঁচু পাহাড়। এটি ঠিক যে সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে সবচেয়ে উঁচু পর্বত এটি, কিন্তু হাওয়াইয়ের মাউনা কিয়া সমুদ্রের নিচে থেকে উচ্চতা হিসেবে সবচেয়ে উঁচু পর্বত!

২. রাবার টায়ারযুক্ত গাড়ীর ভেতরে বজ্র্যপাতের সময় বিপদমুক্ত থাকা যায়

© Depositphotos   © Depositphotos

© Depositphotos © Depositphotos

অনেকেই বিশ্বাস করে বজ্র্যপাতের সময় রাবার টায়ারযুক্ত গাড়ীর ভেতরে মানুষ বিপদমুক্ত থাকে। এটি আসলে মিথ। আসলে যে কোন কার/গাড়ী-ই এ সময়ে বিপদমুক্তির স্থান হতে পারে যদি তা মেটালের তৈরী হয়। তবে শর্ত হলো দরজা-জানালা সব বন্ধ থাকতে হবে।

১. সাহারা মরুভূমি বিশ্বের সবচেয়ে বড় মরুভূমি

© Depsitphotos   © Depositphotos

© Depsitphotos © Depositphotos

আপনি যদি কাউকে জিজ্ঞেস করেন পৃথিবীর সবচেয়ে বড় মরুভূমি কোনটি? উত্তর পাবেন সাহারা মরুভূমি। আসলে এটি ভুল উত্তর। ভুল হওয়ার কারণ হলো আমরা ভাবি মরুভূমি শুধু প্রচন্ড গরম আর বালুময় জায়গা। আসলে মাইলের পর মাইল বরফঘেঁষা এলাকাও মরুভূমি! সে হিসেবে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় মরুভূমি হলো অ্যান্টার্কটিকা।

এই লেখাটি পড়ার আগে আপনি কোন কোন মিথটি বিশ্বাস করতেন? কমেন্টে জানিয়ে দিতে পারেন আমাদের। এমন আরো তথ্যসমৃদ্ধ লেখা পেতে আমাদের সাথেই থাকুন।



জনপ্রিয়