সর্বাধিক প্রচলিত ভ্রান্ত ধারণাগুলো যা সবাই বিশ্বাস করে! সর্বাধিক প্রচলিত ভ্রান্ত ধারণাগুলো যা সবাই বিশ্বাস করে!

সর্বাধিক প্রচলিত ভ্রান্ত ধারণাগুলো যা সবাই বিশ্বাস করে!

অনেক সময় আমরা গান করতেই থাকি এবং গান শেষে বুঝতে পারি আমাদের গানের লাইনে ভুল ছিল! তখন আর ভালো লাগে না। ঠিক একইভাবে আমরা এমন কিছু বিশ্বাস করি যা সত্য নয় এবং অনেক বছর পরে গিয়ে সত্যটা জানতে পারি, যা আমাদের বেশ কষ্ট দেয়। আমাদের কিছু ভুল ধারণা রয়েছে যে দুনিয়া আমাদেরকে বিশ্বাস করতে চায়, এবং আমরা করি।

তবে, এসব ধারণার সবকিছু ভুল হয় না, কিছু অংশ সত্য হয়। সর্বাধিক প্রচলিত ভ্রান্ত ধারণাগুলো যা সবাই বিশ্বাস করে এগুলো নিয়েই আমাদের আজকের এই আয়োজন।

 

১. টমাস ক্রাপার ফ্ল্যাশ টয়লেট উদ্ভাবন করেন!

source: internet

source: internet

২৬ খ্রিস্টপূর্ব শতাব্দীতে সিন্ধু সভ্যতার ইতিহাস ঘেঁটে দেখা যায় তখনই ফ্ল্যাশ টয়লেট ব্যবহার করা হতো। টমাস ক্রাপার ফ্ল্যাশ টয়লেট উদ্ভাবন করেন বলে যে ধারণাটি মানুষ বিশ্বাস করেন তা আগাগোড়াই ভুল।

 

২. সূর্যের রং হলুদ!

source: internet

source: internet

 

যদি আপনি সূর্যকে বায়ুমন্ডলীয় হস্তক্ষেপ ছাড়া দেখতে পারেন, আপনি বুঝতে পারবেন যে এটি আসলে সাদা। আপনার বিশ্বাস না হলে আপনার পরিচিত কোন মহাকাশচারীকে এর ব্যাপারে জিজ্ঞেস করতে পারেন। উনারা তো আমাদের চেয়ে অনেক কাছ থেকে দেখেছেন। আমরা অনেক দূর থেকে দেখি বলে একে দেখতে হলুদ লাগে।

 

৩. আইনস্টাইন গণিতে ফেল করেছিলেন!

source: internet

source: internet

 

না, কখনোই না। আইনস্টাইন গণিতে খুব দক্ষ ছিলেন। সুইস ফেডারেল পলিটেকনিক স্কুলে প্রবেশের পরীক্ষার প্রথম প্রচেষ্টা ব্যর্থ হলে তার সম্পর্কে এই ভুল ধারণা শুরু হয়। যদিও সেই সময় যারা পরীক্ষা দিয়েছিলেন তাদের সকলের চাইতে তিনি ২ বছর ছোট ছিলেন।

 

৪. মধ্যযুগ পর্যন্ত মানুষ মনে করত পৃথিবী সমতল!

source: internet

source: internet

৩০০ খ্রিস্টপূর্ব আগে প্লেটো ও অ্যারিস্টট্লের সময়ে মানুষ বিশ্বাস করত আমাদের এই পৃথিবী সমতল। এর প্রায় মানুষ আস্তে আস্তে বিশ্বাস করা বিশ্বাস করা শুরু করে যে আমাদের পৃথিবী আসলেই গোল।

 

৫. আমাদের শিরায় নীল রক্ত আছে!

source: internet

source: internet

আমাদের নীল শিরা আছে এই ভুল ধারণা এখনও অনেক মানুষ বিশ্বাস করে। যাইহোক, এটি আবারও আলোর হস্তক্ষেপ যা আমাদেরকে তা দেখায়। অক্সিজেনের মাধ্যমে বিশুদ্ধ হওয়া রক্তের রং লাল, গাঢ় লাল। আলোর কারণে অনেক সময় আমাদের শিরা নীল দেখায়।

 

৬. পৃথিবী সূর্যের চারদিকে ঘুরে বেড়াচ্ছে!

source: internet

source: internet

সত্যিই, এটা বড় একটা ভুল ধারণা। এটি প্রকৃতপক্ষে সৌরশক্তি কেন্দ্রের ভরকে কেন্দ্র করে ঘুরে যা বেয়ার সেন্টার নামে পরিচিত। তাই আজকে থেকে এই ভুল ধারণা রাখবেন না।

 

৭. ড্যাডি লং লেজ সর্বাধিক ঝুঁকিপূর্ণ মাকড়সা!

source: internet

source: internet

তারা মানুষের চামড়া ফুটো করে বিষ ঢালতে পারে, কিন্তু তারা অনেক অনেক বেশি বিষাক্ত না। এই মাকড়সার কামড়ে আপনার সেই জায়গাটা জ্বলবে, কিন্তু আপনি মারা যাবেন না!

 

৮. হেনরি ফোর্ড অটোমোবাইলের আবিষ্কারক!

source: internet

source: internet

কার্ল বেনয আধুনিক গাড়ির প্রকৃত উদ্ভাবক হিসেবে পরিচিত।  হেনরি ফোর্ড শুধু সামান্য পরিবর্তন করেন এবং সবকিছুর উন্নতি সাধন করেন। তবে তিনি প্রকৃত উদ্ভাবক নন।

 

৯. সূর্যমুখী শুধু সূর্যের দিকে মুখ ঘুরিয়ে থাকে!

source: internet

source: internet

এটার অধিকাংশ সত্যি, তবে সম্পূর্ণ সত্যি না। যতক্ষণ পর্যন্ত না ফুলের মাথা খুলছে ততক্ষণ এটি সূর্যের দিকে মুখ করে থাকে। এরপর মুখ খোলার পর থেকে তারা সারাদিন পূর্বমুখী হয়ে থাকে।

 

১০. গিরগিটি পরিস্থিতি অনুযায়ী রং পরিবর্তন করে!

source: internet

source: internet

গিরগিটি এরকম কোন কিছুই করে না। তারা অবশ্যই রং পরিবর্তন করে, তবে তা যোগাযোগ করার জন্য। বিপদ দেখে যে তারা রং পালটায় এই ধারণাটা সম্পূর্ণ ভুল।

 

১১. অরেঞ্জ(ফল) অরেঞ্জ(রং)-এর কারণে নাম রাখা হয়েছে!

source: internet

source: internet

অরেঞ্জ বা কমলা ফলের নামকরণ অরেঞ্জ বা কমলা রং-এর কারণে করা হয়েছে এটাও সম্পূর্ণ ভুল একটা ধারণা। আসলে উল্টোটাই সত্যি।অরেঞ্জ বা কমলা রঙের নামকরণ অরেঞ্জ বা কমলা ফল-এর কারণে করা হয়েছে!

 

১২. যেসব মানুষ ডুবে যাওয়ার সম্মুখীন হয় তারা বাঁচার চেষ্টা করে এবং হাত নাড়াতে পারে!

source: internet

source: internet

এটা সম্পূর্ণই মিথ্যা। আপনার মাত্র ২ ফুট দূরে কেউ ডুবে যেতে পারে এবং আপনি বুঝতেও পারবেন না। আসলে মানুষ দুষ্টুমি করছে মনে করে ডুবন্ত মানুষকে বাঁচায় না। স্বতঃস্ফূর্ত ডুবন্ত প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে জানতে এখনই সঠিক সময়।

 

আমাদের লক্ষ্য থাকে সবসময় নতুন কিছু আপনাদের জানানোর। আপনারা জানতে পারলে আমাদের আয়োজন সফল হয়।

আমাদের আয়োজন ভালো লাগলে লাইক, কমেন্ট, শেয়ারের মাধ্যমে আমাদের সাথেই থাকুন। আমাদের পাশে থাকার জন্য ধন্যবাদ।



জনপ্রিয়