পৃথিবীর সবচেয়ে বিপজ্জনক রাস্তা

এই দীর্ঘ কারাকোরাম মহাসড়কটি বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু আন্তর্জাতিক মহাসড়ক হিসেবে বিবেচিত হয়। এই দীর্ঘ কারাকোরাম মহাসড়কটি বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু আন্তর্জাতিক মহাসড়ক হিসেবে বিবেচিত হয়।

আমরা পৃথিবির বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা সবচেয়ে বিপদজনক এবং রোমাঞ্চকর রাস্তার তালিকা সংগ্রহ করেছি। এই রাস্তাগুলোর মধ্যে কতকগুলো আছে গভীর গর্তে পাশে নিয়ে কয়েক কিলোমিটার উচ্চতায়, একাকী মরুভূমির মধ্যে, হলের উপর কিংবা পাহাড় পর্বতের মধ্যে অবস্থিত। 

আমরা বিশ্বের সবচেয়ে অকল্পনীয় রাস্তার মধ্য দিয়ে ভ্রমণ করার জন্য আপনাদের আমন্ত্রণ জানাচ্ছি, বিশেষকরে তাদেরকে যারা নির্ভয়ে অ্যাডভেঞ্চার করতে পছন্দ করেন।

গুওলিয়াং টানেল, চীন

© imgur © imgur

গুওলিয়াং টানেলটি ১.২ কি.মি (০.৭৫মাইল) দীর্ঘ এবং একটি পর্বতশৃঙ্গ এলাকার মধ্য দিয়ে তৈরি করা হয়েছে। ১৯৭০ সালে গ্রামের অধিবাসীরা এটি নির্মাণ করেন এবং তারা শুধুমাত্র নিজ নিজ হাতে হাতিয়ার ব্যবহার করে খিলান গর্তগুলো খনন করেছেন। সুড়ঙ্গের প্রস্থ প্রায় ৪ মিটার (১৩ফুট), তাই চালকদেরকে অত্যন্ত সতর্কতা অবলম্বন করা আবশ্যক।

ম্যাকলং রেলওয়ে বাজার, থাইল্যান্ড

© Jennifer Lien/flickr  © Jennifer Lien/flickr

প্রথম দর্শনে ম্যাকলং বাজারটি থাইল্যান্ডের অন্যান্য বাজারের মতোই দেখতে, কিন্তু যখন আপনি ট্রেনের হুইসলের শব্দ শুনতে পারবেন তখন সেই বাজারের দৃশ্যটা পাল্টে অন্যরকম হয়ে যায়। বিক্রেতারা কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে তাদের জিনিসগুলো গুটিয়ে সরিয়ে নেয় এবং ট্রেন যাওয়ার জন্য রাস্তা করে দেয় যা ঘন্টায় প্রায় ১৫ কি.মি গতিতে ছুটে যায়।

ইয়ুঙ্গাস রোড, বলিভিয়া

© wikimedia  © wikimedia

ইয়ুঙ্গাস রোডটি বলিভিয়ার শহর লা পাজ এবং করইকো শহরের মধ্যে সংযোগ সড়ক হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। এটি সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৩,৩০০ থেকে ৩৬০ মিটার উচ্চতায়(২ মাইল থেকে ১,১৮১ ফুট)উত্তরণ করে, এবং এটি অনেকগুলো ছিদ্রপথ তৈরি করে। এই রাস্তাটি খুবই সংকীর্ণ হওয়া সত্ত্বেও ট্রাকগুলো পরস্পরকে অতিক্রম করার জন্য চালনা করেন।

আয়ার হাইওয়ে, অস্ট্রেলিয়া

© russellstreet/flickr  © russellstreet/flickr

এই সড়কপথটি দেখে অনেকের হয়তো কল্পনা করতে কষ্ট হবে, এটি সত্যিই বিপদজনক হতে পারে। তবে অস্ট্রেলিয়ার ১,৬০০কি.মি(৯৯৪ ফুট) প্রসারিত সড়কটিতে অনেক দুর্ঘটনার ঘটনা ঘটেছে, যা স্থানীয় এলাকা থেকে অনেক দূরে অবস্থিত এবং সত্যিই অনেক দীর্ঘ এই সড়কপথটি। কারণটা খুবই স্বাভাবিক- এখানের দীর্ঘ এই প্রাকৃতিক দৃশ্যটা এতটাই একঘেয়ে হয় যে চালকেরা একসময় অবস্বাদগ্রস্থ হয়ে ঘুমে ঢলিয়ে পড়েন। আর তখনই ঘটে যায় দুর্ঘটনাটি।

শয়তানের নাক রেলওয়ে, ইকুয়েডর

© structuralia/twitter  © structuralia/twitter

‘নোস অব দ্য ডেভিল’ বা শয়তানের নাক রেলওয়েটি একই নামের ৮০০ মিটার (২,৬২৪ ফুট) উঁচু পাহাড়ের উপর নির্মিত হয়। আগে পর্যটকেরা চলমান মালবাহী গাড়ীর ছাদের উপর চড়তে পারতেন কিন্তু বর্তমান সময়ে এটি নিষিদ্ধ করা হয়েছে।  

পাম্বান রেলওয়ে সেতু, ভারত

© Feng Zhong/flickr  © Feng Zhong/flickr

পাম্বান সেতুটি ভারতের মূল ভূখন্ডের সাথে পাম্বান দ্বীপের সাথে সংযোগ স্থাপন করে। ১৯৬৪ সালে শক্তিশালী বায়ুপ্রবাহ দ্বারা সেতুটি ধ্বংস হয়ে গিয়েছিলো। এই কারণে এখন বাতাসের গতি ঘন্টায় ৫৫ কি.মি অতিক্রম করলে ট্রেনগুলো সম্ভাব্য বিপদের বিশেষ সতর্কবার্তার সংকেত লাভ করে।

কারাকোরাম হাইওয়ে, পাকিস্তান – চীন

© depositphotos  © depositphotos

১,৩০০ কি.মি(৮০৭.৭ ফুট) দীর্ঘ এই কারাকোরাম মহাসড়কটি বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু উচ্চতার আন্তর্জাতিক মহাসড়ক হিসেবে বিবেচিত হয়। এটির একটা অংশ  ৪,৬০০মিটার (১৫,০৯১ ফুট) এরও বেশি উচ্চতায় অবস্থিত। এই হাইওয়ে চীন ও পাকিস্তানকে যুক্ত করেছে। গ্রীষ্মকালে বর্ষাকালীন বৃষ্টির কারণে এখানে ভূমিধসের ঘটনা ঘটে থাকে। শীতকালে আবহাওয়ার অবস্থা এবং সম্ভাব্য হিমবাহের কারণে এই মহাসড়কটি বন্ধ থাকে।  

লেহ-মানালি হাইওয়ে, ভারত

© wikipedia  © wikipedia

লেহ-মানালি হাইওয়ে কয়েকটি উঁচু পাহাড়ের মধ্য দিয়ে অতিক্রম করেছে, এটি ৪ থেকে ৫ কি.মি (১৩,১২৩ থেকে ১৬,৪০৪ ফুট) উচ্চতায় অবস্থিত। এই রাস্তাটি অত্যন্ত সংকীর্ণ, কিন্তু এই সংকীর্ণ রাস্তা গাড়ীর চালকদেরকে দ্রুত বেগে গাড়ী চালানো থেকে রুখতে পারে না।

তিয়েনমেন পর্বত রাস্তা, চীন

 © Liu Tao/flickr  © Liu Tao/flickr

৯৯টি বাঁকানো মোড়ের সাথে ১১ কি.মি দীর্ঘ একটি রাস্তা তিয়েনমেন পর্বতের শীর্ষে অবস্থিত, যেখানে বৌদ্ধ মন্দির অবস্থিত। কিছু কিছু জায়গায় দুটি বক্রের দূরত্ব ২২০ মিটারেরও (৬৫৬ ফুট) কম, তাই চালকদেরকে অত্যন্ত সাবধান থাকতে হয়।

সালার ডি উইনির মধ্যে রাস্তা, বলিভিয়া

© Marco Verch/flickr© Marco Verch/flickr

এই হাইওয়েটি সমুদ্র পৃষ্ঠ থেকে ৩,৬৫০ মিটার(১১,৮১১ ফুট) উচ্চতায় অবস্থিত শুষ্কমরুভূমি সালার ডি উইনির মধ্য দিয়ে অতিক্রম করেছে। স্থানীয় প্রাকৃতিক দৃশ্য খুবই অস্বাভাবিক যে, এখানে সহজেই হারিয়ে যেতে পারে এবং সেল ফোনও এখানে বেশিরভাগই অকার্যকর।

আকাশচুম্বী ক্যানিয়নের মধ্য দিয়ে রাস্তা, নিউজিল্যান্ড

© Bernard Spragg. NZ/flickr  © Bernard Spragg. NZ/flickr

অসংখ্য গর্ত এবং খাড়া বাঁধ, অত্যধিক অবতরণ, হঠাৎ বাঁকা মোড়, ঝুলন্ত ব্রিজ এবং সংকীর্ণ রাস্তা আকাশচুম্বী ক্যানিয়নের মধ্য দিয়ে অতিক্রম করেছে। যারা এই রাস্তা দিয়ে অতিক্রম করতে চায়, তাদের জন্য স্থানীয় গাড়ি ভাড়া সংস্থাও বীমা প্রদান করে না।

জেমস ডব্লিউ ডেল্টন হাইওয়ে, আলাস্কা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

© Alaska DOT&PF/flickr

শুধুমাত্র এই ৬৬৬ কিলোমিটার (৪১৩.৮ মাইল) মহাসড়কের ১৭৫ কি.মি (১০৮.৭ মাইল) রাস্তা বিটুমেন দিয়ে আবৃত থাকে । হাইওয়ে জুড়ে শুধুমাত্র ৩ টি বসতি,৩ টি পুনর্বাসন কেন্দ্র এবং শুধুমাত্র ১ টি মেডিকেল সেন্টার রয়েছে। এই রাস্তায় প্রবেশ করে এমন প্রত্যেকের জন্য আলাস্কার কঠিন অবস্থার মধ্যে বেঁচে থাকার জন্য স্থানীয় পুলিশ বাহিনী প্রয়োজনীয় সবকিছু পরিদর্শন করে থাকে।

মেঘের কাছে ট্রেন, আর্জেন্টিনা

© Lep/flickr © Lep/flickr

২১৭ কি.মি (১৩৪.৮ মাইল) রেলপথ ভ্রমণের সময় ট্রেনটি ২১টি টানেল, ৪২টি ব্রিজ এবং রেলপথের জন্য দীর্ঘ সেতু, ২টি পেঁচানো মোড় এবং ২টি আঁকাবাঁকা রেখা অতিক্রম করতে হয়। রাস্তার এই রোমান্টিক নামটি দেওয়া হয়েছিল তার উচ্চতা থেকে কিছু অংশে অবস্থিত হওয়ার কারণে। এটি এতটাই উঁচুতে অবস্থিত যে মাঝে মাঝে ট্রেনগুলি মেঘের মধ্য দিয়ে যায়।

ব্রাইট সাইড থেকে অনুদিত।

Share This Post