বনের মধ্যে ছুটি ভালো কাটানোর ১২ টি নিয়ম

বনের মধ্যে ছুটি বনের মধ্যে ছুটি

আবহাওয়া যখন ভালো থাকে তখন অনেকেই শহরের বাইরে প্রকৃতির বনের মধ্যে সময় কাটাতে যায়।

আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, অবকাশের সময় আপনার ভ্রমণ একেবারে নিখুঁত করার এবং অপ্রীতিকর পরিস্থিতি আপনি কিভাবে মোকাবেলা করবেন তার সেরা উপায়গুলো সম্পর্কে জানাবার।  

আদর্শ বনভোজনের নিয়ম 

১. বালু বা পাথরের উপর আগুন জ্বালান। আপনি যদি সঠিক জায়গা খুঁজে না পান, তাহলে মাটির উপরের স্তর সরিয়ে ফেলেন।

২. যখন আগুন জ্বালাবেন তখন আগুনের শিখার উপর জ্বালানি সরাসরি ঢালবেন না-বোতলটি আপনার হাতে বিস্ফোরিত হতে পারে। জ্বালানি দেয়ার  সাথে সাথেই আগুন জ্বালাতে হবে অন্যথায় এটি বাষ্প হয়ে যেতে পারে।  

৩. টেবিলের ওপর পিঁপড়া উঠা বন্ধ করতে টেবিলের প্রতিটি পায়ের নীচে অল্প পানিসহ একটি পাত্র দিয়ে রাখবেন। যদি আপনি বনভোজনে মাদুর ব্যবহার করে থাকেন তাহলে এর উপর কিছু  শুকনো পুদিনা অথবা শশার কিছু ছাল রাখতে পারেন। এগুলোর গন্ধে যেকোনো পিঁপড়া আসতে ভয় করবে।

৪. রোসমেরী বা তুলসী পাতার সাহায্যে মশা দূর করা যায়। আপনার বারবিকিউ গ্রীল বা আগুনের কয়লার উপর কয়েকটা পাতা ছিটিয়ে দিন।

৫. আপনার খাবার সতেজ রাখতে ফ্রিজার ব্যাগ অথবা ঢাকনাসহ খালি পাত্র ব্যবহার করতে পারেন। যখন আপনি ঢাকনাটা চাপ দিবেন তখন পাত্রের বাতাস সরে যাবে। অক্সিজেন না থাকলে ব্যাকটেরিয়া পৌঁছাতে পারে না।

৬. যদি আপনি পানির কাছাকাছি থাকেন তাহলে আপনার পাত্রগুলো জলাধারে ধৌত করবেন না বা কিনারায় নিজে গোসল করবেন না । আপনি একটা বালতি ব্যবহার করবেন এবং পরে অবশ্যই মাটির ওপর ময়লা পানি ফেলে দিবেন।

আপনি যদি আপনার শরীরে এঁটুল খুঁজে পান 

এঁটুল  সরাসরি  সরানোর চেষ্টা করবেন না। এই প্রক্রিয়াটি সাবধানে এবং মনোযোগ সহকারে লক্ষ্য করুন।

  • কামড়ানো জায়গা ভেজিটেবিল অয়েল দিয়ে আচ্ছাদন করুন।
  • সুতা দিয়ে ফাঁস তৈরি করুন এবং এঁটুলের মাথা এবং শরীরের মধ্যে লাগান।
  • ফাঁসটি আস্তে আস্তে উপরে তোলেন এবং   এঁটুলটি সরিয়ে ফেলুন।
  • এঁটুল বাহিত জীবাণু দ্বারা সংক্রামিত হওয়ার ঝুঁকি পরীক্ষা করার জন্য এটি অপসারণের দুই দিনের মধ্যে জীবিত অবস্থায় পরীক্ষাগারে জমা দিতে হবে।

 

আপনি যদি আগুনে পোড়েন

পোড়াটা যদি অল্প হয়ঃ

১. কাঁচা আলু অথবা গাজর কেটে পোড়া স্থানটিতে লাগিয়ে দিন।

২. পোড়া স্থানটিতে ঠাণ্ডা পানি ঢালুন এবং লবণ ছিটিয়ে দিন। লবণ শুকিয়ে পড়ে না যাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।

পোড়াটা যদি গুরুতর হয় ( ফোসকা )

পোড়া স্থানটিতে প্যানথেনোল স্প্রে বা অ্যান্টিবায়োটিক ক্রিমের একটি পুরু স্তর প্রয়োগ করে ব্যান্ডেজ ব্যবহার করুন। অন্যথায় তা ক্ষত স্থানে লেগে যেতে পারে।

 

আপনি যদি বিষে আক্রান্ত হন

আপনাকে শরীরের বিষ পরিষ্কার করতে হবে এবং যত তাড়াতাড়ি সম্ভব বিষক্রিয়াগত মাথাব্যথা প্রতিরোধ করতে হবে। একটি ম্যাঙ্গানিজ বা কাঠকয়লা ব্যবহার করে বন্ধ করা ছাড়াও , আপনি এই পদ্ধতিটি চেষ্টা করতে পারেনঃ

১. ৬০০ মিলি সিদ্ধ পানির মধ্যে আদার শিকড় বাটা ২ চামচ একসাথে মিশ্রিত করে ছাঁকেন। দিনে পানি পান করার সময় ৫০ মিলি করে গরম গরম পান করবেন।

২. পানিতে ৩-৫ চামচ দারুচিনি পাঁচ মিনিট সিদ্ধ করে এটি ছাঁকেন। গরম থাকতেই ২-৩ কাপ পান করুন।

নেশা জাতীয় পান করবেন না আপনি যদি বিষে আক্রান্ত হয়ে থাকেন। এটি শরীরে আরো খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে।

আপনি যদি মৌমাছি দ্বারা দংশিত হন

শুধুমাত্র মৌমাছিরাই তাদের হুল পিছনে ছেড়ে চলে যায়। যদি আপনাকে মৌমাছি হুল ফোটায় তাহলে হুল খুঁজে টানদেয়ার চেষ্টা করবেন না। একটি প্লাস্টিকের কার্ড চামড়ার সাথে ৪৫ ডিগ্রী কোণে চেপে ধরে হুল ফোটানোর জায়গার উপর দিয়ে টেনে আনবেন। তারপর ক্ষত স্থানে যে কোন অ্যান্টিবায়োটিক লাগিয়ে দিন।

 

আপনার যদি কেটে যায়

ক্ষত এবং আঘাতের প্রাথমিক চিকিৎসা পরিস্থিতি মূল্যায়নের মাধ্যমে করা হয়।

১. ক্ষতটি কতটুকু গুরুতর এবং কোন রক্ত পরছে কিনা?

২. ক্ষত জায়গায় সংক্রমণের সুযোগ আছে কিনা?

যদি ক্ষত ছোট হয় কিন্তু আপনার কাছে কোন অ্যান্টিসেপটিক পণ্য না থাকেঃ

  • ক্ষত স্থানটি ধুয়ে নিন এবং দেবদারু গাছের ছাল ক্ষত স্থানে লাগান। 
  • রিবওয়েট গাছের কিছু পাতা হাতের তালুতে ঘষে ক্ষত স্থানে রেখে ব্যান্ডেজ লাগাতে হবে।

রক্তপাতটি যদি বেশী হয় এবং কাঁপুনি হয় তার মানে রক্তনালীর ক্ষতি হয়েছে এবং tourniquet  প্রয়োগ করতে হবে। tourniquet শুধুমাত্র এক ঘণ্টার জন্য কাজ করে, তাই আপনাকে অতি শীঘ্রই হাসপাতালে যেতে হবে।

 

আপনি যদি একটি সাপের সম্মুখীন হন

যদি আপনি একটি সাপ দেখতে পান, নড়াচড়া করবেন না। তাকে যাওয়ার জন্য সুযোগ দিন। সাপ শুধুমাত্র তখনই আক্রমণ করে যখন তাকে ভয় দেখানো হয়।

সাপে কাটার প্রাথমিক চিকিৎসাঃ

ক্ষত জায়গাটি নড়াচড়া বন্ধ করার চেষ্টা করুন, যেহেতু নড়াচড়া করলে রক্ত সঞ্চালন বাড়ে তাতে সাপের বিষ শরীরে অতি দ্রুত ছড়িয়ে পরবে।

ক্ষত জায়গাটি শুকিয়ে ফেলুন এবং ক্ষত স্থানটির উপরে ব্যান্ডেজ করতে হবে।

       Tourniquet  লাগাতে পারেন। কিন্তু ৩০-৪০ মিনিটের বেশী নয়। অন্যথায় রক্ত চলাচলের টিস্যু ক্ষতি হতে পারে। যথা সম্ভব ডাক্তার দেখান।

বনে যাওয়ার সময় সাথে কি নিবেন

  • নিবারক
  • পরিষ্কার ব্যান্ডেজ
  • ব্যান্ড সহায়ক
  • অ্যান্টিসেপটিক সামগ্রী
  • চেতনানাশক
  • সক্রিয় কাঠকয়লা
  • পোড়া চিকিৎসার জন্য সামগ্রী
  • পকেট ছুরি
  • সুতা 
  • ভেজিটেবল অয়েল
  • দড়ি

ছবি ও তথ্য সংগ্রহ ঃ ব্রাইট সাইড

Share This Post