শরীরের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করতে পারে অতি-পরিচিত এই ফলগুলো!  শরীরের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করতে পারে অতি-পরিচিত এই ফলগুলো!

শরীরের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করতে পারে অতি-পরিচিত এই ফলগুলো!

সৌন্দর্য, স্বাস্থ্য, দীর্ঘায়ু সব ক্ষেত্রেই ফলের উপকারীতা অপরিসীম। ফল হলো প্রকৃতি প্রদত্ত এক আশীর্বাদ। আমাদের অতি-পরিচিত কিছু ফল সমাধান করতে পারে বিভিন্ন শারীরিক সমস্যার। চলুন দেখে আসা যাক-

১। কৃমির সমস্যায় আনারসঃ পুষ্টিগুণে এই ফলটি অতুলনীয়। যা আমাদের শরীরের জন্য অত্যন্ত জরুরি। ফলে এখন প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় আনারস রাখলে মন্দ হয় না। এই ফলটি খুব একটা দামিও নয়। আনারস কৃমিনাশক। কৃমি দূর করার জন্য সকালে খালি পেটে আনারস খাওয়া উচিত।

আনারস

আনারস

২। মূত্র জনিত সমস্যায় মিষ্টি কুমড়াঃ শরীরের ফ্রি রেডিক্যাল ড্যামেজ প্রতিরোধ করে। বিভিন্ন দূষণ, স্ট্রেস ও খাবারে যেসব কেমিক্যাল ও ক্ষতিকর উপাদান থাকে তা ফ্রি রেডিক্যাল ড্যামেজের মাধ্যমে শরীরের কোষ নষ্ট করে। এসব প্রতিরোধ কাজ করে মিষ্টি কুমড়া। যার ফলে মূত্র জনিত সমস্যায় মিষ্টি কুমড়া বেশ কার্যকরী।

মিষ্টি কুমড়া

মিষ্টি কুমড়া

৩। মুখের দুর্গন্ধ প্রতিরোধে কাঁচা পেয়ারাঃ মাড়ির প্রদাহ, মাড়ির ফোলা, মুখের দুর্গন্ধ দূর করতে, দাঁতের ব্যাথা, মুখের ঘা সারাতে কাঁচা পেয়ারা বেশ কার্যকর।

কাঁচা পেয়ারা

কাঁচা পেয়ারা

৪। কিডনির পাথর দূর করতে পাকা আমঃ কিডনী রোগ আজ বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ছে। আমাদের মল-নিঃসারক প্রক্রিয়ায় আমাদের কিডনি খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ। আমাদের রক্ত থেকে ক্ষতিকর উপাদানদের বের করে দিতে কিডনিরা কাজ করে দিন-রাত হরদম। এবং ক্ষতিকর উপাদানদের প্রস্রাবের আকারেও বের করে দেয়। কিডনির সমস্যাগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো কিডনির পাথর হওয়া, আর এই সমস্যা সামাধান করতে ভূমিকা রাখে পাকা আম।

পাকা আম 

পাকা আম 

৫। ক্যান্সার প্রতিরোধে টমেটোঃ টমেটোতে আছে প্রচুর লাইকোপিন নামক শক্তিশালী এন্টি-অক্সিডেন্ট। টমেটো সস্, টমেটো পেস্ট বা টমেটো ক্যাচাপ-লাইকোপিনের ঘন উত্স। লাইকোপিন পুরুষদের প্রস্টেট আর মহিলাদের জরায়ুর মুখ ও ডিম্বাশয়ের ক্যান্সার হবার সম্ভাবনা কমাতে সহায়ক। এ ছাড়া বৃহদন্ত্র, মলাশয়, পাকস্থলি, গ্রাসনালী ইত্যাদি অঙ্গের ক্যান্সার প্রতিরোধেও টমেটো সহায়ক বলে বিভিন্ন গবেষণায় প্রমাণ।

টমেটো

টমেটো

৬। নিউমোনিয়া প্রতিরোধে কমলালেবুঃ কমলালেবুতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ফ্রি-র্যাডিকাল ড্যামেজ প্রতিরোধ করে। যা কিনা ত্বকের সজীবতা বজায় রাখতে সাহায়তা করে। পেপটিক আলসার প্রতিরোধেও কমলালেবু সাহায্য করে। এছাড়া শীতকালে কমলালেবুর জুস ঠাণ্ডা লাগার সমস্যায় উপকারী বন্ধু হিসেবে কাজ করে। ব্রঙ্কাইটিস, নিউমোনিয়া প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।

কমলালেবু

কমলালেবু

৭। হাড়ের ক্ষয়জনিত সমস্যায় আঙ্গুরঃ আঙ্গুরে বিদ্যমান প্রোএন্থোসায়ানিডিন হৃৎপিণ্ডের কর্মক্ষমতা বাড়াতেহৃদরোগ প্রতিরোধে এবং রক্ত পরিশুদ্ধকরণে সহায়তা করে। প্রতিদিন ৩-৯টি কালো আঙ্গুর খেলে উপরোল্লিখিত উপকারসমূহ ছাড়াও হাড়ের ক্ষয়জনিত সমস্যায় আঙ্গুর বেশ উপকারী।

আঙ্গুর

আঙ্গুর

৮। পাকা পেয়ারা হরমোন জনিত সমস্যা দূর করেঃ পেয়ারায় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-সি রয়েছে। অন্যান্য সাইট্রাস ফল, যেমন—কমলালেবুর তুলনায় পেয়ারায় ৫ গুণ বেশি ভিটামিন-সি রয়েছে। সেইসঙ্গে রয়েছে ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, পটাশিয়াম, ফলিক অ্যাসিড এবং নিকোটিনিক অ্যাসিড। পাকা পেয়ারার একটি বিষেশ গুণ হলো, এটি শরীরের হরমোন জনিত সমস্যা দূর করে।

পাকা পেয়ারা

পাকা পেয়ারা

 

সূত্রঃ ব্রাইট সাইড।



জনপ্রিয়